এবার ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার দশক সেরা ওয়ানডে একাদশেও সাকিব

0

স্পোর্টস ডেস্ক:

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার (সিএ) দশক সেরা ওয়ানডে একাদশে জায়গা পেয়েছেন টাইগার অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান।

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার ওয়ানডে একাদশে সাকিব ছাড়াও আছেন- মহেন্দ্র সিং ধোনি, রোহিত শর্মা, হাশিম আমলা, বিরাট কোহলি, এবি ডি ভিলিয়ার্সের তারকা ক্রিকেটার। দলের অধিনায়ক নির্বাচিত হয়েছেন ভারতকে ২০১১ ওয়ানডে বিশ্বকাপ জেতানো ধোনি। দলের উইকেটরক্ষকের দায়িত্বও তার কাঁধেই রাখা হয়েছে।

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার ওয়ানডে একাদশ:

মহেন্দ্র সিং ধোনি (অধিনায়ক এবং উইকেটরক্ষক), রোহিত শর্মা, হাশিম আমলা, বিরাট কোহলি, এবি ডি ভিলিয়ার্স, সাকিব আল হাসান, জস বাটলার, রশিদ খান, লাসিথ মালিঙ্গা, মিচেল স্টার্ক এবং ট্রেন্ট বোল্ট।

ওয়ানডে দলে জায়গা পেলেও ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার দশক সেরা টেস্ট দলে জায়গা হয়নি সাকিবের।

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার টেস্ট দল:

বিরাট কোহলি (অধিনায়ক), অ্যালিস্টার কুক, ডেভিড ওয়ার্নার, কেন উইলিয়ামসন, স্টিভেন স্মিথ, এবি ডি ভিলিয়ার্স (উইকেটরক্ষক), বেন স্টোকস, ডেল স্টেইন, স্টুয়ার্ট ব্রড, নাথান নায়ন এবং জেমস অ্যান্ডারসন।

ক্রিকেট বাইবেল উইজডেনের দশক-সেরা একাদশে সাকিব

এই দশক শেষ হতে বাকী আছে মাত্র কয়েকটা দিন। এরপর নতুন বছরের আগমন। গত ১০ বছরে ২২ গজে ভাঙা-গড়া হয়েছে অসংখ্য রেকর্ড। ব্যক্তিগত বা দলীয় দা’পট শেষে এই দশকের সেরা একাদশ বাছাই করেছে ক্রিকেট বিষয়ক ইংল্যান্ডের জনপ্রিয় পত্রিকা উইজডেন। ক্রিকেটের বাইবেল খ্যাত এই পত্রিকায় প্রকাশিত একাদশটিতে নাম এসেছে সাকিব আল হাসানের।

দলটির ওপেনার হিসেবে আছেন ভারতের সহ অধিনায়ক রোহিত শর্মা। গত ১০ বছরে ১৭৯টি ওয়ানডে ম্যাচে ৫৩.৫০ গড়ে ৮ হাজার ১৮৬ রান করেন রোহিত। তার সঙ্গে ওপেনার হিসেবে নাম আছে ডেভিড ওয়ার্নারের। শেষ ১০ বছরে ১০৯টি ওয়ানডে খেলে ৪৭.৮৮ গড়ে ৪ হাজার ৮৮৪ রান করেন তিনি।

৩ নম্বরে আছেন বিরাট কোহলি। উল্লেখিত সময়ে ২২৬টি ওয়ানডেতে ৬০.৬৫ গড়ে ১১ হাজার ৪০ রান করেন কোহলি। একাদশের ৪ নম্বরে আছেন ডি ভিলিয়ার্স। ২০১০ সাল থেকে সাবেক এই প্রোটিয়া অধিনায়ক করেন ১৩৫ ওয়ানডেতে ৬৪.২০ গড়ে ৬ হাজার ৪৮৫ রান।

৫ নম্বরে আছেন ইংল্যান্ডের উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান জস বাটলার। ১৪২টি ওয়ানডেতে ৪০.৮৮ গড়ে ৩ হাজার ৮৪৩ রান করেন তিনি। তারপর আছেন ভারতকে বিশ্বকাপ জেতানো অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি। ১৯৬টি ওয়ানডেতে ৫০.৩৫ গড়ে ৫ হাজার ৬৪০ রান করেন তিনি।

সাকিবের স্থান হয়েছে ৭ নম্বরে। উল্লেখিত সময়ে ১৩১টি ওয়ানডেতে ৩৮.৮৭ গড়ে ৪ হাজার ২৭৬ রান করেন তিনি। বল হাতে নেন ১৭৭টি উইকেট। একাদশে একমাত্র স্পিনার তিনি। এরপরে আছেন শ্রীলঙ্কার ফাস্ট বোলার লাসিথ মালিঙ্গা। ১৬২টি ম্যাচে ২৪৮টি উইকেট নেন মালিঙ্গা।

তারপরে আছেন অস্ট্রেলিয়ার ফাস্ট বোলার মিচেল স্টার্ক। ৮৫টি ওয়ানডেতে ২০.৯৯ গড়ে ১৭২টি উইকেট নেন স্টার্ক। নিউজিল্যান্ডের পেসার ট্রেন্ট বোল্টের নামও আছে এই একাদশে। বিবেচিত সময়ের মধ্যে ৮৯টি ওয়ানডে খেলে ২৫.০৬ গড়ে ১৬৪টি উইকেট নিয়েছেন বোল্ট।

একাদশের শেষ নামটি প্রোটিয়া পেসার ডেল স্টেইনের। ৯০টি ওয়ানডেতে ১৪৫টি উইকেট নেন এই ফাস্ট বোলার।

শেয়ার করুন !
  • 339
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply