❝সশ’স্ত্র বাহিনীকে আরও আধুনিক করে গড়ে তোলার কাজ করছে সরকার❞

0

সময় এখন ডেস্ক:

সংবিধানের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থেকে আপনারা বাংলার আকাশ মুক্ত রাখার শপথ বাস্তবায়ন করবেন। নতুন প্রজন্মের উদীয়মান কর্মকর্তা হিসেবে বিমান বাহিনীকে আপনারা নিয়ে যাবেন সফলতার শিখরে। এই প্রত্যাশাই থাকবে।

বৃহস্পতিবার (২৬ ডিসেম্বর) যশোরে বিমান বাহিনী একাডেমিতে বক্তব্য রাখার সময় নবীন কর্মকর্তাদের উদ্দেশে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিমানবাহিনীর ক্যাডেটদের শীতকালীন রাষ্ট্রপতি কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী।

বাংলাদেশের সশ’স্ত্র বাহিনীকে গুরুত্ব দিয়ে আরও আধুনিক বাহিনী হিসেবে গড়ে তুলতে সরকার কাজ করছে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সশ’স্ত্র বাহিনীর উন্নয়নের বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ও আওয়ামী লীগ সরকারের পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হ’ত্যার ২১ বছর পর সরকার গঠন করি। ক্ষমতায় এসে আওয়ামী লীগ বিমান বাহিনীর উন্নতির পদক্ষেপ নেয়। ৯৬ সালে আমরা ক্ষমতায় এসে তৎকালীন সবচেয়ে আধুনিক যু’দ্ধবিমান মিগ-২৯ কিনি। বিমান বাহিনীসহ সব বাহিনীকে আধুনিক করতে যু’দ্ধবিমানসহ বিভিন্ন ধরনের সরঞ্জাম কেনা হয়েছে। এখন বিমান বাহিনী অনেক বেশি দক্ষ ও চৌকস। ক্যাডেটদের প্রশিক্ষণের মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে। যাতে তারা বিভিন্ন বিষয়ে গ্র্যাজুয়েশন করতে পারে।

বঙ্গবন্ধুর আদর্শ মনে করিয়ে দিয়ে তিনি ক্যাডেটদের উদ্দেশে বলেন, সৈনিক জীবন অত্যন্ত কঠিন জীবন, তবে পথ হারানো যাবে না। আমি আশা করি এই কথা আপনারা সবসময় মনে রাখবেন। বিমান বাহিনী অ্যাকাডেমি থেকে যে প্রশিক্ষণ আপনারা গ্রহন করেছেন তার যথেষ্ট অনুশীলন আপনারা বাস্তব জীবনেও রাখবেন।

২০২০ সালে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী আমরা উদযাপন করব। ২০২১ সালে স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী পালন করবো। এই অনুষ্ঠানগুলোর মধ্য দিয়ে আমাদের স্বাধীনতার পতাকা আরও সমুজ্জ্বল হবে। বিশ্ব দরবারে আমরা দেশকে আরও এগিয়ে নিয়ে যাব এটাই আমাদের লক্ষ্য।

প্রকাশিত সংবাদের পরিপ্রেক্ষিতে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ব্যাখ্যা

জন্মসূত্রে বাংলাদেশের নাগরিক ভারতে থাকলে তাদের গ্রহণ করা হবে- শিরোনামে দেশের কতিপয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনের। সংবাদের বিষয়টি পরিষ্কার করতেই আজ বৃহস্পতিবার গণমাধ্যমে একটি ব্যাখ্যা পাঠিয়েছেন তিনি।

এতে বলা হয়েছে, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে উল্লেখ করেন, বাংলাদেশের নাগরিক ভারতে থাকলে এবং ভারত সরকার যদি বাংলাদেশ সরকারকে অবহিত করে, তবে যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণ করে তাদের দেশে ফেরত আনা হবে। এ নিয়ম কেবল ভারতের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়, পৃথিবীর যে কোনো দেশে বাংলাদেশের নাগরিক অবস্থান করলে যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণ করে ফেরত আনা হয়।

এ ছাড়া পররাষ্ট্রমন্ত্রী ‘জন্মসূত্রে’ শব্দটি উল্লেখ করেননি। ‘জন্মসূত্রে’ শব্দটি ভুলভাবে প্রকাশিত হয়েছে বলেও জানানো হয় ওই বার্তায়।

শেয়ার করুন !
  • 577
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!