মেট্রোরেল স্বপ্ন নয়, বাস্তবের আরও কাছে

0

অর্থনীতি ডেস্ক:

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, মেট্রোরেল তরুণ প্রজন্মের ড্রিম প্রজেক্ট। মেট্রোরেল ডিপো এলাকায় ১৯ কিলোমিটার রেললাইন রয়েছে।

২০৩০ সাল নাগাদ ৬টি এমআরটি লাইনের কাজ শেষ হবে এবং শিগগিরই এমআরটি লাইন-১ এবং ৫ এর কাজ শুরু হবে। ফলে ২০৩০ সালের মধ্যে ঢাকা শহরের যান চলাচলের চিত্র বদলে যাবে।

বুধবার মেট্রোরেলের উত্তরা ডিপোতে ওভারহেড ক্যাটিনারি সিস্টেম এবং রেল লাইন স্থাপনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করে ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেড।

মন্ত্রী আরও বলেন, মেট্রোরেল প্রকল্প এলাকায় যে পরিমাণ কর্মযজ্ঞ চলছে সেটি বাইরে থেকে দেখে বোঝার কোনো উপায় নেই। মেট্রোরেলের কাজ শেষ হলে ঢাকা শহরের যান চলাচলে চিত্র বদলে যাবে। এখন পর্যন্ত এই কাজের সার্বিক অগ্রগতি হয়েছে ৪০ ভাগ। দৃশ্যমান হয়েছে ৮.৫ কিলোমিটার। ২০৩০ সালের মধ্যে ৬টি মেট্রোরেল প্রকল্পের কাজ শেষ হবে। এসব এমআরটি লাইন চালু হলে ঢাকা শহরে সুন্দর দৃশ্যপট তৈরি হবে। মেট্রোরেল প্রকল্পের কাজের সার্বিক অগ্রগতি ৪০ শতাংশ এবং ৮.৫ কিলোমিটার মেট্রোরেল এখন দৃশ্যমান হয়েছে।

অনুষ্ঠানে ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের (ডিএমটিসিএল) পক্ষ থেকে জানানো হয়, ঢাকা মহানগরী ও তৎসংলগ্ন পার্শ্ববর্তী এলাকার যানজট নি’রসনে ও পরিবেশ উন্নয়নে আধুনিক গণপরিবহন হিসেবে মেট্রোরেলের পরিকল্পনা, সার্ভে, ডিজাইন, অর্থায়ন, নির্মাণ, পরিচালনা ও রক্ষণাবেক্ষণের নিমিত্তে ২০১৩ সালের ৩ জুন শতভাগ সরকারি মালিকানাধীন ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেড গঠন করা হয়।

এরই ধারাবাহিকতায় ৬টি মেট্রোরেলের সমন্বয়ে একটি শক্তিশালী নেটওয়ার্ক গড়ে তুলতে সরকার কর্মপরিকল্পনা ২০৩০ গ্রহণ করেছে। এ কর্মপরিকল্পনা অনুসরণে ২০.১০ কিলোমিটার দীর্ঘ বাংলাদেশের প্রথম উড়াল মেট্রোরেল বা এমআরটি লাইন ৬ এর নির্মাণ কাজ পুরোদমে এগিয়ে চলছে। স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি উদযাপন বর্ষের ২০২১ সালের ১৬ ডিসেম্বর সরকার বাংলাদেশের প্রথম উড়াল মেট্রোরেল আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধনের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে।

সংস্থাটি আরও বলেছে, ২০২৬ সালের মধ্যে উড়াল ও পাতাল মেট্রোরেলের সমন্বয়ে ৩১.২৪১ কিলোমিটার দীর্ঘ এমআরটি লাইন-১ নির্মাণের লক্ষ্যে ডিটেল ডিজাইনের কাজ চলমান। ২০২৮ সালের মধ্যে উড়াল ও পাতাল মেট্রোরেলের সমন্বয়ে ২০ কিলোমিটার দীর্ঘ এমআরটি লাইন ৫ নর্দান রুটের ইঞ্জিনিয়ারিং সার্ভিসের পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগের নিমিত্তে নিগোসিয়েশন সম্পন্ন হয়েছে।

২০৩০ সালের মধ্যে উড়াল ও পাতাল মেট্রোরেলের সমন্বয়ে এমআরটি লাইন সাউদার্ন রুটের কারিগরি সহায়তা প্রকল্প সরকার অনুমোদন করেছে। একই সময়ের মধ্যে জি-টু-জি ভিত্তিতে পিপিপি পদ্ধতিতে এমআরটি লাইন ২ এবং ৪ নির্মাণের উদ্যোগ প্রক্রিয়াধীন।

শেয়ার করুন !
  • 1.8K
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!