টাইগারদের নতুন বোলিং কোচ হচ্ছেন ওটিস গিবসন

0

স্পোর্টস ডেস্ক:

ওটিস গিবসন হতে যাচ্ছেন বাংলাদেশের নতুন বোলিং কোচ। শার্ল ল্যাঙ্গেভেল্টকে তাদের কোচিং স্টাফে চেয়েছিল দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেট বোর্ড, তাদের অনুরোধেই সাবেক প্রোটিয়া এই পেসারকে চুক্তি থেকে অ’ব্যাহতি দেয় বিসিবি। এর পর থেকেই নতুন বোলিং কোচের সন্ধানে ছিল বোর্ড।

শোনা যাচ্ছিল, সিলেট থান্ডারের হয়ে বোলিং কোচ হিসেবে কাজ করা সাবেক প্রোটিয়া পেসার ন্যান্টে হেওয়ার্ড ও সাবেক ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটার ওটিস গিবসনের নাম।

জানা গেছে, এবারের বিপিএলে কুমিল্লা ওয়ারিয়র্সের কোচ হিসেবে কাজ করা গিবসনই হতে যাচ্ছেন বাংলাদেশের বোলিং কোচ। তার সঙ্গে এ মাসের শুরুতেই আলোচনা হয়েছিল বিসিবি কর্তাদের।

আলাপের পর গিবসন জানিয়েছিলেন, আমরা এখনো কোনো সিদ্ধান্তে পৌঁছাইনি, কেবল আলাপ শুরু করেছি। যদি তরুণ পেস বোলারদের সাহায্য করার কোনো সুযোগ থাকে, তাহলে অবশ্যই সেই সুযোগটা নেব।

আরো জানা গেছে, ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে ২ টেস্ট ও ১৫ ওয়ানডে খেলা গিবসনের কোচিং ক্যারিয়ারটা বেশ সমৃদ্ধ। দুই মেয়াদে ইংল্যান্ডের বোলিং কোচ ছিলেন তিনি। এছাড়া ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলেরও হেড কোচ ছিলেন।

বাংলাদেশের বর্তমান প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো দায়িত্ব ছাড়ার পর ওটিস গিবসনকেই দক্ষিণ আফ্রিকার জাতীয় দলের কোচ হিসেবে নিয়োগ দিয়েছিল দেশটির ক্রিকেট বোর্ড। কিন্তু বিশ্বকাপের ভরাডুবির পর তার চাকরিটা যায়।

তবে দক্ষিণ আফ্রিকার ল্যাঙ্গেভেল্ট বাংলাদেশ দলের বোলিং কোচের চাকরিটা ছেড়ে দিলে জায়গাটা খালি হয়। এখন সেখানেই আসতে যাচ্ছেন গিবসন।

বাংলাদেশের সাথে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলতে চায় অস্ট্রেলিয়া

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের বিশেষ আসর বঙ্গবন্ধু বিপিএলের ফাইনালে বিশেষ অতিথি হিসেবে এসেছিলেন ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার প্রধান নির্বাহী কেভিন রবার্টস। এ সময় বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বিসিবির সাথে আলোচনা হয়েছে তার। সেখানে বাংলাদেশের সাথে আরো বেশি দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন তিনি।

জানা গেছে, টেস্ট স্ট্যাটাস প্রাপ্তির ২০ বছরে অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে মাত্র ৩টি টেস্ট সিরিজ খেলেছে বাংলাদেশ। আর ওয়ানডে সিরিজ হয়েছে মাত্র ৪টি। এখন পর্যন্ত কোনো টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলেনি টাইগাররা। বৈশ্বিক টুর্নামেন্ট ছাড়া ২০০৮ সালে শেষবার অস্ট্রেলিয়া সফর করেছিল বাংলাদেশ। তাই এফটিপির পরের চক্রে দুই দেশের মধ্যে সিরিজ সংখ্যা বাড়ানো নিয়ে এদিন আলোচনা করে বিসিবি ও সিএ। আলোচনাকালে বাণিজ্যিক বিষয়গুলো বিবেচনা করে সব ফরম্যাটেই হোম ও অ্যাওয়ে সিরিজ খেলতে আগ্রহও প্রকাশ করেন অস্ট্রেলিয়ার প্রধান নির্বাহী।

পরে এ ব্যাপারে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার প্রধান নির্বাহী কেভিন রবার্টস গণমাধ্যমকে বলেন, আমাদের মধ্যে খুব ফলপ্রসু আলোচনা হয়েছে। ২০২৩ থেকে ৩৩ পর্যন্ত এই ১০ বছরে আমরা বাংলাদেশের সাথে বেশ কয়েকটি সিরিজ খেলতে চাই। বাংলাদেশ এখন বিশ্ব ক্রিকেটে খুবই গুরুত্বপূর্ণ এক সদস্য। দুই দেশের ক্রিকেট সম্পর্ক ভবিষ্যতে আরো দৃঢ় হবে।

বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী বলেন, এক সময় বয়সভিত্তিক ও প্রেসিডেন্ট একাদশ নামে অস্ট্রেলিয়ার বেশ কিছু দল বাংলাদেশ সফর করতো। অনেকদিন ধরেই তা বন্ধ। আবারো সেই ধারা শুরু করতে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট রাজি। সেই সাথে কোচ ও লজিস্টিক সাপোর্ট বিনিময়ে সম্মত হয়েছে দুই বোর্ড।

শেয়ার করুন !
  • 129
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!