নারী শিক্ষা কর্মকর্তাকে নিয়ে অ’শ্লীল মন্তব্য, শিক্ষকসহ গ্রেপ্তার ৩

0

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি:

ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের করা মামলায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক কয়েস আল কায়কোবাদ লাজুকসহ (৪০) ২ সহযোগীকে ইয়া-বাসহ গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গ্রেপ্তার অন্য ২ জন হলেন- শামছুজ্জামান বাপ্পি (২৫) ও তৌহিদা আক্তার রুমা (৩২)।

সোমবার (২০ জানুয়ারি) দিবাগত রাত পৌনে ২ টার দিকে পৌর শহরের বালুয়াপাড়া মোড় এলাকা থেকে মা’দকসেবন করা অবস্থায় তাদেরকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। গ্রেপ্তারকৃতদের ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে মঙ্গলবার আদালতে পাঠানো হয়েছে।

গ্রেপ্তাকৃত লাজুক উপজেলার ধূরুয়া গ্রামের মৃ’ত আব্দুল হাইয়ের ছেলে, তৌহিদা আক্তার রুমা পৌর শহরের সতিষা গ্রামের আব্দুল হাইয়ের মেয়ে, শামছুজ্জামান বাপ্পি বোকাইনগর অষ্টগড় গ্রামের আবুল বাসারের ছেলে।

গৌরীপুর থানার ওসি মো. বোরহান উদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, সহকারী শিক্ষক মা’দকসেবী ও ব্যবসায়ী কয়েস আল কায়কোবাদ লাজুক ও তার সহযোগীরা তাদের নিজস্ব ফেসবুক আইডিসহ বিভিন্ন ফেক আইডি দিয়ে জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ, সরকারি কর্মকর্তাসহ সুশীল সমাজের লোকজনের বিরু’দ্ধে নানা অ’শ্লীল আপ’ত্তিকর মন্তব্য এবং এডিট করা অ’শ্লীল ছবি পোস্ট করে সম্মানহা’নিসহ তাদেরকে ব্ল্যাকমেল করে আসছিল।

এ চক্রের কু-কর্মের কাছে সবাই ছিল অ’সহায়। কেউ প্র’তিবাদ করতে সাহস পেত না। উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মনিকা পারভীনকে নিয়ে ফেসবুকে অ’শ্লীল ভাষায় বিভিন্ন মন্তব্য ও ফটোশপে এডিট করা আপ’ত্তিকর ছবি পোস্ট করে তারা।

এ ঘটনায় সোমবার (২০ জানুয়ারি) রাতে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের করেন। অভিযানে নামলে পুলিশ তাদের ৩ জনকে একত্রে মা’দক সেবনরত অবস্থায় পায়। তাদেরকে ২০ পিস ইয়া-বাসহ গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ও মা’দক আইনে দুটি মামলায় তাদের ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে মঙ্গলবার আদালতে পাঠানো হয়েছে। রিমান্ড মঞ্জুর হলে এ চক্রের সকল সদস্যকে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হবে বলে জানায় পুলিশ।

উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মনিকা পারভীন জানান, শিক্ষক লাজুক কিছুদিন আগে অ’নিয়মতান্ত্রিকভাবে শিক্ষক বদলি করার জন্য সুপারিশ করেছিলেন। এতে রাজি না হওয়ায় ১৯ ও ২০ জানুয়ারি লাজুক তার নিজস্ব ফেসবুক আইডি ও অন্যান্য আইডির মাধ্যমে অ’শ্লীল মন্তব্য এবং এডিটিং করা আপ’ত্তিকর ছবি আপলোড দেন।

তারা এ শিক্ষা কর্মকর্তার ফেসবুক মেসেঞ্জারে বিভিন্ন অ’শ্লীল মন্তব্য করে বলে জানান তিনি।

শেয়ার করুন !
  • 57
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!