জামায়াতপন্থীদের ওয়াজের পক্ষে বিএনপির এমপি, সংসদে হৈ চৈ

0

সময় এখন ডেস্ক:

দেশের বিভিন্ন স্থানে সরকারের পক্ষ থেকে ওয়াজ মাহফিলে বাধা দেওয়া হচ্ছে- এমন অভিযোগ বিএনপিদলীয় সংসদ সদস্য মো. হারুনুর রশীদের। আর এতে ঘোর আপ’ত্তি জানিয়েছেন সরকারি দলের সংসদ সদস্যরা। এমনকি সংবিধানে বিসমিল্লাহির রহমানের রাহিমের উল্লেখ নিয়ে তিনি (হারুন) ভুল ব্যাখা দিয়েছেন বলে তাদের দাবি। এ নিয়ে সংসদ অধিবেশনে কিছু সময়ের জন্য উত্তে’জনা ছড়িয়ে পড়ে।

আজ বৃহস্পতিবার সংসদ অধিবেশনে অ-নির্ধারিত আলোচনা চলাকালে এই উত্তে’জনা ছড়িয়ে পড়ে। বেশ কিছু সময় ধরে হৈ-হট্টগোল চলে।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী সভাপতিত্বে শুরু হওয়া অধিবেশনে পয়েন্ট অব অর্ডারে দাঁড়িয়ে বিএনপিদলীয় সংসদ সদস্য হারুনুর রশীদ আলোচনার সূত্রপাত করতেই সরকারদলীয় সদস্যদের তোপের মুখে পড়েন। হট্টগোলের মধ্যে তার বক্তব্যের কড়া জবাব দেন সরকারদলীয় সদস্য সাবেক চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ ও বর্তমান হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন।

আলোচনার সূত্রপাত করে হারুনুর রশীদ বলেন, রাষ্ট্র পরিচালনার মূলনীতি সংশোধিত সংবিধানের পূর্বে সর্বশক্তিমান আল্লাহ’র প্রতি পূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাসী হবে এবং যাবতীয় কাজের ভিত্তি এটিই হবে। তবে নতুন সংশোধিত সংবিধান থেকে এটা উঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। অথচ রাষ্ট্র ধর্ম ইসলাম হিসেবে রাখা হয়েছে। সংবিধানের প্রস্তাবনায় পূর্বে ছিলো ‘বিসমিল্লাহির রহমানের রাহিম’, সেটির পরিবর্তে সংযোজিত হয়েছে পরম দয়ালু আল্লাহ’র নামে / পরম করুণাময় সৃষ্টিকর্তার নামে। বিষয়টিতে আপ’ত্তিকর। সংবিধানে বিসমিল্লাহির রহমানের রাহিমের প্রকৃত অর্থ সংযোজিত হওয়া উচিত।

বিরো’ধীদলীয় ওই সদস্য আরো বলেন, কয়েক দিন ধরে সংসদে রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর আলোচনায় একটা বিষয় নিয়ে বির্ত’ক করা হচ্ছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্ন তাফসির মাহফিলে যে আলোচনা হচ্ছে, কোরআন হাদিসের আলোকে আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন তাফসিরগণ আলোচনা করছেন। সেই সমস্ত আলোচনা নিয়ে আপ’ত্তিজনক অসংলগ্ন কথাবার্তা বলা হচ্ছে। এটা ঠিক হচ্ছে না।

তিনি বলেন, দেশে হিন্দু-বৌদ্ধ -খ্রিষ্টানরা সামাজিক বিভিন্ন অনুষ্ঠানে তারা তাদের কর্মকাণ্ড চালাচ্ছে। অথচ ইসলাম ধর্মের অনুসারীরা তাফসির মাহফিল করতে গেলে নিষে’ধাজ্ঞা আসছে। এতে মুসলমানদের মধ্যে ক্ষু’ব্ধ প্র’তিক্রিয়া সৃষ্টি হচ্ছে।

তার বক্তব্যের জবাব দিয়ে সাবেক প্রধান হুইপ আ স ম ফিরোজ বলেন, দেশের সমস্ত জায়গায় জেলা-উপজেলা জেলা পর্যায়ে ওয়াজ মাহফিল হচ্ছে, সেখানে আল্লাহ রসুলের কথা বলা হচ্ছে, শুধুমাত্র জামাতিপন্থায় মানুষ যাতে শিক্ষাদীক্ষা না নেয় যাতে দেশটাকে জ’ঙ্গি রাষ্ট্রে পরিণত না করে, সেই দিকটাকে আমরা অনেক সময় বলে থাকি। এক্ষেত্রে ইসলামী কার্যকলাপে কোনো বাধা সৃষ্টি হচ্ছে না।

তিনি আরো বলেন, উনি (হারুন) জামাতপন্থিদের কথা মতো এখানে কিছু কথা উত্থাপন করেছেন। মুষ্টিমেয় কয়েকজন মানুষ জামাতিদের পক্ষে। দেশের ১৬ কোটি মানুষ তাদের বিরো’ধিতা করে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এই দেশকে জ’ঙ্গিরাষ্ট্রে রূপান্তরিত করা থেকে রক্ষার চেষ্টা চলছে। তবে ইসলাম আছে, ইসলাম থাকবে, বাংলাদেশ চিরদিন মুসলমানদের স্বার্থ রক্ষা করে চলবে।

হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন বলেন, উনি (হারুন) সংবিধানের উদ্ধৃতি দিয়ে পূর্বের ন্যায় ঘোলা পানিতে মাছ শি’কার করার চেষ্টা করলেন। তিনি বিসমিল্লাহির রহমানের রাহিমের ব্যাখা হিসেবে অপ-ব্যাখা দিয়ে মানুষকে বিভ্রা’ন্ত করার চেষ্টা করেছেন। এটি উদ্দেশ্যেপ্রণোদিত এবং তাদের চিরাচরিত একই রাজনীতি। তারা বলেন, যে ধানের শীষে ভোট দিলে বেহেস্তের টিকিট পাওয়া যাবে, নৌকায় ভোট দিলে ইসলাম থাকবে না, বৌ তালাক হয়ে যাবে।

তিনি বলেন, আগামী পহেলা ফেব্রুয়ারি ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ঢাকার মানুষকে বিভ্রা’ন্ত করতে হটাৎ এমন একটি বিষয় উত্থাপন করা হয়েছে। যার সঙ্গে সংসদের কার্যক্রমের কোন সম্পর্ক নেই।

তিনি আরো বলেন, আমরা ওরশে বো’মা হাম’লা করতে দেইনি। আমরা হযরত শাহজালালের মাজারে বো’মা হাম’লা করতে দেইনি। আমরা ইসলামকে রক্ষা করার জন্য রাষ্ট্রীয়ভাবে সকল প্রকার ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি। ইসলামের নামে, ধর্মের নামে যারা বিভিন্ন ফতোয়া দিয়ে মানুষকে বিভ্রা’ন্ত করার চেষ্টা করছেন তাদের বিরু’দ্ধে গোটা জাতি ঐক্যবদ্ধভাবে কথা বলছেন।

শেয়ার করুন !
  • 50
  •  
  •  
  • 0
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!