ধ-র্ষকদের বিশেষ অঙ্গ অকেজো করে দেবে ইন্দোনেশিয়া

0

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

অ-প্রাপ্তবয়স্কদের ধ-র্ষণ করার জন্য বিশেষ শা’স্তির ঘোষণা দিয়েছে ইন্দোনেশিয়া। শরীরে রাসায়নিক প্রয়োগ করে বিশেষ অঙ্গ অকেজো করে দেওয়ার একটি বিলে স্বাক্ষর করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট জোকো উইডোডো।

ইন্দোনেশিয়ার স্থানীয় গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অ-প্রাপ্তবয়স্কদের ধ-র্ষণের অভিযোগ প্রমাণ হওয়ার পর অপরাধীর শরীরে রাসায়নিক প্রয়োগ করে বিশেষ অঙ্গ অকেজো করে দেওয়া হবে।

এমনকি অভিযুক্তদের যারা প্যারোলে মুক্তি পাবেন, তাদের গতিবিধিও ডিভাইসের মাধ্যমে পর্যবেক্ষণ করা হবে। জানা গেছে, অ-প্রাপ্তবয়স্কদের ধ-র্ষণের ঘটনায় দোষী সাব্যস্ত হলে ১০ থেকে ২০ বছরের কারাদ’ণ্ড দেওয়ার বিধান রয়েছে সে দেশে।

প্রসঙ্গত, গত বছর ১৪ বছর বয়সী এক কিশোরীকে গণ’ধ-র্ষণের পর হ’ত্যার ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। এ ঘটনায় এরই মধ্যে ৭ জন কিশোরকে ১০ বছরের কারাদ’ণ্ড দেওয়া হয়েছে।

প্রেসিডেন্ট জোকো জাকার্তায় তার বাসভবনে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে জানিয়েছেন, অ-প্রাপ্তবয়স্কদের ধ-র্ষণে দোষীদের সাজা খোজাকরণ (বিশেষ অঙ্গ অকেজো করে দেয়া) করার বিলে তিনি গত বুধবার স্বাক্ষর করেছেন।

অ-প্রাপ্তবয়স্কদের ধ-র্ষণের ঘটনা ব্যাপকহারে বেড়ে যাওয়ার জেরে এ ধরনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলেও তিনি জানিয়েছেন।

বিয়ে করলে ধ-র্ষণের সাজা মাফ: তুরস্কে করা হচ্ছে আইন

অ-প্রাপ্তবয়স্ক মেয়েকে ধ-র্ষণের পর যদি ধ-র্ষক তাকে বিয়ে করে নেয় তাহলে আইন অনুযায়ী তার যে সাজা হওয়ার কথা তা মওকুফ করা হবে!

এমনই বিত’র্কিত একটি আইন উত্থাপন হতে যাচ্ছে তুরস্কের সংসদে! বর্তমানে তুরস্কে ৪ হাজার ধ-র্ষক জেলে রয়েছে। আশ’ঙ্কা করা হচ্ছে এই আইন পাস হলে তারা হয়তো ভিক্টিমকে বিয়ের সুযোগ নিয়ে ছাড়া পেয়ে যেতে পারে।

তুরস্ক সরকার বলছে, যারা না বুঝেই অ-প্রাপ্তবয়স্কদের ধ-র্ষণ করেছে তাদেরকে বিয়ের সুযোগ দেয়া হবে। তবে নারী অধিকারকর্মীরা বলছেন, যেসব পুরুষ জেনে শুনেই এসব অপরাধ করেছে তাদেরকেও এই আইনের আওতায় ক্ষমা করা হবে। এর মধ্য দিয়ে দেশে ধ-র্ষণ আইনি বৈধতা পেয়ে যেতে পারে বলে অভিমত তাদের।

চলতি মাসের শেষে তুরস্কের আইনপ্রণেতারা এই আইনটি সংসদে উত্থাপন করবেন।

তুরস্কের বামপন্থী বিরো’ধী দল দ্য পিপলস ডেমোক্র্যাটিক পার্টি (এইচডিপি) প্রস্তাবিত ওই আইনের তীব্র সমালোচনা করে সরকারকে সতর্ক করে বলেছে, এই আইন বাল্য-বিবাহ ও বিধিবদ্ধ ধ-র্ষণকে বৈধতা দেয়ার সঙ্গে শিশুদের যৌ’ন হয়রা’নি ও নিপী’ড়ন করার পথ প্রশস্ত করে দেবে।

শেয়ার করুন !
  • 490
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply