ধামরাইয়ে ধ-র্ষণের পর অন্তঃসত্ত্বা শিশুটির দুঃসহ জীবনযাপন

0

সময় এখন ডেস্ক:

অন্য ৮/১০টি মেয়ের মত উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে দেশের ও মানুষের সেবা করার স্বপ্ন ছিল ৪র্থ শ্রেণির ছাত্রী শিশুটির। স্বপ্ন ছিল দরিদ্র মা-বাবার সংসারের হাল ধরার। যে বয়সে স্কুল ব্যাগ নিয়ে স্কুলে যাওয়ার কথা কিন্তু আজ সেই বয়সে শিশুটি মা হতে চলেছে ৪ সন্তানের জনক এক নরপি’শাচের ধ-র্ষণের শি’কার হয়ে।

বন্ধ হয়ে গেছে তার লেখাপড়া। স্কুলে যাওয়াতো দুরের কথা আজ ঘর হতে বের হতে পারছে না লোকল’জ্জার ভ’য়ে। ঘরের কোণে বসে আজ তাকে বহন করতে হচ্ছে ঘৃণাভরা পৃথিবীর অনা’কাঙ্খিত ও অ’নাগত ভবিষ্যত নিয়ে। মেয়েটি এখন ৬ মাসের অন্তঃসত্ত্বা।

মেয়েটি পুষ্টিহীনতায় ভুগছে। নেই তাদের ভাল একটা থাকার ঘর। আছে শুধু একটি ছাপড়া টিনের ঘর। রান্না করার ঘরও নেই তাদের। বাবা যখন যে কাজ পায় ওই কাজই করে দিনমজুর হিসেবে। মা অন্যের বাড়িতে ঝিয়ের কাজ করে। কিন্তু এখন অন্যের বাড়িতে কাজেও যেতে পারেন না মেয়েকে একা বাড়িতে রেখে। কখন কী যে হয়! এমনিতে মেয়েটি শিশু। অপরদিকে অন্তঃসত্ত্বা। ভুগছে পুষ্টিহীনতায়। মেয়েকে ভালো কিছু পথ্য খাওয়াবে তাও পারছে না। ডাক্তার দেখিয়ে চিকিৎসা করার টাকাও নেই।

৪ সদস্যের সংসার চালাতে গিয়ে হিমশিম খেতে হচ্ছে দরিদ্র পিতার। আবার মামলার টাকাও জোগাড় করতে হচ্ছে। অ’সহায় ও নির্যা’তিত পরিবারের প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়াতে এগিয়ে আসেনি কেউ। এগিয়ে আসেনি কোনো সরকারি কিংবা বেসরকারি সংস্থা। তবে আসছে ধামরাই প্রেসক্লাবের কয়েক সাংবাদিক। তারা মেয়ের চিকিৎসার জন্য তার মা-বাবার হাতে ৪ হাজার টাকা তুলে দিয়েছেন বৃহস্পতিবার। মেয়েটিকে চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যেতে বলেছে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা। মেয়েটির বাড়ি থেকে ঢাকার দুরত্ব প্রায় ৭০ কিলোমিটার। অন্তঃসত্ত্বা মেয়েটিকে নিয়ে কীভাবে যাবে ঢাকায়- এ নিয়েও পড়েছে মহাবি’পাকে।

সরেজমিনে গেলে মেয়েটি জানায়, আমার কী রকম যে লাগে তা কইয়ে বুঝাইতে পারুম না। প্যাটে ও বুকে হঠাৎ করে খুব যন্ত্রণা করে। মেয়েটির মা জানান, মাঝেমধ্যে মেয়েটি পা কুঁকড়ে মুকড়ে যায়। পেটে ও বুকে অ’সহ্য য’ন্ত্রণায় ছটফট করে। টাকার অভাবে চিকিৎসা করাতে পারিনা। কেউ সহযোগিতাও করে নাই। মেয়েটির বাবা জানান, মেয়েকে নিয়ে ঢাকা মেডিক্যালে চিকিৎসার জন্য যাইতে কইছে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা (কাওয়ালীপাড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ পরিদর্শক রাসেল মোল্লা)। কিন্তু এই অবস্থায় কীভাবে নিয়া যামু। ট্যাহা পয়সাও নাই। এরপরও দাবি ধ-র্ষকের শা’স্তি হউক।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সামিউল হক বলেন, মেয়েটিকে আইনগত সহায়তা ও সুরক্ষা দেওয়ার ব্যবস্থা করার চেষ্টা করবেন।

মেয়েটি স্থানীয় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৪র্থ শ্রেণির ছাত্রী। তার বাবা দিনমজুর ও মা অন্যের বাড়িতে ঝিয়ের কাজ করেন। প্রতিদিনের ন্যায় তারা মেয়েকে বাড়িতে রেখে কর্মস্থলে চলে যান। শিশুটি পাশের মোকছেদ আলীর বাড়িতে প্রায়ই টেলিভিশন দেখতে যায়। এ সুযোগে মোকছেদ তাকে ভ’য়ভীতি দেখিয়ে ধ-র্ষণ করে তার স্ত্রীর সহযোগিতায়। ধ-র্ষণের কথাটি কাউকে বললে জ’বাই করে হ’ত্যা করা হবে বলে হুম’কি দেন তারা।

মেয়েটির ভ’য়ে কাউকে বলেনি। তবে তার মাসিক ঋতুচক্র বন্ধ হয়ে যায়। বিষয়টি তার মাকে জানায়। সন্দেহ হলে তারা একটি ক্লিনিকে পরীক্ষার মাধ্যমে জানতে পারেন মেয়েটি অন্তঃসত্ত্বা। বিষয়টি এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে কয়েকজনের মাধ্যমে শিশুটির পরিবারের সঙ্গে আপসের চেষ্টা চালান ৪ সন্তানের জনক মোকছেদ আলী।

এর মধ্যে একটি চক্র মেয়েটির বাবাকে ২ দফা আটক করে রাখে। সর্বশেষ তারা উপজেলার আমতা ইউনিয়নের নান্দেশ্বরী গ্রামের বাসচালক চানমিয়ার বাড়িতে মেয়েটির বাবাকে ডেকে নেওয়ার পর আটকে রাখেন। সেখানে তার কাছে সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেন মাতব্বর চক্রের সদস্য চৌহাট ইউনিয়নের মেম্বার ফারুক হোসেন, বালিয়াটি ঈশ্বর চন্দ্র বিদ্যাসাগর উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সদস্য আল আমীন, ধ-র্ষকের ভাই দরবার আলী, আবু বক্কর সিদ্দিকসহ কয়েক সদস্য।

তারা ধ-র্ষিতার পিতাকে ১ লাখ ৮০ হাজার টাকা দেওয়ার কথা বলে জোর’পূর্বক আপসনামায় স্বাক্ষর করান। ওই সময় ৬০ হাজার টাকা ধ-র্ষকের ভাই দরবার আলী মাতব্বর চানমিয়ার হাতে তুলে দেন। সে টাকা আজও পায়নি ধ-র্ষিতার পরিবার। কিন্তু টাকার লোভে ধ-র্ষকের সঙ্গে আপস করেননি ধ-র্ষণের শি’কার মেয়েটির বাবা-মা। তারা ধ-র্ষকের শা’স্তি চান।

সাংবাদিকদের মাধ্যমে ঘটনাটি জানার পর ধামরাই থানা পুলিশের সহযোগিতায় ধ-র্ষণের শি’কার মেয়েটির বাবা থানায় মামলা করেন। মামলায় প্রথমে আটক করা হয় আল আমীনকে। পরে আদালত থেকে জামিনে মুক্ত হন তিনি। এরপর ধ-র্ষক মোকছেদ আলী ও তার স্ত্রীকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তারা বর্তমানে জেলহাজতে রয়েছেন।

এ নিয়ে দৈনিক গত বছর ২৬ অক্টোবর বেশ কিছু পত্র পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হলে সর্বত্র চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়।

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!