ভাইরাস টেস্টে উত্তীর্ণ হলেই বিদেশি ক্যাপ্টেনরা চট্টগ্রামে প্রবেশ করতে পারছেন

0

চট্টগ্রাম ব্যুরো:

চট্টগ্রাম বন্দর জেটিতে আসা জাহাজ থেকে নেমে বিদেশি ক্যাপ্টেন-প্রকৌশলী যারা চট্টগ্রাম শহরে প্রবেশ করছেন তাদের শতভাগ স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হচ্ছে। বন্দর গেটে স্থাপিত ইনফ্রায়েড থার্মোমিটার দিয়ে তাদের পরীক্ষা করা হচ্ছে; পরে করোনা ভাইরাস লক্ষণসমূহ পরীক্ষার পর নিরাপদ মনে হলেই বন্দরের বাইরে যাওয়ার অনুমতি দেয়া হচ্ছে।

একইসাথে চট্টগ্রাম বন্দর জেটিতে লাগোয়া জাহাজগুলোতে করোনা ভাইরাস শনাক্তে পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। কিন্তু বহির্নোঙরে জাহাজগুলোতে থাকা ক্যাপ্টেন-প্রকৌশলীদের এই ধরনের কোন পরীক্ষার আওতায় আনা হয়নি।

চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর দিয়ে আসা জাহাজের নাবিকদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার কাজটি করে থাকে বন্দর স্বাস্থ্য কর্মকর্তা। একইসাথে চট্টগ্রাম বিমানবন্দর দিয়ে আসা যাত্রী-ক্যাপ্টেনদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার কাজটিও করে থাকে সরকারের স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ের অধীন এই বিভাগ।

জানতে চাইলে বন্দর স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ মোতাহার হোসেন বলেন, চট্টগ্রাম বন্দরের ১ নম্বর গেটে ইনফ্রায়েড থার্মোমিটার দিয়ে প্রত্যেক বিদেশি ক্যাপ্টেনদের করোনা ভাইরাস শনাক্ত করার কাজ হচ্ছে। শুক্রবার থেকে আমরা কাজ শুরু করেছি। স্বাস্থ্য পরীক্ষায় শুধু চীন নয়; সবদেশের নাগরিকদের পরীক্ষা করা হচ্ছে।

গত শুক্রবার ১০ জন, শনিবার ৩৬ জন এবং রবিবার ৫৪ জন ক্যাপ্টেন-প্রকৌশলীর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেছি। সেখানে নিশ্চিত হওয়ার পরই শহরে ঢোকার অনুমতি দেয়া হচ্ছে। প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত এই পরীক্ষা করা হচ্ছে।

জেটিতে আসা জাহাজের নাবিকদের স্বাস্থ্য পরীক্ষায় আওতায় আনা হলেও বহির্নোঙরে আসা বিপুল বিদেশি জাহাজে থাকা ক্যাপ্টেন-প্রকৌশলীরা এই আওতার বাইরে থাকছেন। ফলে তাদের মাধ্যমে ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার ঝুঁ’কি থেকেই যাচ্ছে।

বহির্নোঙরে কেন পরীক্ষা করেন না জানতে চাইলে বন্দর স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ মোতাহার হোসেন বলেন, এটি আমাদের আওতার মধ্যে নেই, তাই করছি না। আর সেখানে পৌঁছে পরীক্ষা করার সাপোর্টও দরকার।

এদিকে ঢাকা শাহজালাল আর্ন্তজাতিক বিমানবন্দরে করোনা ভাইরাস শনাক্তে আধুনিক থার্মাল স্ক্যানার বসানো হলেও চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দরে এই ধরনের যন্ত্র নেই। চট্টগ্রাম আর্ন্তজাতিক বিমানবন্দরেও নেই। কিন্তু চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দরে পরীক্ষা করা হচ্ছে ইনফ্রায়েড থার্মোমিটার দিয়ে।

জানতে চাইলে বন্দর স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ মোতাহার হোসেন বলেন, এটি খুব ব্যয়বহুল এবং সবচেয়ে আধুনিক; তবে পরিচালনা করাও সময়সাপেক্ষ ব্যাপার। তাই সাময়িকভাবেই ইনফ্রায়েড থার্মোমিটার দিয়ে কাজ করছি; এটি ১ ফুট দুর থেকে পরীক্ষা করা যায়। ভালোই কাজ হচ্ছে।

এদিকে করোনা ভাইরাস প্রতিরো’ধে জেটিতে পরীক্ষা এবং বহির্নোঙরে পরীক্ষাবিহীন অবস্থার মধ্যে রবিবার প্রথম বৈঠক ডেকেছে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ। করোনা ভাইরাস আত’ঙ্কের পর করণীয় নির্ধারণে এটিই প্রথম বৈঠক। আগামীকাল সোমবার সকালে বন্দর ভবনে অনুষ্ঠিত বৈঠকে উপস্থিত থাকবেন করোনা ভাইরাস প্রতিরো’ধে সরাসরি কর্মরত বন্দর স্বাস্থ্যবিভাগ, ইমিগ্রেশন কর্মকর্তা, বার্থ অপারেটর, শিপ হ্যান্ডেলিং অপারেটর, শিপিং এজেন্ট, বন্দর হারবার ও মেরিন এবং বন্দর হাসপাতালসহ সংশ্লিষ্ট বিভাগ। সেখানে বেশকিছু সিদ্ধান্ত আসতে পারে বলে মনে করছেন বন্দর ব্যবহারকারীরা।

জানতে চাইলে চট্টগ্রাম বন্দর ডেপুটি কনজার্ভেটর ক্যাপ্টেন ফরিদুল আলম বলেন, করোনা ভাইরাসের টিকা নেই; তবে প্রতিরো’ধেই আমরা কাজ করবো। এজন্য স্টেকহোল্ডারদের ডাকা হয়েছে। বৈঠকে বন্দরের প্রস্তুতি অবহিত করা হবে এবং ব্যবহারকারীদের কাছ থেকে প্রতিরো’ধে সুনির্দিষ্ট পরামর্শ চাওয়া হবে। এরপরই আমরা সম্মিলিতভাবে বাস্তবায়ন করতে পারবো।

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!