তদবিরে স্বামীকে ফিরিয়ে আনার কথা বলে কবিরাজ কর্তৃক গৃহবধূকে ধ-র্ষণ

0

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি:

ঝিনাইদহে স্বামী পরিত্য’ক্তা এক নারীকে ধ-র্ষণের অভিযোগে উঠেছে এক কবিরাজের বিরু’দ্ধে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত কুদ্দুস কবিরাজকে (৪৫) আটক করেছে পুলিশ। শনিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) দিবাগত রাত ১টার দিকে ঝিনাইদহের মহেশপুর পৌর এলাকার বগা গ্রাম থেকে তাকে আটক করা হয়।

আটক কুদ্দুস কবিরাজ যশোরের চৌগাছা থানার কোমরপুর গ্রামের মোহাম্মদ আলী বিশ্বাসের ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, কবিরাজি করার কারণে ঝিনাইদহের মহেশপুর পৌর এলাকার বগা গ্রামের আমির হোসেনের বাড়িতে কুদ্দুস কবিরাজের যাতায়াত ছিল। এরই সূত্র ধরে পার্শ্ববর্তী বাড়ির স্বামী পরিত্য’ক্তা এক নারীর সঙ্গে পরিচয় হয় তার।

শনিবার রাতে ছেড়ে যাওয়া স্বামীকে ফিরিয়ে আনার জন্য তদবির করবে, এই কথা বলে ওই নারীকে ধ-র্ষণ করে কুদ্দুস কবিরাজ। এ সময় স্থানীয় জনতা তাকে ধরে পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশ তাকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে মহেশপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোর্শেদ হোসেন খান জানান, এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। ওই নারীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে পাঠানো হবে।

১৩ দিন ধরে মাদ্রাসাছাত্র নিখোঁজ, বলাৎ’কারের পর গু’ম?

নাটোর শহরের কান্দিভিটা হাফেজিয়া মাদ্রাসা থেকে জনি নামে ১৩ বছরের এক শিক্ষার্থী ১৩ দিন ধরে নিখোঁজ রয়েছে। অনেক খোঁজাখুঁজির পরও সন্ধান পাওয়া যায়নি তার।

জনির বাবা নলডাঙ্গা উপজেলার সড়কুতিয়া গ্রামের সাইফুল ইসলাম বলেন, কান্দিভিটা হাফেজিয়া মাদ্রাসার বোর্ডিংয়ে থেকে লেখাপড়া করত জনি। ২৬ জানুয়ারি থেকে হঠাৎ করে তার সন্ধান পাওয়া যাচ্ছে না। মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ তার নিখোঁজের কোনো কারণ জানাতে পারেনি।

এদিকে জনির খোঁজে তার মা অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। আত্মীয়-স্বজনের বাড়িসহ বিভিন্ন জায়গায় সন্ধান করেও জনিকে খুঁজে পায়নি পরিবার। জনিকে উদ্ধারে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সাহায্য চেয়েছেন জনির বাবা।

এদিকে স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা গেছে, তারা ধারণা করছেন বলাৎ’কারের পর হ’ত্যা করে ডেডবডি গু’ম করে ফেলা হয়েছে। কেন এমন মনে হচ্ছে- এ প্রশ্ন করা হলে কয়েকজন জানান, দেশের বিভিন্ন জায়গায় মাদ্রাসা ছাত্রদের সাথে যেসব অ’পকর্মের সংবাদ প্রতিদিন প্রচারিত হচ্ছে পত্র পত্রিকায়, তাতে এই ঘটনার পেছনেও তেমন কিছু ঘটেছে হয়ত।

তবে এসব অভিযোগ অ’স্বীকার করে কান্দিভিটা হাফেজিয়া মাদ্রাসার সুপার মওলানা রুহুল আমিন বলেন, এগুলো মানুষের কল্পনা। তবে জনির নিখোঁজের কোনো সঠিক কারণ খুঁজে পাচ্ছি না আমরা। জনি নিখোঁজের বিষয়টি জানতে পেরে গত ২৮ জানুয়ারি নাটোর থানায় জিডি করা হয়।

নাটোর থানা পুলিশের ওসি কাজী জালাল উদ্দিন বলেন, জনি নিখোঁজের ঘটনায় থানায় জিডি করা হয়েছে। জনিকে উদ্ধারের চেষ্টা করছি আমরা।

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!