রোহিঙ্গাদের জন্মসনদ করে দেয়ায় ইউপি চেয়ারম্যান বরখা’স্ত

0

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি:

সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. আফতাব উদ্দিনকে সাময়িক বরখা’স্ত করেছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়।

রোববার (৯ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় সূত্রে ইউপি চেয়ারম্যান আফতাবকে সাময়িক বরখা’স্তের কথা জানা যায়।

স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-সচিব মোহাম্মদ ইফতেখার আহমেদ চৌধুরী স্বাক্ষরিত পত্রে এ আদেশ দেয়া হয়। জন্মসনদ আইন অ’মান্য করে রোহিঙ্গাদের জন্মসনদ দেয়ার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তাকে সাময়িক বরখা’স্ত করা হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ২০১৭ সালের ১৭ জুলাই হয়বাদাঘাট ইউনিয়ন পরিষদ থেকে ৬ রোহিঙ্গাকে জন্মসনদ দেয়া হয়। ওই বছরের ১৪ সেপ্টেম্বর ৫টি জন্মসনদসহ রোহিঙ্গাদের আটক করে পুলিশ। এ সময় পুলিশের হাতে ধরা পড়া রোহিঙ্গাদের পুনরায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ফেরত পাঠানো হয়।

সুনামগঞ্জ স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ এমরান হোসেন বলেন, বাদাঘাট ইউপি চেয়ারম্যান মো. আফতাব উদ্দিনকে সাময়িক বরখা’স্ত করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়।

বেতন বাড়লেও সন্তুষ্ট করা যায়নি প্রাথমিক শিক্ষক নেতাদের!

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের গ্রেড উন্নীত করে বেতন বৃদ্ধি করা হয়েছে। তবে নতুন বেতন গ্রেডে সন্তুষ্ট নন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ‘প্রাথমিক শিক্ষক ঐক্য পরিষদের’ নেতারা। দ্রুত এ সিদ্ধান্তের প্র’তিবাদ জানাতে ও পরবর্তী করণীয় নির্ধারণ করতে সভা ডাকা হবে বলে জানিয়েছেন সংগঠনের নেতারা।

রোববার এ সংক্রান্ত নির্দেশনা প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ে থেকে প্রকাশের পর প্রাথমিক শিক্ষক ঐক্য পরিষদের সদস্য সচিব মো. শাসছুদ্দিন মাসুদ বলেন, প্রধান শিক্ষকদের ১০ম ও সহকারী শিক্ষকদের ১১তম গ্রেড উন্নীত করতে আমরা দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করে আসছি। বর্তমানে শিক্ষকদের দাবি-দাওয়ার আন্দোলন বন্ধ করতে অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে এটি জোর করে চাপিয়ে দেয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, আমাদের দাবি যৌক্তিক বলে তা প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে অর্থ মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব করে। অথচ অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে তা না’কচ করে শুধু সহকারী শিক্ষকদের ১৩তম গ্রেডে উন্নীত করা হয়েছে। শিক্ষকরা এটি মেনে নেবেন না, এর প্র’তিবাদ জানাবে। আমাদের দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন অ’ব্যাহত থাকবে। তবে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ও প্রশিক্ষণবিহীন শিক্ষকদের গ্রেড পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত তুলে দেয়াকে তিনি সাধুবাদ জানিয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, আমাদের দাবি বাস্তবায়নে পরবর্তী করণীয় নির্ধারণ করা হবে। এ জন্য শিগগিরই কেন্দ্রীয় কমিটির সভা ডেকে নতুন এ সিদ্ধান্তের প্র’তিবাদ জানানো হবে। পাশাপাশি দাবি আদায়ে পরবর্তী করণীয় নির্ধারণ করা হবে বলেও জানান তিনি।

উল্লেখ্য, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের ১৩তম গ্রেডে উন্নীত করা হয়েছে। রোববার প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মনোয়ারা ইশরাত স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে।

গত বছরের ৭ নভেম্বর অর্থ বিভাগের সম্মতিক্রমে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মাঠ পর্যায়ের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের বেতনস্কেল ১৪ থেকে ১৩তম গ্রেড উন্নীত করা হয়েছে। এ নির্দেশনার ফলে এখন থেকে সহকারী শিক্ষকরা যোগদানের পর ১৩তম গ্রেডে ১১ হাজার টাকা বেসিকসহ সকল সুবিধা পাবেন।

শেয়ার করুন !
  • 195
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply