মালয়েশিয়া যাওয়ার আগে আমির হামজাকে যা বলেছিলেন আজহারী (ভিডিও)

0

সময় এখন ডেস্ক:

ধর্মীয় বক্তা মিজানুর রহমান আজহারী মালয়েশিয়া চলে গেছেন। সারাদেশে ওয়াজ মাহফিলের শিডিউল স্থ’গিত করে তিনি চলে গেছেন।

মালয়েশিয়ায় যাওয়ার আগে আরেক আলোচিত ধর্মীয় বক্তা আমির হামজার সঙ্গে কথা হয়েছে আজহারীর। সম্প্রতি একটি তাফসিরুল কোরআন মাহফিলে আজহারীর কাছে দোয়া চান আমির হামজা।

মাহফিলে আজহারী বক্তব্য শুরু করার আগে আমির হামজা তাকে বলেন, দোয়া করবেন, আর দেখা হবে না হয়তো। তবে আমার নম্বরটা রাখবেন। আমি যোগাযোগ রাখার চেষ্টা করব।

মিজানুর রহমান আজহারী এতে সম্মতি সূচক জবাব দেন। তিনি আমির হামজার সঙ্গে যোগাযোগ থাকবে বলে তাকে জানান। আজহারীও তার কাছে দোয়া চান।

এই দুই বক্তার কথোপকথনের একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে যোগাযোগমাধ্যমে। তাফসিরুল কোরআন মাহফিলটি কোথায় হয়েছে সে সম্পর্কে তথ্য পাওয়া যায়নি। তবে ভিডিও তাদের মধ্যকার কথোপকথন স্পষ্ট।

মালয়েশিয়ায় আজহারীর বিলাসী জীবন, ঘুরছেন সাড়ে ৬ কোটির গাড়িতে!‌

বিশ্বের বিলাসী গাড়িগুলোর একটি হলো বেন্টলি। এই ব্র্যান্ডের মুলসানি ভি-৮ সিরিজের একেকটি গাড়ির মূল্য মালয়েশিয়াতে ট্যাক্স এবং অন্যান্য খরচ ছাড়াই ৩ মিলিয়ন রিঙ্গিত। ইউএস ডলারে যা ৭ লক্ষ ২৫ হাজার ৬৯০ এবং বাংলাদেশি টাকায় ৬ কোটি ২০ লক্ষ টাকার মত। উন্নত রাষ্ট্রের অতি ক্ষমতাবান ব্যক্তি বা বড় বড় শিল্পপতিরা বিলাসিতার জন্য এসব গাড়ি ব্যবহার করেন।

তেমনই একটি গাড়িসহ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় সেক্রেটারি জেনারেল মিয়া গোলাম পরওয়ারের আপন বোনের মেয়ের জামাই মিজানুর রহমান আজহারীর ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। মালয়েশিয়া প্রবাসীরাও মন্তব্য করে জানাচ্ছেন আজহারীর বিলাসী জীবন দেখে তারা রীতিমত হতবাক।

আজহারী বাংলাদেশে থাকেন না। তিনি বছরের প্রায় পুরোটা সময় থাকেন মালয়েশিয়ায়। উপার্জিত অর্থ তিনি দেশের কোনো ব্যাংকেও রাখেন না। বিশেষ প্রক্রিয়ায় তা চলে যায় মালয়েশিয়ায়। এ বছর তাকে নিয়ে বিত’র্ক সৃষ্টি হওয়ায় এবং অনেক জায়গায় প্রশাসন তার মাহফিলের অনুমতি না দেয়ায় একটু আগেভাগেই ফিরে যাচ্ছেন গন্তব্যে। তার মাহফিল বন্ধে সরকারি দপ্তরগুলো প্রজ্ঞাপনও জারি করেছে।

জানা গেছে, আজহারী সাম্প্রতিক মাহফিলগুলো থেকে উপার্জিত বিপুল অর্থ নিয়ে মালয়েশিয়া চলে যাচ্ছেন। আজহারী তার প্রতিটি মাহফিলে ন্যূনতম ৩ লক্ষ থেকে সর্বোচ্চ ৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত চার্জ করেন। এই অর্থ তাকে বুকিংয়ের সময় পুরোটা বুঝিয়ে দিতে হয়। অনেক জায়গায় তাকে হেলিকপ্টারে করে নিয়ে যেতে হয়। মাহফিল শেষে গন্তব্যে একইভাবে পৌঁছে দিতে হয়। অনেক সময় মাহফিল সমাপ্তির পর অনুরাগীরা তাকে নগদ টাকা উপহার দেন। সেসবের পরিমাণ হিসেবের বাইরে। শীতকালীন এ সময়ে তিনি শতাধিক মাহফিল করেন। সে হিসেবে তার এ সময় আয় ৩ থেকে ৫ কোটি টাকা। যার থেকে এক পয়সাও তিনি আয়কর দেন না।


ছবি: আজহারীর মাহফিল স্থ’গিত করে জারিকৃত প্রজ্ঞাপন

আজহারী তার ফেসবুকে জানিয়েছেন, পারিপার্শ্বিক কিছু কারণে, এখানেই এ বছরের তাফসির প্রোগ্রামের ইতি টানতে হচ্ছে। তাই মার্চ পর্যন্ত আমার বাকি প্রোগ্রামগুলো স্থ’গিত করা হলো।

আজহারী অনুরোধ করে বলেন, প্লিজ আমাকে নিয়ে অতিরিক্ত মাতামাতি করবেন না। আমাকে জড়িয়ে কোনো ব্যাপারে কাউকে গা’লাগালি করবেন না, অন্য কোন মতাদর্শের আলেমদের হেয় বা ছোট করে কিছু বলতে যাবেন না।

আজহারী বলেন, প্রোগ্রামগুলো বাস্তবায়নে যারা সার্বিক সহযোগিতা করেছেন, তাদের সবার জন্য রইল আন্তরিক ভালোবাসা ও দোয়া। বিশেষ করে পুলিশ, প্রশাসন এবং স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় প্রোগ্রামগুলো সুন্দরভাবে বাস্তবায়িত হয়েছে। আল্লাহ তাদের উত্তম প্রতিদান দান করুক।

শেয়ার করুন !
  • 15
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply