আর ‘হারাম’ নয়, ঘোষণা দিয়েই ভ্যালেন্টাইন’স ডে পালন করছে সৌদি আরব

0

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

বাতাসে ভালোবাসার সুবাস, চারদিকে ফুল ও হৃদয় আকৃতির উপহারের সমাহার। অথচ সৌদি আরবের ধর্মীয় পুলিশ নি’র্বিকার। ৩ বছর আগেও যে ভ্যালেন্টাইন’স ডে পালন ‘হারাম’ ছিল এবার তা পালনে এমনই প্রস্তুতি নিয়েছে সৌদি আরব।

২০১৮ সালের আগে ফুল বিক্রেতা ও দোকানদাররা লাল গোলাপ ও হৃদয় আকৃতির চকলেট লুকিয়ে বিক্রি করত। কমিশন ফর দ্য প্রমোশন ভার্চু ও প্রিভেনশন অব ভাইস (সিপিভিপিভি)-এর ভয়ে তারা এটি করত। এমনকি গ্রেপ্তার বা জরি’মানার আতঙ্কে রেস্তোরাঁ মালিকরা ১৪ ফেব্রুয়ারি জন্মদিন বা কোনও বার্ষিকী আয়োজন করতে দিতেন না।

কিন্তু এখন আর সেই পরিস্থিতি নাই। ২০১৮ সালে মক্কার সাবেক সিপিভিপিভি সভাপতি শেখ আহমেদ কাসিম আল-ঘামদি ঘোষণা করেন, ভ্যালেন্টাইন’স ডে ইসলামের শিক্ষা বা শরিয়তবিরো’ধী না।

নিষে’ধাজ্ঞা প্র’ত্যাহারে হয়ে যাওয়াতে সৌদিরা তাদের ভালোবাসা প্রকাশ করতে বিভিন্ন উপহার, ফুল ও বেলুন, এমনকি কেউ কেউ টেডি বিয়ার পুতুল কিনে দিচ্ছেন প্রিয় মানুষকে। চারদিক রঙিন হয়ে উঠেছে উৎসবের রঙে। চলছে প্রিয়জনের সাথে সেলফি তুলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপলোড। সৌদি আরব এমন উৎসবমুখর ছিল না এর আগে যেন কখনো।

সৌদি আরবের ইংরেজি দৈনিক পত্রিকার আরব নিউজ ভ্যালেন্টাইন’স ডে পালনের একটি বিশেষ নির্দেশিকাও প্রকাশ করেছে। পত্রিকাটি সব শ্রেণির মানুষের জন্য উপহার ও খাবারের নির্দেশিকাও দিয়েছে তাতে।

বসন্ত ও ভালোবাসা মিলেমিশে উৎসবমুখর ঢাকা

ভালোবাসা নিয়ে প্রকৃতিতে আগমন ঘটছে ঋতুরাজ বসন্তের। বসন্ত ও ভালোবাসা দিবসকে বরণ করে নিয়েছে ঢাকাবাসী। বসন্ত ও ভালোবাসা দিবসকে বরণ করতে প্রকৃতির সাথে পাল্লা দিয়ে বিভিন্ন আয়োজন রাজধানী জুড়ে। সবমিলিয়ে বসন্ত ও ভালোবাসা মিলেমিশে উৎসবমুখর ঢাকা।

বরাবরের মতই বসন্ত উপলক্ষে নগরবাসীর প্রধান আকর্ষণ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় চারুকলার বটতলা ও ধানমন্ডির রবীন্দ্র সরোবর। এছাড়াও বুলবুল ললিতকলা একাডেমি (বাফা), ছায়ানট বসন্ত ও ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে নগরবাসীকে উৎসবের আমেজ দিতে আয়োজন করা হয়েছে নানামুখী আয়োজনের।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলায় জাতীয় বসন্ত উৎসব উদযাপন পরিষদের আয়োজনে সকাল ৭টায় ক্লাসিকাল দিয়ে উৎসব শুরু হয়ে চলেছে ১১টা পর্যন্ত। বিকাল ৩.৩০ টায় শুরু হয়েছে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, চলবে রাত ৮টা পর্যন্ত।

বরাবরের মতই পহেলা ফাল্গুনে পাশে আছে ‘সমগীত বসন্ত উৎসব’। ‘গানে-প্রাণে উঠুক জেগে পাহাড় নদী বন’ এই স্লোগান সামনে রেখে বসন্ত-উৎসবের ১৪তম আয়োজন করে তারা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলাভবনের বটতলায় উৎসব উদ্বোধন করেন অধ্যাপক আবুল কাশেম ফজলুল হক।

সকাল ৮.৩০ থেকে শুরু হয়েছে অনুষ্ঠান। ছিল প্রকৃতি মঙ্গলযাত্রা, তবলার লহরা, নাচ, আবৃত্তি, সঙ্গীত পরিবেশন। গান গাইবে ঢাকা সমগীত, সায়েম রানা, আরমিন মুসার কয়ার গ্রুপ ঘাসফড়িং, সমগীত, সহজিয়া, সর্বনাম – লীলা, বাংলা ফাইভ, কফিল আহমেদ ও বন্ধু শিল্পীরা, গানের দল ও কৃষ্ণকলি।

এদিকে শোবিজ এন্টারটেইনমেন্টের আয়োজনে রবীন্দ্র সরোবরে থাকছে ৩ দিন ব্যাপী আয়োজন। ১৩-১৫ ফেব্রুয়ারি শীতকালীন ও বসন্তের বাহারি পিঠা পুলি উৎসব। ভালোবাসা দিবসে রবীন্দ্র সরোবরের মুক্তমঞ্চে আছেন থাকবে তাহসান ও টিনা, তপু ও আলিফ, প্রত্যয় খান ও নদী এবং সবশেষে থাকবে ব্যান্ড দল অ্যাশেজ। ১৫ ফেব্রুয়ারি ভ্যালেনটাইনজ রক ফেস্টিভ্যাল এ গান পরিবেশন করবেন ব্যান্ড দল- ব্ল্যাক, দূরবীন, বে অফ বেঙ্গল, ছারপোকা, ডাকনাম, মেট্রিক্যাল এবং গন্তব্যহীন।

এছাড়াও সরোবরে উৎসব প্রাঙ্গনে আছে ঐতিহ্যবাহী ও সুস্বাদু নানা রকম শীতকালীন ও বসন্তের বাহারী খাবার ও পিঠা পুলির আয়োজন। সেই সাথে মেহেদী উৎসব, ফটো বুথও রয়েছে। এছাড়াও থাকছে মিলন-মেলা, বিভিন্ন খেলাধুলা, বসন্তের সাজে সাজো, ভ্যালেনন্টাইনের সেরা জুটি, সেলিব্রেটি আড্ডা, রেড কার্পেট, এসএমএস কন্টেস্ট, সেলফি-জোন, মজার-টক-শো ও বহুরূপি সাংস্কৃতিক ও মনোজ্ঞ অনুষ্ঠানের সমাহার।

ছায়ানটে সন্ধ্যা ৬.৩০ এ ছায়ানটের শিল্পীদের অংশগ্রহণে থাকছে ‘ছায়ানটের বসন্তবরণ অনুষ্ঠান’। ছায়ানটের হলরুমে উৎসব উপলক্ষে থাকবে সঙ্গীত পরিবেশন, দলীয় ও একক নৃত্য।

বসন্তকে বরণ করতে নানা আয়োজন করেছে ঐতিহ্যবাহী জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়। ১৩ ফেব্রুয়ারি (বৃহস্পতিবার) বিশ্ববিদ্যালয় চারুকলা বিভাগ আয়োজন করে বসন্ত উৎসবের। এছাড়া আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি (রোববার) বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগ ভাষা শহীদ রফিক ভবন প্রাঙ্গনে দিনব্যাপী ‘বসন্তোৎসব’ পালন করবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের অডিটোরিয়ামে বসন্ত বরণ করবে ব্যাবস্থাপনা বিভাগ।

পুরান ঢাকার ওয়াইজ ঘাটে অবস্থিত বুলবুল ললিতকলা একাডেমিতে (বাফা) আদি ঢাকা সাংস্কৃতিক জোট ও বাফার আয়োজনে চলছে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। পুরান ঢাকার বিভিন্ন সংগঠনের অংশগ্রহণে বিকাল ৩টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত চলবে বসন্তবরণ উৎসব।

শেয়ার করুন !
  • 186
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply