লজ্জায় ৪র্থ শ্রেণির ছাত্রীর ধ-র্ষক বৃদ্ধের গলায় ফাঁ’স!

0

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি:

টাঙ্গাইলের ঘাটাইলে ৪র্থ শ্রেণির ছাত্রীকে ধ-র্ষণের ঘটনায় অভিযুক্ত রহিজ উদ্দিন অপুর (৬০) ঝুলন্ত লা’শ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

রোববার সকালে উপজেলার রসুলপুর ইউনিয়নের শালিয়াবহ নয়াপাড়া গ্রামের তার বাড়ির পাশে গাছের ডালের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় লা’শটি উদ্ধার করা হয়।

লাশ ময়নাতদন্তের জন্য টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

রহিজ উদ্দিন অপু ওই গ্রামের মৃ’ত হোসেন আলীর ছেলে।

গত ৯ ফেব্রুয়ারি দুপুরে উপজেলার শালিয়াবহ নয়াপাড়া এলাকায় বাড়ির পাশে ৪র্থ শ্রেণির এক ছাত্রী পাতা কুড়াতে গেলে তাকে ধ-র্ষণ করে রহিজ উদ্দিন অপু। পরের দিন সোমবার তাকে আসামি করে ঘাটাইল থানায় মামলা দায়ের করেন ভিক্টিমের বাবা। বিকালে ওই ছাত্রী টাঙ্গাইল আদালতে ২২ ধারায় স্টেটমেন্ট দেয়।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ঘাটাইল থানার এসআই মতিউর রহমান জানান, লোকলজ্জার ভ’য়ে রহিজ উদ্দিন অপু আত্মহ’ত্যা করতে পারেন।

ভারতে ৬৮ ছাত্রীর আন্ডারওয়্যার খুলিয়ে পরীক্ষা!‍

ঋতুচক্র চলছে কি না, তা যাচাই করতে ভারতের গুজরাট রাজ্যের একটি কলেজের ৬৮ জন ছাত্রীর আন্ডারওয়্যার খুলিয়ে পরীক্ষা করার অভিযোগ উঠছে।

লজ্জাজনক এ অভিযোগ খতিয়ে দেখতে একটি তদন্তকারী দল গঠন করেছে দেশটির জাতীয় মহিলা কমিশন। তারা কলেজ কর্তৃপক্ষ এবং ছাত্রীদের সঙ্গে কথা বলবেন বলে জানিয়েছেন।

গুজরাটের ভুজে শ্রী সহজানন্দ গার্লস ইনস্টিটিউট (এসএসজিআই) নামে ওই মহিলা কলেজটি পরিচালনা করেন স্বামীনারায়ণ মন্দিরের অনুগামীরা। এখানে স্নাতক স্তরে প্রায় ১ হাজার ৫০০ ছাত্রী পড়াশোনা করেন। তাদের মধ্যে প্রত্যন্ত এলাকা থেকে আসা ৬৮ জন ছাত্রী থাকেন হোস্টেলে। আন্ডারওয়্যার খুলিয়ে হে’নস্তার অভিযোগ তুলেছেন এই ৬৮ ছাত্রী।

ছাত্রীরা জানান, হোস্টেলে তাদের অনেক নিয়ম মানতে হয়। যেমন ঋতুকালীন অবস্থায় রান্নাঘর বা মন্দিরের কাছাকাছি না যাওয়া, অন্য সহপাঠীদের না ছোঁয়া ইত্যাদি। ছাত্রীরা সেই সমস্ত নিয়ম মানছেন না বলে বুধবার তাদের ভ’র্ৎসনা করেন হোস্টেলের ওয়ার্ডেন অঞ্জলিবেন। তিনি ছাত্রীদের বিরু’দ্ধে কলেজের অধ্যক্ষ রীতা রানিনগার কাছে নালিশও জানান।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ছাত্রীর অভিযোগ, বৃহস্পতিবার ক্লাস চলাকালীন তাদের সবাইকে বাইরে বেরিয়ে আসতে বলেন অধ্যক্ষ। নিয়মভ’ঙ্গের অভিযোগে প্রথমে তাদের ধমক দেয়া হয়। পরে যাদের ঋতুচক্র চলছে তাদের আলাদা করে দাঁড়ানোর নির্দেশও দেন অধ্যক্ষ। ২ ছাত্রী তাতে সরে দাঁড়ান। বাকিরা সত্যি বলছেন কি না, তা যাচাই করতে সবাইকে হোস্টেলের বাথরুমে নিয়ে যাওয়া হয়।

অভিযোগ, সেখানে প্রত্যেকের আন্ডারওয়্যার খুলে পরীক্ষা করেন কলেজের শিক্ষিকারা। হোস্টেলের ছাত্রীদের আরও অভিযোগ, ঋতুচক্র চলাকালীন তাদের প্রায়ই হে’নস্থার শি’কার হতে হয়। নানাভাবে তাদের মনে করানো হয়, বিষয়টি ঘৃ’ণ্য এবং অ’পবিত্র।

তবে এ বিষয়ে এখনও কোনো লিখিত অভিযোগ জমা পড়েনি বলে জানিয়েছে গুজরাট পুলিশ।

ক্ষু’ব্ধ অভিভাবক ও ছাত্রীরা জানান, বিষয়টি কলেজের পরিচালন সমিতির সদস্য প্রবীণ পিন্ডোরিয়াকে জানালে তিনি ঘটনাটি চেপে যাওয়ার জন্য চাপ দেন। এমনকি পুলিশের কাছে গেলে ছাত্রীদের হোস্টেল ছাড়তে হবে বলে হুম’কি দেন। কলেজে এসব কিছুই ঘটেনি- এমন বয়ান লেখা একটি চিঠিতে সই করতে বলা হয় ছাত্রীদের।

এ বিষয়ে অবশ্য পিন্ডোরিয়া কোনও মন্তব্য করতে রাজি হননি। চুপ করে আছেন কলেজের অধ্যক্ষ রীতাদেবীও।

কলেজের পরিচালন সমিতির আর এক সদস্য পি এইচ হিরানি অবশ্য ঘটনাটির কথা স্বীকার করে বলেন, নামমাত্র বেতনের বিনিময়ে এখানে পড়ার সুযোগ পান মেয়েরা। প্রতিষ্ঠান চত্বরে মন্দির থাকায় মেয়েদের কিছু ধর্মীয় রীতিনীতি মেনে চলতে বলা হয়। তবে ছাত্রীদের সঙ্গে যা ঘটেছে তা ঠিক নয়। উপযুক্ত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এই ঘটনায় একটি তদন্ত কমিটি গড়ার নির্দেশ দিয়েছেন সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য দর্শনা ঢোলকিয়া। তিনি বলেছেন, যে বা যারা এই ঘটনার জন্য দায়ী, তাদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শেয়ার করুন !
  • 11
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!