সৌম্যের বিয়ের আসরে এবং মিরাজের ফ্ল্যাটে চুরি, মামলা

0

সময় এখন ডেস্ক:

সানাইয়ের সুর, ঢাক-ঢোলের বোল, এক উৎসবমুখর পরিবেশ। আলোকসজ্জা আর হৈ চৈ। এমন জমকালো আয়োজনের মধ্য দিয়ে খুলনা ক্লাবে গাঁটছড়া বাঁধছিলেন বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের অলরাউন্ডার সৌম্য সরকার। দুটি পরিবারের মিলনমেলার ভিড়ে মোবাইল চুরিকে কেন্দ্র করে শুরু হয় হট্টগোল।

সৌম্যের বাবা কিশোরী মোহন সরকার, বরযাত্রী শিল্পপতি দ্বীনবন্ধু মিত্র ও সৌম্যের বন্ধু অলিসহ তার স্বজনদের ৭টি মোবাইল চুরি হয়। এ সময় সৌম্যের মেঝ ভাই ইনকাম ট্যাক্সের ডেপুটি কমিশনার প্রণব কুমার সরকার খুলনা ক্লাবের কর্মচারীদের মোবাইল চুরির বিষয়ে অবহিত করেন এবং চোরদের ধরতে যান।

এ পর্যায়ে চোরের পক্ষ হয়ে ক্লাবের কয়েকজন কর্মচারী তাদের সঙ্গে খারাপ আচরণ করেন, তাদের ওপর দফায় দফায় হাম’লা চালান। প্রায় আধাঘণ্টা থমকে যায় পুরো বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা। তখন সাতপাকে ঘুরছিলেন বর। যে কারণে তিনি উঠে আসতে পারেননি।

সৌম্য সরকারের মামা স্বদেশ কুমার সরকার বলেন, প্রচণ্ড ভিড়ে গেট থেকে ঢোকার সময় দ্বীনবন্ধু মিত্রের মোবাইল চুরি হয়ে যায়। এরপর সৌম্যের বাবা ও বন্ধু অলিরটাসহ ৭টি মোবাইল চুরি হয়। চোরদের হাতেনাতে ধরে ফেললে খুলনা ক্লাবের কর্মচারীরা আমাদের ওপর হাম’লা চালায়। এ ঘটনাটি খুলনা ক্লাব কর্তৃপক্ষ ও পুলিশ প্রথমেই আমলে নিলে সৌম্যের স্বজনদের মা’র খেতে হতো না।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন, মোবাইল চুরি হওয়ার পর হারানো মোবাইল নম্বরে ফোন দেন সৌম্যের স্বজনরা। তখন একজনের কাছে মোবাইল বেজে ওঠে। তাকে ধরলে তার কাছে ৫টি মোবাইল পাওয়া যায়। এ নিয়ে গণ্ডগোলোর সূত্রপাত হয়।

আ’ক্ষেপ করে সৌম্যের এক স্বজন বলেন, তারকা ক্রিকেটারের বিয়েতে এ ধরনের ঘটনায় আমরা লজ্জিত, অপ’মানিত। সৌম্যের শ্বশুরবাড়ির লোকজনের সামনে এসে ভূমিকা নেয়া উচিত ছিল। যেহেতু সৌম্যের স্বজনরা তাদের মেহমান। মেহমানের সন্মান রক্ষার্থে তাদের এগিয়ে আসার কথা, কিন্তু তাদের তেমন প্র’তিক্রিয়া দেখা যায়নি।

এদিকে ঘটনার পর খুলনা ক্লাবে বিপুল সংখক আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যকে অবস্থান নিতে দেখা গেছে। পরে পুলিশ ও ক্লাব কর্তৃপক্ষের ঊর্ধ্বতন লোকজন সৌম্যের অভিভাবকদের সাথে দীর্ঘক্ষণ বৈঠক করেন।

ঘটনার ব্যাপারে জানতে চাইলে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসলাম বাহার বুলবুল বলেন, মোবাইল চুরিকে কেন্দ্র করে খুলনা ক্লাবের স্টাফ ও বরযাত্রীর লোকদের সঙ্গে ঝ’গড়া হয়েছে। সেখানে কাউকে মা’রধরের ঘটনা ঘটেনি, তবে ভিড়ের মধ্যে কারও গায়ে একটু ধাক্কা লাগতে পারে। ২ চোর থানায় আটক আছে। তাদের কাছ থেকে ৫টি মোবাইল উদ্ধার করা হয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসা’বাদ করা হবে।

উল্লেখ্য, খুলনার মেয়ে প্রিয়ন্তি দেবনাথ পূজার সঙ্গে খুলনা ক্লাবেই সাতপাকে বাঁধা পড়লেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের ক্রিকেটার সৌম্য সরকার।

বুধবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) রাতে জীবনের নতুন ইনিংস শুরু করলেন এই তারকা ক্রিকেটার। জমকালো আয়োজনের মধ্যে দিয়ে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সেরে ফেলেন তিনি। ৫০০ বরযাত্রী নিয়ে বিয়ে করতে আসেন সৌম্য।

প্রিয়ন্তি দেবনাথের বাবা গোপাল দেবনাথ ব্যবসায়ী এবং মা মাধবী দেবনাথ গৃহিণী। তাদের বাড়ি খুলনা শহরের টুটপাড়া এলাকায়। পূজা বর্তমানে ও লেভেল হায়ার সেকেন্ডারিতে (এইচএসসি) পড়ছেন ঢাকার একটি কলেজে। ৩ বোনের মধ্যে তিনি সবার ছোট।

মিরাজের বাসা থেকে স্বর্ণালঙ্কার ও ডলার চুরি

বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের অলরাউন্ডার মেহেদী হাসান মিরাজের বাসায় চুরি হয়েছে। তার মিরপুরের ফ্ল্যাট থেকে ২৭ ভরি স্বর্ণালঙ্কার এবং ৬ হাজার ডলার চুরি করে নিয়ে যায় দু’র্বৃত্তরা।

এ বিষয়ে বুধবার সন্ধ্যায় রাজধানীর কাফরুল থানায় মামলা করেছেন তিনি। কাফরুল থানার ওসি সেলিমুজ্জামান বলেন, ঘটনাটি কীভাবে কারা ঘটিয়েছে তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

জানা গেছে, মিরাজের মায়ের ৭ ভরি আর স্ত্রীর ২০ ভরি স্বর্ণালঙ্কার চুরি হয়েছে। যার বর্তমান বাজারমূল্য প্রায় সাড়ে ১৬ লাখ টাকা। সোনার সঙ্গে চুরি হয়েছে ৬ হাজার মার্কিন ডলার, বাংলাদেশি মুদ্রায় যেটি ৫ লাখ ১০ হাজার টাকা।

মিরপুরে বিজয় রাকিন সিটির একটি ফ্ল্যাটে থাকেন মিরাজ। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে মিরপুর টেস্ট চলায় দলের অন্য খেলোয়াড়দের মতো তাকেও থাকতে হয়েছে টিম হোটেলে। হোটেলে মিরাজের সঙ্গে ছিলেন স্ত্রীও। গত ৫ দিন তার ফ্ল্যাট ছিল ফাঁকা। বুধবার দু’জন ফিরে দেখেন বাসায় চুরি হয়েছে।

পুলিশ সূত্র জানায়, গত ২০ ফেব্রুয়ারি খেলার জন্য বাসা থেকে হোটেলে যান মিরাজ। খেলা শেষে বুধবার বাসায় ফিরে দেখেন ঘরের তালা ভাঙা। ভেতরে সব তছনছ।

এ বিষয়ে মিরাজ সাংবাদিকদের বলেন, ঘটনাটি কীভাবে ঘটল বুঝতে পারছি না। আমি টিম হোটেল থেকে বাসায় ঢুকে দেখি সবকিছু তছনছ। এ নিয়ে মামলা করা হয়েছে।

শেয়ার করুন !
  • 637
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!