পাপিয়া ইস্যুতে জিজ্ঞাসা’বাদ করা হবে ৩ নেত্রীকে

0

সময় এখন ডেস্ক:

আওয়ামী যুব মহিলা লীগের সদ্য বহি’ষ্কৃত নেত্রী শামীমা নূর পাপিয়া এখন গোয়েন্দা হেফাজতে রয়েছেন। তাকে জিজ্ঞাসা’বাদ করা হচ্ছে। জিজ্ঞাসা’বাদে পাপিয়ার দেওয়া তথ্যগুলো নিয়ে আইনপ্রয়োগকারী সংস্থা ৩ জন নারী নেত্রীকে জিজ্ঞাসা’বাদ করবে বলে জানা গেছে। যে কোনো মুহুর্তে তাদের জিজ্ঞাসা’বাদ করা হতে পারে।

আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার একজন উর্ধ্বতন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন, পাপিয়া জিজ্ঞাসা’বাদে অনেক চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছেন। এই তথ্যগুলো যাচাই বাছাই করে দেখা হচ্ছে। তথ্যগুলোর সত্যাসত্য যাচাই করার জন্য যুব মহিলা লীগের ৩ জন নেত্রীকে জিজ্ঞাসা’বাদ করা হবে। যে ৩ জন নেতাকে জিজ্ঞাসা’বাদ করা হবে তারা হলেন- যুব মহিলা লীগের সভাপতি নাজমা আক্তার, সাধারণ সম্পাদক অপু উকিল এবং ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি সাবিনা আক্তার তুহিন।

আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার সূত্রে জানা গেছে, যে সমস্ত তথ্য তাদের হাতে এসেছে তাতে দেখা গেছে যে, সাবিনা আক্তার তুহিনের পৃষ্ঠপোষকতায় পাপিয়া বে’পরোয়া হয়ে উঠেছিল। তবে অনেকেই মনে করেন যে, কেন্দ্রীয় সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদকের আশ্রয়-প্রশ্রয় না পেলে শুধুমাত্র তুহিনের পৃষ্ঠপোষকতায় এরকম দু’র্বৃত্তায়ন সম্ভব নয়।

আইনপ্রয়োগকারী সংস্থা বলছে যে, ৩ নেত্রীকেই এ ব্যাপারে জিজ্ঞাসা’বাদ করা হবে। পাপিয়া যে তথ্যগুলো দিয়েছেন সেগুলো যাচাই করা হবে।

পাহাড় থেকে মেয়ে আনতেন পাপিয়া, হাতে ছিল ১৭শ তরুণী!

পাপিয়া থেকে পাওয়া যাচ্ছে একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। টাকা আর নারীর লোভ দেখিয়ে স্বার্থ হাসিল করতেন তিনি। নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র জানিয়েছে, ডিবিতে জিজ্ঞাসা’বাদে পাপিয়া ও তার স্বামী সুমন চৌধুরী তাদের দু’র্বৃত্তায়নের অনেক গোপন তথ্য জানাতে বাধ্য হয়েছেন। পাশাপাশি তাদের দুই সহযোগী সাব্বির ও তায়্যিবাকেও রিমাণ্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসা’বাদ করা হচ্ছে।

পাপিয়া ও সুমন চৌধুরীর অপরাধ জগত সম্পর্কে তায়্যিবা ডিবিকে জানিয়েছেন, অনেক সময় চাহিদামতো থাইল্যান্ড, নেপাল, ভারত, ভুটান ও রাশিয়া থেকে মেয়েদের নিয়ে আসা হতো। পার্বত্য অঞ্চল থেকেও পাহাড়ি মেয়েদের নিয়ে আসতেন পাপিয়া। কারণ আদিবাসী অল্প বয়সী পাহাড়ি মেয়েদের প্রতি পুরুষদের একটা বাড়তি আকর্ষণ থাকে।

তাছাড়া বিদেশ থেকে মেয়ে আনতে খরচের পাশাপাশি ঝামেলাও অনেক বেশি। ভিসাসহ অন্যান্য প্রক্রিয়াগত সমস্যাও আছে। এসব কারনে দেশের পার্বত্য অঞ্চল থেকে কম খরচে মেয়েদের নিয়ে আসতেন পাপিয়া। তারপর তাদের অ’সামাজিক কাজে লিপ্ত হতে বাধ্য করতেন। তবে কারও বিশেষ অর্ডার থাকলে আনা হতো বিদেশি মেয়ে। দেশি বিদেশি মিলিয়ে পাপিয়ার হাতে অন্তত ১ হাজার ৭০০ মেয়ে ছিল বলে জানা গেছে।

ডিবি সূত্র জানিয়েছে, পাপিয়া এবং তার স্বামীকে কখনো আলাদাভাবে, কখনো দু’জনকে মুখোমুখি করে জিজ্ঞাসা’বাদ করা হচ্ছে। রিমান্ডে তাদের দুই সহযোগী সাব্বির ও তায়্যিবাকেও জিজ্ঞাসা’বাদ করে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া যাচ্ছে।

নরসিংদী যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক পদ পেতে ৩ কোটি টাকা খরচ করেছিলেন পাপিয়া। আর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পাওয়ার চেষ্টা চালিয়েছিলেন। এ কাজে তার বাজেট ছিল ১০ কোটি টাকা। যদিও তার ব্যাপারে লবিং করার জন্য যাদেরকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল, তারা দলীয় প্রধান শেখ হাসিনার নিকট পাপিয়ার কথা তোলার সাহস করেননি বলে জানা গেছে।

শেয়ার করুন !
  • 2.1K
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply