ঝিনাইদহে গোপন বৈঠক থেকে অ’স্ত্রসহ শিবিরের ১১ নেতাকর্মী আটক

0

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি:

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলায় ইসলামী ছাত্র শিবিরের ১১ নেতাকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ।

পুলিশ জানায়, তারা বেথুলী গ্রামের আফছার উদ্দিনের বাড়ির উঠানে গোপন বৈঠক করছিল। এ সময় তাদের কাছ থেকে ২টি ককটেল, দেশীয় তৈরি অ’স্ত্র, ৪টি লোহার রড, ২টি ছো’রাসহ লিফলেট উদ্ধার করা হয়েছে।

শুক্রবার রাতে অভিযান চালিয়ে উপজেলার বেথুলী গ্রাম থেকে তাদের আটক করা হয়।

আটকরা হলো- ঝিনাইদহ জেলা শিবিরের সাবেক সভাপতি উপজেলার ষাটবাড়িয়া গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে মো. শাহাবুদ্দিন ওরফে সাদ্দাম, কালীগঞ্জ উপজেলা সভাপতি মহেশ্বরচাঁদা গ্রামের আবদুল গফুরের ছেলে সোহাগ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক কমলাপুর গ্রামের লিটন শেখের ছেলে আল আমিন হোসেন, শিবিরকর্মী মাগুরা গ্রামের বাবলুর রহমানের ছেলে বিল্লাল হোসেন, হাসিলবাগ গ্রামের আলী হোসেনের ছেলে আহসান হাবীব, আব্দুল করিমের ছেলে ইব্রাহিম হোসেন,

দামোদারপুর গ্রামের সোলাইমান হোসেনের ছেলে এনামুল ইসলাম ওরফে ইমন, হোসেন আলীর ছেলে মো. হাবিবুল্লাহ, পান্তাডাঙ্গা গ্রামের নাজমুস সাদাতের ছেলে নাজমুস সালেহীন, মাগুরা গ্রামের কবি বাবর আলীর ছেলে হোসাইন ওয়াইস কুরুনী ও ঘোপপাড়া গ্রামের শাহিনুর রহমানের ছেলে মো. বায়েজীদ বোস্তামী।

কালীগঞ্জ থানার ওসি মাহফুজুর রহমান মিয়া জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলার বেথুলী গ্রামের একটি বাড়ির উঠান থেকে শিবিরের ১১ নেতাকর্মীকে আটক করা হয়েছে। না’শকতা সৃষ্টির লক্ষ্যে তারা মিলিত হয়েছিল। তাদের শনিবার আদালতে পাঠানো হবে।

না’শকতার ছক করার সময় অ’স্ত্র, জি’হাদী বইসহ ৫ শিবিরকর্মী আটক

পটুয়াখালী শহরে গোপনে না’শকতার ছক করার সময় অ’স্ত্র ও জি’হাদি বইসহ ইসলামী ছাত্র শিবিরের ৫ সক্রিয় সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ।

২ মার্চ, সোমবার বিকালে শহরের ছোট চৌরাস্তা এলাকার একটি বাসা থেকে তাদের আটক করা হয়। এ সময় ওই বাসা থেকে দেড় হাজার বিভিন্ন জি’হাদী বই, হাতুড়ি, চা’পাতি, শান দেয়ার র‌্যাঁদা, লোহার চেইন, সিডি, ল্যাপটপ, ১১টি মোবাইল ফোন এবং সংগঠনের নেটওয়ার্ক বিস্তৃতি সংক্রান্ত বিভিন্ন রেজিস্টার বই উদ্ধার করা হয়েছে।

পটুয়াখালী পুলিশ সুপারের নেতৃত্বে সদর থানা পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশন) মো. মেহেদী হাসান ও এসআই আমিনুল ইসলাম এ অভিযান পরিচালনা করেন।

আটককৃতরা হলেন- মোহাম্মদ আখতারুজ্জামান (২৫), মোহাম্মদ নোমান (২০), মো. তৈমুর রহমান (২১), মো. হাসিবুর রহমান (২৪) এবং মো. রফিকুল ইসলাম (২৪)।

সোমবার রাতে পটুয়াখালী পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মইনুল হাসান জানান, আটকরা না’শকতার উদ্দেশ্যে গোপন বৈঠক করছে- এমন সংবাদ আসে তার কাছে। এরই প্রেক্ষিতে পটুয়াখালী সদর থানা পুলিশ বিকালে অভিযান পরিচালনা করে।

এ সময় আটককৃতরা প্রথমে শিবিরের সঙ্গে সম্পৃক্ততার কথা অ’স্বীকার করেন। এ সময় কক্ষ তল্লাশি করে তাদের কাজে ব্যবহৃত নানা সরঞ্জাম পাওয়া গেলে বিষয়টি নিশ্চত হওয়া যায়। পরে পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসা’বাদে ইসলামী ছাত্র শিবিরের সক্রিয় সদস্য বলে আটককৃতরা স্বীকার করেন।

তারা দীর্ঘদিন ধরে পটুয়াখালী শহরের ছোট চৌরাস্তা এলাকার একটি বাসা ভাড়া নিয়ে সাংগঠনিক কার্যক্রম চালিয়ে আসছেন বলে পুলিশের কাছে স্বীকার করেছেন। তাদের বিরু’দ্ধে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

এসপি আরও জানান, অভিযান পরিচালনাকালে তাদের কক্ষ থেকে অন্তত ১৫০০ (চার বস্তা) বিভিন্ন ধরনের জিহাদি বই, লিফলেট, ক্রেস্ট, সমর্থক ফরম, চাঁদা আদায়ের রশিদ, সংগঠনের নেটওয়ার্ক বিস্তৃতি সংক্রান্তের বিভিন্ন রেজিস্টার, বিভিন্ন পর্যায়ের কমিটির নামসম্বলিত রেজিস্টার, হাতুড়ি, চা’পাতি, শান দেয়ার র‌্যাঁদা, লোহার চেইন, ঈদকার্ড, জি’হাদী গানের সিডি, শিবিরের লোগোযুক্ত ২০টি মগ, ১টি ল্যাপটপ, ২টি পেনড্রাইভ, ১১টি মোবাইল ফোন, ১টি মোটরসাইকেল এবং ১টি ব্যানার উদ্ধার করা হয়।

আটকদের আরও জিজ্ঞাসা’বাদ চলছে। তাদের গ্রুপে আরও কোনো সদস্য পটুয়াখালীতে অবস্থান করছে কি না।

আটককৃতদের বরাত দিয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেখ বিলাল হোসেন (হেটকোয়ার্টার) জানান, আটক মোহাম্মদ আখতারুজ্জামান পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্সের ছাত্র। সাতক্ষীরা জেলা শামনগর উপজেলার বন্যাতলা গ্রামের বাসিন্দা আবদুর রাজ্জাকের ছেলে আখতারুজ্জামান।

মোহাম্মদ নোমান পটুয়াখালী পলিটেকনিক কলেজের ষষ্ঠ সেমিস্টারের শিক্ষার্থী। সিরাজগঞ্জ জেলার বেলকুচি থানার বেরাখোয়ারা গ্রামের ১নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা সোলেয়মান শেখের ছেলে নোমান। মো. তৈমুর রহমান পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার প্রথম বর্সের ছাত্র। তার বাড়ি ঢাকা জেলার শেরেবাংলা পশ্চিম আগারগাঁও এলাকার ২৪২/২৪৩ আসানো টাওয়ারে।

তিনি ওই এলাকার বাসিন্দা আজিজুর রহমানের ছেলে তাইমুর। মো. হাসিবুর রহমান বরিশাল বিএম কলেজের ইসলামী স্টাডিজের মাস্টার্সের ছাত্র। বরিশাল বিমানবন্দর কাশিপুর এলাকার বাসিন্দা গিয়াস খানের ছেলে হাসিব।

মো. রফিকুল ইসলাম পটুয়াখালী সরকারি কলেজের অর্থনীতি বিভাগের মাস্টার্সের ছাত্র। পটুয়াখালী সদর উপজেলার টেংরাখালী আকন বাড়ির মোস্তফা আকনের ছেলে রফিক।

শেয়ার করুন !
  • 140
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply