দাঁড়াতেই পারল না জিম্বাবুয়ে

0

স্পোর্টস ডেস্ক:

ওয়ানডে সিরিজের বাংলাদেশই ধরা দিলো টি-টোয়েন্টিতে। লিটন দাস ও তামিম ইকবাল যেমন ছন্দটা ধরে রাখলেন ব্যাটিংয়ে, ঠিক তেমনি ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত সংস্করণে নিজের কার্যকারিতার ছাপ রাখলেন আমিনুল ইসলাম ও মোস্তাফিজুর রহমান।

তাদের সঙ্গে সৌম্যর দুর্ধর্ষ ব্যাটিং-ফিল্ডিং মিলিয়ে টি-টোয়েন্টির ‘পারফেক্ট প্যাকেজ’ হয়ে উঠলো বাংলাদেশ। মিরপুরের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে দাঁড়াতেই দেয়নি জিম্বাবুয়েকে। আ’ধিপত্য বিস্তার করা ম্যাচটি স্বাগতিকরা জিতেছে ৪৮ রানে।

এবারের বিপিএল দিয়ে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে ছন্দে ফেরার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন মোস্তাফিজ। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দেখা দিলেন তিনি ভ’য়ঙ্কর রূপে। বাঁহাতি পেসার পেয়েছেন ৩ উইকেট। তবে বোলিংয়ে তাকেও ছাড়িয়ে গেছেন আমিনুল। তরুণ লেগ স্পিনার ফিরিয়েছেন গুরুত্বপূর্ণ ৩ ব্যাটসম্যান- টিনাশে কুমুনুকাম্বে, শন উইলিয়ামস ও টিনোটেন্ডা মুটোমবোজিকে। ফলে বাংলাদেশের ৩ উইকেটে করা ২০০ রানের জবাবে জিম্বাবুয়ে ১৯ ওভারে গুটিয়ে যায় ১৫২ রানে।

বাংলাদেশ সফর ভুলে যেতে চাইবেন ব্রেন্ডন টেলর। ওয়ানডে সিরিজে ধারাবাহিক ব্যর্থ হওয়া অভিজ্ঞ এই ব্যাটসম্যান টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচেও হ’তাশায় ডুবলেন। তাকে আউট করে বাংলাদেশকে প্রথম উইকেট এনে দেন শফিউল ইসলাম। ১ রানে আউট হওয়া টেলরের উইকেটটিতে সৌম্য সরকারের অবদানও কম নয়। মিডউইকেটে নিচু হয়ে আসা বলটি দারুণ দক্ষতায় মুঠোয় পুরে নেন তিনি।

দ্বিতীয় উইকেটের জন্য বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়নি বাংলাদেশের। মোস্তাফিজ উইকেট এনে দেন ক্রেগ আর্ভিনকে ফিরিয়ে। বাঁহাতি পেসার এলবিডাব্লিউয়ের ফাঁ’দে ফেলেন জিম্বাবুইয়ান ব্যাটসম্যানকে। ৮ রান করা আর্ভিনের বিদায়ের পরপরই আবার ধাক্কা খায় সফরকারীরা। রান আউট হয়ে ফিরে যান ওয়েসলি মাদেভেরে। আফিফ হোসেনের দুর্দান্ত থ্রো ধরে স্টাম্প ভেঙে দেন মুশফিকুর রহিম। ৪ রান করে মাদেভেরের প্যাভিলিয়নে ফেরার সময় জিম্বাবুয়ের ৩৭ রান তুলতে নেই ৩ উইকেট।

চাপে পড়া জিম্বাবুয়েকে আরও চেপে ধরে বাংলাদেশ আমিনুলের সৌজন্যে। পরপর ২ বলে এই লেগ স্পিনার তুলে নেন জোড়া উইকেট। কুমুনুকাম্বের পর উইলিয়ামসকে আউট করে তিনি হ্যাটট্রিকের সম্ভাবনা জাগিয়েছিলেন। অন্যপ্রান্তে উইকেট পড়লেও ওপেনিংয়ে নেমে নিজের প্রান্ত আগলে রেখেছিলেন কুমুনুকাম্বে। অবশেষে তার প্র’তিরোধ ভাঙলেন আমিনুল। রান তাড়া করতে নেমে আস্কিং রেট বেড়ে যাওয়ায় আক্র’মণাত্মক হয়ে উঠেছিলেন কুমুনুকাম্বে। সেটিই কাল হলো তার। আমিনুলের বলে ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে তিনি লং অফে ধরা পড়েন লিটন দাসের হাতে। ২০ বলে ৪ বাউন্ডারি ও ১ ছক্কায় জিম্বাবুইয়ান ওপেনার করেন ২৮ রান।

পরের বলে আবারও উইকেট উদযাপন আমিনুলের। এবার তিনি ফেরান অধিনায়ক উইলিয়ামসকে। তার ফুলটস ডেলিভারিতে সফরকারী অধিনায়ক ২০ রান করে ধরা পড়েন সৌম্যর হাতে।

আমিনুলের ঘূর্ণি থামেনি। পরে তিনি নিয়েছেন টিনোটেন্ডা মুটোমবোজির (২) উইকেটও। এর আগে আফিফ হোসেন ফেরান সিকান্দার রাজাকে (১০)। খানিক পর মোস্তাফিজ দ্বিতীয় শি’কার হিসেবে রিচমন্ড মুটুম্বামিকে আউট করলে বাংলাদেশের জয়টা সময়ের ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়।

শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে কার্ল মুম্বাকে (২৫) আউট করে বাংলাদেশের জয় নিশ্চিত করেন ওই মোস্তাফিজই। ৪ ওভারে ৩২ রান দিয়ে বাঁহাতি পেসারের শি’কার ৩ উইকেট। আমিনুল ৪ ওভারে ৩৪ রান দিয়ে নেন ৩ উইকেট। আর ১টি করে উইকেট পেয়েছেন শফিউল, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ও আফিফ।

শেয়ার করুন !
  • 107
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!