করোনায় আক্রা’ন্ত লন্ডনের সেই নবজাতকটি সম্পূর্ণ সুস্থ

0

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

চিকিৎসকরা জানিয়ে দিলেন লন্ডনের করোনা ভাইরাসে আক্রা’ন্ত নবজাতকটি এখন সম্পূর্ণ সুস্থ।

পরীক্ষা-নিরীক্ষার পরই এ বিষয়ে নিশ্চিত হন চিকিৎসকরা। তবে আপাতত ২৪ ঘণ্টা পর্যবেক্ষণে রাখা হবে ওই দুধের শিশুকে। তার পরই হাসপাতাল থেকে ছুটি দেয়া হবে তাকে। দ্য সানের খবর।

নর্থ মিডলস্যাক্স হাসপাতালে সম্প্রতি এই শিশুটিকে জন্ম দেন এক তরুণী। জন্মের পরেই চিকিৎসকরা দেখেন তার শ্বাসক’ষ্ট হচ্ছে।

নবজাতকটির শরীরে করোনা ভাইরাস সংক্র’মণের সব উপসর্গও ধীরে ধীরে লক্ষ্য করেন চিকিৎসকরা। তড়িঘড়ি রক্ত পরীক্ষা করা হয়। তাতে ধরা পড়ে কোভিড-১৯ পজিটিভ, অর্থাৎ সে করোনা ভাইরাসে আক্রা’ন্ত।

বিশ্বে প্রথমবার লন্ডনের এই সদ্যজাতের শরীরে মেলে করোনা ভাইরাস। এর পরই আলাদা আইসোলেশন ওয়ার্ডে রেখে তার চিকিৎসা শুরু হয়। তবে বর্তমানে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, ওই নবজাতক সম্পূর্ণ শ’ঙ্কামুক্ত। তার শারীরিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা এখনও চলছে।

এর আগে কেরালায়ও ৩ বছরের এক শিশুর শরীরে মিলেছিল চীনা এই ভাইরাসের জীবাণু।

কিন্তু প্রশ্ন একটাই– মাতৃগর্ভে থাকাকালীন কীভাবে ভাইরাস তার শরীরে বাসা বাঁধল? যদিও এ বিষয়ে কোনো সুস্পষ্ট তথ্য নেই চিকিৎসকদের কাছে।

নর্থ মিডলস্যাক্স হাসপাতালের চিকিৎসকদের অনেকেই মনে করছেন, শিশুটির মা ভাইরাস আক্রা’ন্ত ছিলেন। তাই গর্ভে থাকাকালীন শিশুর শরীরেও তা সংক্র’মিত হয়েছিল।

আবার কেউ কেউ বলছেন, প্রসবের প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই ভাইরাস তার শরীরে থাবা বসিয়েছে। এ ঘটনার পর থেকে শিশু এবং বৃদ্ধদের সাবধানে থাকার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

করোনা ভাইরাস নিয়ে সুসংবাদ শোনালো চীন

নভেল করোনা ভাইরাসের উৎস চীনে। গেল ডিসেম্বরের শেষ দিকে চীনের হুবেই প্রদেশের উহানে উৎপত্তি হয়ে আজ এ ভাইরাস বিশ্বকে স্থ’বির করে দিয়েছে। শুধু চীনেরই করোনা রোগীর সংখ্যা লাখ ছাড়িয়েছে অনেক আগেই।

ভাইরাসটি আত’ঙ্কে রূপ নিলে বিশ্ব থেকে বিচ্ছি’ন্ন হয়ে পড়ে চীন। আর এখন সেই চীনেই নেই করোনা আত’ঙ্ক। দেশটির ১৩টি প্রদেশে কোভিড-১৯ কোনো রোগীর সন্ধান মেলেনি। সোমবার সকালে দেশটির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন সিসিটিভি এই সুসংবাদ দিয়েছে।

সেখানে বলা হয়েছে- তিব্বতের স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল, জিনজিয়াংয়ের স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল, কিংহাই, ফুজিয়ান, আনহুই, চিয়াংসি, শানজি, হুনান, জিয়াংসু, চংকিং, গুইজু, জিলিন এবং তিয়ানজিন মিউনিসিপ্যালটিতে কোনো করোনা রোগী শনাক্ত হয়নি। নতুন করে কোনো আক্রা’ন্তের খবর পাওয়া যায়নি।

এদিকে করোনায় সবচেয়ে বেশি ক্ষ’তিগ্রস্ত হুবেই প্রদেশেও কমে এসেছে এর প্র’কোপ। আক্রা’ন্তরা সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরছেন। নতুন করে আক্রা’ন্তের সংখ্যা একেবারে হাতে গোণায় চলে এসেছে। যে কারণে করোনা রোগীদের সেবাদানে অস্থায়ী কয়েকটি হাসপাতাল বন্ধ করা হয়েছে।

তবুও বিশেষ সতর্ক অবস্থানে রয়েছে হুবেই প্রদেশ। অঞ্চলটির সরকার জানিয়েছে, উহানসহ হুবেই প্রদেশে করোনার প্র’কোপ কমে আসলেও ভাইরাসটির প্রা’দুর্ভাব যে কোনো অঞ্চলে যে কোনো সময় আবার শুরু হতে পারে। তাই এখনই হাত-পা গুটিয়ে ফেলছি না আমরা।

শেয়ার করুন !
  • 53
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!