বিশ্ববাসীকে রক্ষায় বিল গেটসের ৭টি কারখানায় তৈরী হবে করোনা-ভ্যাক্সিন

2

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

করোনা ভাইরাসের একটি টিকা আবিস্কারের জন্য বিশ্বের সেরা সব বিজ্ঞানীরা এখন নানা দেশের গবেষণাগারে উদয়াস্ত পরিশ্রম করছেন। সেই চেষ্টায় সফল হতে তাদের সময় লাগবে অনেক, বলা হচ্ছে অন্তত ১ বছর হতে ১৮ মাস। কিন্তু এই টিকা আবিস্কারের আগেই বিপুল সংখ্যায় টিকা তৈরির জন্য ৭টি পৃথক কারখানা স্থাপনের ঘোষণা দিয়েছেন মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস। যেখানে টিকা আবিস্কার হতেই অনেক দেরি, সেখানে এখনই কেন তিনি ৭টি কারখানা স্থাপন করতে চাইছেন?

যুক্তরাষ্ট্রের টেলিভিশন অনুষ্ঠান ‘দ্য ডেইলি শো‌’কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি নিজেই এর ব্যাখ্যা দিয়েছেন। বিল গেটস তার ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে যে ৭টি কারখানা তৈরি করবেন, তার মধ্যে আসলে শেষ পর্যন্ত কাজে লাগবে একটি বা দুটি মাত্র কারখানা। বাকীগুলো এক অর্থে বাহুল্য। কিন্ত করোনা ভাইরাস থেকে যে লাখ লাখ মানুষের প্রাণ এবং অর্থনীতির যে বিপুল ক্ষ’তি এর ফলে এড়ানো যাবে, সে তুলনায় এটি কিছুই নয় বলে মনে করেন তিনি।

বিল গেটস হচ্ছেন বিশ্বের শীর্ষ ধনকুবেরদের একজন। মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে তিনি বহু বছর ধরে ছিলেন বিশ্বের সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি। মাইক্রোসফট থেকে অবসরে যাওয়ার পর তিনি মনোযোগ দেন জনহিতৈষী কাজে। গড়ে তোলেন তার নিজের এবং স্ত্রীর নামে ‘বিল এন্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন। বিশ্বের দরিদ্র দেশগুলোতে কম খরচে লক্ষ লক্ষ মানুষকে নানা ধরণের রোগের প্রতিষেধক টিকা প্রদান, সুপেয় পানির ব্যবস্থা, প্রযুক্তি শিক্ষাসহ নানাক্ষেত্রে এই প্রতিষ্ঠান এখন বিরাট ভূমিকা রাখছে। বাংলাদেশেও তাদের কার্যক্রম রয়েছে।

কেন ৭টি কারখানা করতে হচ্ছে:

করোনা ভাইরাসের জন্য এখন অন্তত ৩০টি ভিন্ন ভিন্ন টিকা নিয়ে গবেষণা চলছে। এগুলোর মধ্যে শেষ পর্যন্ত কোন টিকাটি সবচেয়ে বেশি কার্যকর এবং সফল বলে প্রমাণিত হবে, তা এখনই বলা যাচ্ছে না। একটি টিকা তৈরির পর দীর্ঘ সময় ধরে এটি নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালাতে হয়। এর কোন সাইড-ইফেক্ট আছে কি না, এটি কতটা নিরাপদ- তা জানতে হাজার হাজার মানুষের ওপর এটির পরীক্ষা চলে।

তবে যেসব টিকা নিয়ে এখন কাজ চলছে, তার মধ্যে ৭টি টিকাকে খুবই সম্ভাবনাময় বলে মনে করা হচ্ছে। বিল গেটস মনে করছেন এই ৭টির যে কোন একটি বা দুটি টিকা হয়তো শেষ পর্যন্ত সবচেয়ে কার্যকরী বলে প্রমাণিত হবে।

‘দ্য ডেইলি শো’র ট্রেভর নোয়াকে দেয়া সাক্ষাৎকারে বিল গেটস বলেন, তাদের ফাউন্ডেশন চুড়ান্তভাবে নির্বাচিত একটি বা দুটি টিকা বেছে নেবে এবং সেগুলো বিপুল সংখ্যায় তৈরি করতে শুরু করবে।

টিকা আবিস্কারের আগেই কেন কারখানা তৈরি করে প্রস্তুত রাখছেন সেটা ব্যখ্যা করে তিনি বলেন, এতে করে সময় বাঁচবে, অনেক মানুষের জীবন বাঁচবে এবং বিপুল অর্থনৈতিক ক্ষ’তি এড়ানো সম্ভব হবে।

বিল গেটস বলেন, ‍সংক্রা’মক রোগের ব্যাপারে আমাদের ফাউন্ডেশনের যেহেতু খুবই গভীর অভিজ্ঞতা আছে, আমরা তাই এই মহামা’রি নিয়ে অনেক ভেবেছি। আমরা ‌একটা টিকা তৈরির প্রচেষ্টায় অর্থ সাহায্য দিয়েছি। আমাদের এই দ্রুত আর্থিক সাহায্য এই প্রচেষ্টাকে অনেক ত্বরান্বিত করতে পারে। যদিও আমরা ৭টি টিকার মধ্যে বড়জোর একটি বা দুটি টিকা বেছে নেব, আমরা ৭টির জন্যই কারখানা বানাতে টাকা দেব। যাতে করে আমাদের একটির পর একটি টিকা পরীক্ষা করে সময়ের অপচয় করে বলতে না হয়, কোন টিকাটি কাজ করছে, তারপর আবার সেই টিকার কারখানা বানাতে গিয়ে আরো সময় ন’ষ্ট না হয়।

বিল গেটস বলেন, এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ যে টিকা নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা যখন চলবে তার পাশাপাশি টিকা তৈরির কারখানার কাজ যেন পাশাপাশি চলে।

যে টিকাগুলো পরীক্ষায় সফল বলে প্রমানিত হবে না, সেগুলোর কারখানা আগে থেকে তৈরি করতে গিয়ে যে শত কোটি ডলার অহেতুক খরচ হবে সেটা স্বীকার করে তিনি বলেন, করোনা ভাইরাসের কারণে বিশ্বের এখন যা পরিস্থিতি, যে হাজার হাজার কোটি ডলারের অর্থনৈতিক ক্ষ’তি তার তুলনায় এই খরচ কিছু নয়।

তিনি বলেন, টিকা আবিস্কার হয়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তাদের কারখানায় টিকা তৈরির কাজ শুরু হয়ে যেতে পারবে, এতে করে বহু মাস সময় বাঁচবে। কারণ প্রতিটি মাস এখন গুরুত্বপূর্ণ।

করোনা ভাইরাস মহামারি মোকাবেলায় বিল গেটস এবং তার স্ত্রী মেলিন্ডা গেটস এরই মধ্যে ১০ কোটি ডলার দান করেছেন।

বিল গেটসের সম্পদের হিসেব:

বিল গেটস এখন ৮৯.৪ বিলিয়ন ডলার, অর্থাৎ প্রায় ৯ হাজার কোটি ডলার সম্পদের মালিক। তিনি যদি প্রতিদিন ১ মিলিয়ন ডলার করে খরচ করেন, এই বিপুল সম্পদ খরচ করতে তার সময় লাগবে ২৪৫ বছর।

১৯৭৫ সালে বিল গেটস তার বন্ধুর সঙ্গে মিলে মাইক্রোসফট প্রতিষ্ঠা করেন। ১২ বছর পর তিনি বিশ্বের কনিষ্ঠতম শত-কোটিপতি হন। মাইক্রোসফট তাদের উইন্ডোজ-৯৫ বাজারে ছাড়ার পর বিল গেটস বিশ্বের সবচেয়ে ধনী ব্যক্তিতে পরিণত হন।

মাইক্রোসফটের প্রধান নির্বাহীর পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর পর তিনি তার ফাউন্ডেশনের কাজে মনোযোগ দিয়েছেন। বিল এন্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন এ পর্যন্ত জনসেবামূলক কাজে দান করেছে ৪১ বিলিয়ন ডলার।

সূত্র: বিবিসি

শেয়ার করুন !
  • 13.4K
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

২ Comments

Leave A Reply