বাংলাদেশে করোনা পরিস্থিতি: এখনো ঠেকিয়ে দেয়া সম্ভব যেভাবে

0

বিশেষ প্রতিবেদন:

বাংলাদেশ করোনার অন্ধকার গহ্বরে ডুকে গেছে, এখন করোনার বিভী’ষিকা কতটা ভ’য়ঙ্কর হবে তা নিয়ে জল্পনা-কল্পনা চলছে। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এখনো বাংলাদেশের সামনে সুযোগ রয়েছে। অনেক নে’তিবাচক কাজের পরেও কিছু ইতিবাচক কাজ করেছে বাংলাদেশ।

করোনার প্র’কোপ ছড়িয়ে পড়ার আগেই বাংলাদেশে সাধারণ ছুটি ঘোষণা হয়েছিল এবং হাসপাতাল ব্যবস্থাপনাতে সীমাব’দ্ধতা সত্ত্বেও কিছু পদক্ষেপ নিয়ে রেখেছে। তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনা থেকে বাঁচতে হলে এখন আমাদের কঠিনভাবে কিছু পদক্ষেপ নিতে হবে। তাহলে করোনার এই প্র’কোপকে নিয়ন্ত্রণে আনা যাবে এবং করোনার মহামা’রি থেকে বের হয়ে আসা যাবে। বিশেষজ্ঞরা এ ব্যাপারে ৫টি সুনির্দিষ্ট কর্মপন্থার সুপারিশ করেছেন।

লক ডাউনের মেয়াদ বাড়াতে হবে

বর্তমানে ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এখন করোনার পিক সিজন শুরু হয়েছে। তাই আগামী ২ সপ্তাহ, বা কারো মতে পুরো চলতি মাসটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। আর এই সময়ের মাঝেই বাংলাদেশের ভাগ্য নির্ধারিত হবে। কাজেই এখনই যদি আমরা ছুটি বা লক ডাউন প্র’ত্যাহার করি, তাহলে পরিস্থিতি অব’নতি হতে পারে এবং আমরা আরো গভীর স’ঙ্কটের মধ্যে পড়তে পারি। এই কারণে তারা মনে করছেন, আমাদের করোনার প্র’কোপ থেকে বেরিয়ে আসতে হলে লক ডাউনের মেয়াদ বাড়াতে হবে এবং শুধু সাধারণ ছুটি নয়, কঠিনভাবে এই লক ডাউন জারি করতে হবে যাতে সব ধরণের কর্মকাণ্ড বন্ধ থাকে।

সচেতনতা বাড়াতে হবে

আমরা যতই বলি, সরকার এটা করেনি কেন, ওটা করেছে কেন? তবে করোনা থেকে বাঁচার জন্য আমাদের সচেতনতা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। আমরা দেখেছি, ২৬ মার্চ থেকে ঘোষিত সাধারণ ছুটিতে সরকারি নির্দেশনা মানছেন না অনেকেই। অন্তত ৩০ ভাগ মানুষ ঘর থেকে নিয়মিত বের হচ্ছেন নানা অজুহাতে, সামাজিক মেলামেশা চলছে- এসব বিষয়ে আমাদের ব্যাপক সচেতনতার অভাব রয়েছে। বাংলাদেশের একটি বড় অংশের মানুষ এখনো বুঝতেই পারেনি এটা কত ভ’য়ঙ্কর এক ব্যাধি। এই কারণে সচেতনতা বাড়াতে হবে, সরকারি উদ্যোগে রেডিও, টেলিভিশন এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচরণামূলক সতর্কতা বাড়াতে হবে, বিশেষ করে গুজবের বিরু’দ্ধে সত্য বিষয়টি সাধারণ মানুষের কাছে তুলে ধরতে হবে।

চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্য কর্মীদের কাজে নামাতে হবে

আমাদের দুর্ভাগ্য, আমরা এখনো চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্য কর্মীদের উদ্বুদ্ধ করতে পারিনি। করোনা চিকিৎসার মূল স্রোতের সাথে তাদেরকে মেশাতে পারিনি। বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলোতে যেভাবে অনেক অবসরে যাওয়া চিকিৎসক আবার ফিরেছেন চিকিৎসা সেবায়, স্বেচ্ছায় নার্সিংয়ে নেমেছেন, বাংলাদেশে ঘটছে তার উল্টোটা। আর এই অবস্থার অবশ্যই উত্তরণ ঘটাতে হবে, চিকিৎসকদের কাজে নামাতে হবে। তাহলে জনমনে যে অ’স্বস্তি, আত’ঙ্ক সৃষ্টি হচ্ছে তা দূর হবে এবং চিকিৎসকরা যখন তাদের উপদেশ, পরামর্শ দিবেন সেটা তখন মানুষ অনেক বেশি মানবে।

বেসরকারি হাসপাতালগুলো এবং কমিউনিটি ক্লিনিকগুলোকে যুক্ত করতে হবে

আমাদের করোনা চিকিৎসায় বেসরকারি হাসপাতালগুলো চিকিৎসা প্রদানে অ’নীহা প্রদর্শন করছিলেন শুরু থেকেই। যদিও ত্রাণ ও দুর্যোগমন্ত্রীর ব্যক্তিগত উদ্যোগে সেই অ’চলাবস্থা কাটিয়ে উঠে বেসরকারি হাসপাতাল মালিকদের সংগঠন জানিয়েছেন, তারা চিকিৎসা সেবা দিতে প্রস্তুত। তারা তাদের চিকিৎসক এবং নার্সসহ চিকিৎসা সংশ্লিষ্টদের ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা নিচ্ছেন। এতে অবস্থার উন্নতি হওয়ার আশা দেখছে দেশের মানুষ। এর পাশাপাশি সারাদেশে অবস্থিত ১৪ হাজার কমিউনিটি ক্লিনিককে করোনা চিকিৎসার আওতায় আনার দাবি উঠেছিল, আজ সেই ঘোষণাও দিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এসব যদি সুষ্ঠুভাবে মনিটরিং করা যায়, তবে তা করোনা মোকাবেলায় বড় ধরনের অবদান রাখবে।

সরকারের কাজের সমন্বয় করা

সরকার অনেকগুলো কাজ করছে কিন্তু স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের যেমন সমন্বয় নেই, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সাথে অন্যান্য মন্ত্রণালয়েরও তেমন সমন্বয় দেখা যাচ্ছে না। তাই করোনা মোকাবেলায় সরকারের সমন্বয় যে কোনভাবে বাড়াতে হবে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই মাসটি আমাদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং এই মাসে যদি আমরা খুব কঠোরভাবে এই কাজগুলো অনুসরণ করি, তাহলে করোনার ঝুঁ’কি থেকে হয়তো আমরা বের হয়ে আসতে পারবো।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনার প্র’কোপ থেকে চটজলদি বের হবার কোন পথ নেই। স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরতে চীনের অন্তত ৩ মাস সময় লেগেছে। অন্যান্য দেশ এখনো ঝুঁকিই কমাতে পারেনি। কাজেই আমাদের অপেক্ষা করতে হবে এবং অ’স্থির ও ধৈর্য্যহারা হলে চলবে না।

শেয়ার করুন !
  • 183
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply