গেছো ইঁদুর থেকে ছড়িয়েছে করোনা ভাইরাস- চীনের নতুন দাবি!

0

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

চীনের উহান শহরের বন্যপ্রাণীর বাজার থেকে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পর গবেষকদের সন্দেহের তালিকায় বিলুপ্তপ্রায় প্যাঙ্গোলিন (বনরুই), বাদুড়ের পর এবার যুক্ত হয়েছে বড় আকৃতির গেছো ইঁদুরের (ব্যাম্বো র‍্যাট) নাম। বিজ্ঞানীরা এখনো নিশ্চিত করে বলতে পারেননি। তবে গবেষণা যে দিকে এগোচ্ছে, তাতে বোঝা যাচ্ছে যে কোভিড-১৯ ছড়িয়ে পড়ার সঙ্গে এসব বন্যপ্রাণীর বেশ ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক আছে।

চীন সরকার এবার করোনা ছড়ানোর জন্য বড় আকৃতির গেছো ইঁদুরকে দায়ী করছে। দরিদ্র মানুষেরা তাদের অর্থনৈতিক অবস্থা ফেরাতে খামারে মজাদার এসব বিশাল ইঁদুর পালন করে থাকে। এবার সেই ইঁদুর পালনে নিষে’ধাজ্ঞা জারি করতে যাচ্ছে দেশটির সরকার। মে’রে ফেলতে হবে প্রায় আড়াই কোটি ইঁদুর।

ফেব্রুয়ারিতে চীনা কর্তৃপক্ষ ইঙ্গিত দিয়েছিল যে, অ’স্থায়ী ভিত্তিতে বন্যপ্রাণী খাওয়া ও চাষ নিষি’দ্ধ করা হবে। এই প্রস্তাবটি নভেল করোনা ভাইরাস প্রা’দুর্ভাবের পরে দেওয়া হয়েছিল। চীনে বিশ্বাস করা হয় যে, উহান শহরের একটি বন্যপ্রাণীর বাজার থেকে ভাইরাসটির প্রা’দুর্ভাব শুরু হয়েছিল।

যদিও বেশিরভাগ গবেষকরা ভাইরাসটির জন্য প্যাঙ্গোলিন এবং বাদুড় যারা কোভিড-১৯ স্ট্রেইনের উৎস, সেগুলোকে নিষি’দ্ধ করার কথা বলেছেন। তবে একজন বিজ্ঞানী গেছো ইঁদুরকে দোষারোপ করে সেটা পালনে নিষে’ধাজ্ঞা দেওয়ার জন্য পরামর্শ দিয়েছেন।

ম্যান্ডারিনে ‘ঝু শু’ নামে পরিচিত বড় আকৃতির এই ইঁদুরগুলো অনেকটা গোলগাল হয় এবং এটি আকারে যথেষ্ট বড়। একটি প্রাপ্তবয়স্ক ব্যাম্বো ইঁদুর ৫ কেজি ওজনেরও হতে পারে এবং ৪৫ সেন্টিমিটার পর্যন্ত লম্বা হতে পারে।

চীনাদের কাছে এই ইঁদুর খুবই সুস্বাদু খাবার হিসাবে বিবেচিত। হাজার বছর ধরে চীনাদের পাতে এটা রসনা বিলাস দিয়ে আসছে। বর্তমানে ঐতিহ্যবাহী এই খাবারটির জনপ্রিয়তা আরো বেড়েছে। ১ জোড়া ব্যাম্বো ইঁদুর ১১৩ ইউরোয় (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ১০ হাজার ৪০০ টাকা) বিক্রি হচ্ছে।

বন্যপ্রাণী পালন ও বেচাকেনায় কড়াকড়ি আরোপের পর চীনের অধিকাংশ এলাকায় বর্তমানে ব্যাম্বো ইঁদুর পালন বন্ধ হয়ে গেছে। নিষে’ধাজ্ঞার আগে খাওয়ার জন্য খামারিরা প্রায় আড়াই কোটি ইঁদুর লালন-পালন করছিল। এসব ইঁদুরের খামারের বেশিরভাগ গুয়াংজি এলাকায় অবস্থিত।

এই শিল্প বন্ধ হওয়ার ১ মাস আগে চীনের শীর্ষস্থানীয় মহামা’রি বিশেষজ্ঞ ডা. ঝং নানশান সতর্ক করেছিলেন যে, মহামা’রিটি গেছো ইঁদুর বা ব্যাজারের সাথে যুক্ত হতে পারে। যদি আরও বড় প্রমাণ মেলে তাহলে এসব প্রাণী পালন দীর্ঘমেয়াদে অ’বৈধ হতে পারে।

মহামা’রি এড়াতে চাইছেন এমন লোকেরা সরকারের এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানালেও, ব্যাম্বো ইঁদুর চাষীদের জন্য এটি বিপুল অর্থনৈতিক ক্ষ’তির কারণ হবে।

সূত্র- মিরর ইউকে।

শেয়ার করুন !
  • 50
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!