‘আমরা এহ্যানের ভোটার না, তাই কেউ সাহায্য দ্যায় না’

0

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি:

‘আমরা এহ্যানের ভোটার না, তাই কেউ আমাগে সাহায্য দ্যায় না। চেয়ারম্যান-মেম্বর ও অনেক নিত্যাগে কাছে গ্যাছি, কেউ এটটু সাহায্য করেনাই। সবাই বলে তুমরা এহ্যানের ভোটার না, যেহ্যানের ভোটার সেহ্যানে যাও।’

এভাবে কথাগুলো বলছিলেন- গত ১ মাস ধরে কর্মহীন হয়ে পড়া সিঙ্গাড়া-পুরি বিক্রেতা নশু শেখ (৪৫)। তিনি দীর্ঘ ১৩ বছর ধরে গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার রামদিয়া বাজারে ভূমি অফিসের পাশে ফুটপাতে সিঙ্গাড়া-চপ বিক্রি করে করেন।

জানা গেছে, গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার বনগ্রামের বাসিন্দা নশু শেখ (৪৫)। ফুটপাতে সিঙ্গাড়া বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করেন। সরকারি নির্দেশে গত মাসের ২৩ তারিখ থেকে ব্যবসা বন্ধ করে ঘরে থাকছেন। পরিবারের ৭ সদস্য নিয়ে কর্মহীন হয়ে সহায়তার অভাবে দু’র্বিষহ দিন কাটাচ্ছেন। সাহায্যের জন্য এলাকার চেয়ারম্যান, মেম্বার, রাজনৈতিক নেতা ও বিত্তশালীদের কাছে একাধিকবার ধর্না দিয়েও সামান্যটুকু সাহায্য মেলেনি। ওই এলাকার ভোটার না বলে সকলে তাকে ফিরিয়ে দিয়েছেন। এ হত’ভাগ্য পরিবারটির কপালে জুটেনি একদানা চালও।

নশুর স্ত্রী আফরোজা বেগম কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, এতদিন হলো স্বামী বেকার অবস্থায় ঘরে বসা, কাজ-কাম নাই। ২ মাসের ঘর ভাড়া বাকি। সরকার থেকে লোকজনকে কত চাল-ডাল, তেল দিচ্ছে আমাদের কপালে একটা দানাও জুটল না। ইউনিয়ন অফিসে গেলে চেয়ারম্যান বলেছেন তোমরা তো এখানের ভোটার না। যেখানের ভোটার সেখানে যাও।

বেথুড়ী ইউপি চেয়ারম্যান ক্ষিরোদ রঞ্জন বিশ্বাস বলেন, আমার কাছে এ রকম কেউ এখন পর্যন্ত আসেনি। তবে ওই পরিবার প্রধানের ছবি ও জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি দিয়ে গেলে তাদের খাদ্য সহায়তা দেওয়া হবে।

কাশিয়ানী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সাব্বির আহমেদ বলেন, এ রকম কেউ থাকলে অবশ্যই আমরা তাকে সাহায্য করবো। যেমন বেদেরাও ভাসমান। তাদেরও তো আমরা খাদ্য সহায়তা দিয়েছি।

কোটালীপাড়া ২ শতাধিক পরিবারের পাশে দাড়ালেন মা তারা মেডিকেয়ার সেন্টার

গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলায় ২ শতাধিক পরিবারকে খাদ্য সহায়তা করেছেন মা তারা মেডিকেয়ার সেন্টারের স্বত্বাধিকারী সরোজ বিশ্বাস।

করোনা ভাইরাসের প্রভাবে কর্মহীন হয়ে পড়া দরিদ্র মানুষের মাঝে চাল, ডাল, আলু, তেলসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র বিতরণ করেন তিনি। আজ শুক্রবার সকালে উপজেলার মূলবাড়ী গ্রামে তার নিজ বাসভবনে এসব খাদ্যসামগ্রী তুলে দেন ভাংঙ্গারহাট বাজারের ব্যবসায়ী সরোজ বিশ্বাস। এ সময় উপস্থিত ছিলেন রাধাগঞ্চ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সর্বানন্দ বৈদ্য, রাধাগঞ্চ ইউনিয়ন যুগলীগের সহ-সভাপতি পলাশ বিশ্বাস।

ব্যবসায়ী সরোজ বিশ্বাস বলেন, এর আগেও আমি করোনা ভাইরাস সচেতনতায় বিভিন্ন এলাকায় প্রায় সাড়ে ৪ হাজার সাবান, মাস্ক ও লিফলেট বিতরণ করেছি এবং এই পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত আমি অ’সহায় মানুষগুলোর পাশে থাকার চেষ্টা করবো।

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!