নেতাকর্মীদের কারনে কি দল বোঝা হয়ে গেছে নেত্রীর ওপর?

0

বিশেষ প্রতিবেদন:

করোনা সং’কটে আওয়ামী লীগের অ’সহায়ত্ব, অন্তঃসারশূন্যতা এবং জনবিচ্ছি’ন্নতা স্পষ্ট হয়ে গেছে। যখন করোনা শুরু হলো, তখন থেকে আওয়ামী লীগ একটি শক্তিশালী রাজনৈতিক দল হিসেবে যেমন জনগণের পাশে দাঁড়াতে পারেনি, তেমনি দলীয় নেতাদের বিরু’দ্ধে চালচুরি, ত্রাণের সাহায্য চুরির অভিযোগ ওঠায় দলটি আবারও কল’ঙ্কিত হয়েছে। যার ফলে দলকে এখন বোতলব’ন্দি করে রেখেছেন দলের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রশ্ন উঠেছে, আওয়ামী লীগ কি এখন শেখ হাসিনার জন্য একটি বোঝা হয়ে গেছে? কারণ করোনা মোকাবেলার জন্য আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা দলের ওপর মোটেও নির্ভর করছেন না এবং দলকে ব্যবহারও করছেন না। বরং তিনি প্রশাসনকে দিয়ে করোনা মোকাবেলার কাজ করে যাচ্ছেন, নিজে ২৪ ঘন্টা পরিশ্রম করছেন।

জাতির পিতার হাতে গড়া সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সবসময় সং’কট, দুর্যোগ, দু’র্বিপাকের মধ্য দিয়ে এগিয়ে গেছে। আওয়ামী লীগের জন্য অনেক কঠিন সময় এসেছে। কিন্তু কখনও সংগঠন তার গুরুত্ব হারায়নি। বরং যত খারাপ সময় এসেছে ততই তৃণমূল সংগঠনকে আগলে রেখেছে এবং শক্তিশালী করেছে। সাংগঠনিক শক্তির জন্যই আওয়ামী লীগ আজ এ জায়গায়। কিন্তু ২০০৮ সাল থেকে টানা ক্ষমতায় আসার পর একে একে আওয়ামী লীগের স্খ’লন শুরু, দল নিয়ে প্রশ্ন ওঠে এবং জনগণের সাথে দূরত্বের কথাও শোনা যায়। এই বাস্তবতা স্পষ্ট হয়েছে করোনা সং’কটের সময়। সংসদের প্রায় ৩০০ এমপির অধিকাংশই আওয়ামী লীগের। অথচ এই সং’কটে এমপিদের জনগণের পাশে যেমন দেখা যাচ্ছে না, তেমনি দেখা যাচ্ছে না স্থানীয় নেতাদের, এমনকি তৃণমূলকেও।

এই অবস্থা কিন্তু আজকের নয়, দীর্ঘদিন ধরেই বলা হচ্ছিল, আওয়ামী লীগ পচে যাচ্ছে, আওয়ামী লীগ অব’ক্ষয়ের মুখে পড়েছে, আদর্শিক ও নৈতিক মূল্যবোধ থেকে অপ’সারিত হচ্ছে। তার বাস্তবতা দেখা গেল এই করোনা সং’কটকালে।

প্রথমত; ২০০৮ এ আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর থেকেই আওয়ামী লীগের এই সং’কটের সূচনা বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। সং’কটের শুরু হয়, যখন প্রথম আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর একঝাঁক হাইব্রিড আওয়ামী লীগার সেজে দলে প্রবেশ করে নানারকম সুযোগ সুবিধার জন্য। গত ১১ বছরে এরাই বিভিন্ন জায়গায় জাঁকিয়ে বসেছে এবং স্থানীয় তৃণমূল এখন হাইব্রিডের দখ’লে। যদিও আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বারবার বলেছেন, যারা দলে অনু-প্রবেশকারী, যারা দলে বিভিন্ন মতলব আর উদ্দেশ্য নিয়ে এসেছে, তাদেরকে দল থেকে বের করে দিতে হবে, কিন্তু কার্যত দলের কিছু নেতার পৃষ্ঠপোষকতায় ও মদদে এই হাইব্রিডরা দলের মধ্যে জাঁকিয়ে বসেছে। এখন করোনা সং’কটে দেখা গেল, এইসব হাইব্রিড নেতা জনগণের সাথে সম্পর্কহীন।

দ্বিতীয়ত; যে সং’কটটি দেখা গেছে তা হলো, আওয়ামী লীগের যে অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলো, যেগুলোর বিরু’দ্ধে বিভিন্ন সময়ে নানা রকম অভিযোগ উঠেছিল এবং সবগুলো অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনই এখন কার্যত অ’কার্যকর। আর এই অঙ্গ-সহযোগী সংগঠন ছাড়া আওয়ামী লীগ হলো হাত-পা ছাড়া মানুষের মতো, যারা চলতে পারে না এবং নড়তে পারে না। সেটিই হলো আওয়ামী লীগের বর্তমান সং’কটের একটি বড় সনদ।

তৃতীয়ত; একমাত্র শেখ হাসিনা ছাড়া আওয়ামী লীগ মোটামুটি একটি নেতৃত্ব শূন্য দল। আওয়ামী লীগের আর কোন নেতা নেই যাদেরকে জনগণ শ্রদ্ধা করতে পারে, মোহাবিষ্ট বা আকৃষ্ট হয়। এই করোনা সং’কটে সেটা আরেকবার প্রমাণিত হলো।

চতুর্থত; আওয়ামী লীগের যে নেতৃত্বের বিকাশ ও তৃণমূল থেকে নেতৃত্ব উঠে আসার ধারা, তা বন্ধ হয়ে বিভিন্ন ব্যবসায়ী, টাকাওয়ালা ব্যক্তিরা দলীয় পদ পদবী ও মনোনয়ন দখ’ল করতে থাকে। কাজেই জনগণের প্রতি তাদের কোন কমিটমেন্ট না থাকায় আওয়ামী লীগ আজ জনবিচ্ছি’ন্ন অবস্থায় পতিত হয়েছে।

পঞ্চমত এবং সর্বশেষ; দলের ভেতর যে আদর্শিক চর্চা ও জনকল্যানকামীতা, সেটি ২০০৮ সাল থেকে টানা ক্ষমতায় থাকার কারণে আস্তে আস্তে উবে গেছে এবং দলের নেতারা নিজেদেরকে জনগণের সেবক নয়, প্রভু ভাবতে শুরু করেছে। আর দলের এই অব’ক্ষয় এবং দুরবস্থা সবার আগে টের পেয়েছেন দলের সভাপতি শেখ হাসিনা। সে কারণেই তিনি করোনা মোকাবেলায় দলের উপর নির্ভর করেননি। কারণ তিনি শুরু থেকেই তৃণমূলের বিভিন্ন অ’পকর্মের ঘটনা দেখেছেন। সেজন্য তিনি সতর্ক করে দিয়েছেন দুর্নীতি, অ’নিয়মের বিরু’দ্ধে। অ’নিয়ম হলে তা তিনি সহ্য করবেন না এবং পরবর্তীতে ত্রাণ কাজের দায়িত্ব তিনি স্থানীয় প্রশাসনের হাতে তুলে দিয়েছেন।

এখন প্রশ্ন, করোনা সং’কটকালে দলকে বাদ দিয়ে শেখ হাসিনা যে প্রশাসন নির্ভর হয়েছেন, তাতে কি এটা প্রমাণিত হয় না, আওয়ামী লীগ এখন শেখ হাসিনার জন্য একটি বোঝা হয়ে দাঁড়িয়েছে? শেখ হাসিনা এমনিতেই দলের চেয়ে জনপ্রিয়। তাছাড়া দেশের মানুষ দলমত নির্বিশেষে বিশ্বাস করেন, শেখ হাসিনা দেশের প্রতি আন্তরিক, তিনি মানুষের কল্যাণ কামনা করেন, সেজন্যই কাজ করেন। তবে কি বলা যায়, শেখ হাসিনা যেভাবে কাজ করেন তাঁর দল সেভাবে কাজ করে না? এজন্যই তিনি দলকে আলাদা করেছেন? শেখ হাসিনা যদি আওয়ামী লীগকে ত্যাগ বা ব’র্জন করেন, তাহলে কি আওয়ামী লীগ অস্তিত্বের সং’কটে পড়বে না?

বাংলাইনসাইডার

শেয়ার করুন !
  • 1.3K
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!