দীর্ঘ ১ মাস পর মসজিদে মুসল্লিরা, স্বাস্থ্যবিধি মানার আগ্রহ নেই কারো

0

সময় এখন ডেস্ক:

নিষে’ধাজ্ঞা তুলে নেয়ায় ১ মাস পর বৃহস্পতিবার (৭ মে) মসজিদে জামাতে নামাজ আদায় করেছেন মুসল্লিরা। তবে নিষে’ধাজ্ঞা প্র’ত্যাহারের ক্ষেত্রে স্বাস্থ্যবিধিসহ বিভিন্ন শর্ত দেওয়া হলেও তা মানতে মুসল্লিদের মধ্যে আগ্রহ দেখা যায়নি। মাস্ক পড়ার কথা বলা হলেও অনেক মুসল্লি মাস্ক ছাড়াই মসজিদে উপস্থিত হয়েছেন, এক কাতার করে ছেড়ে পরবর্তী কাতার করার নির্দেশনাও কোথাও কোথাও মানা হয়নি।

বুধবার (৬ মে) এক জরুরি বিজ্ঞপ্তিতে জানায় ধর্ম মন্ত্রণালয় জানায়, বৃহস্পতিবার (৭ মে) জোহরের নামাজ থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সুস্থ মুসল্লিরা মসজিদে নামাজ আদায় করতে পারবেন। এর ১ মাস আগে ধর্ম মন্ত্রনালয় মুসল্লিদের ঘরে নামাজ পড়ার নির্দেশ দিয়েছিল।

এই নির্দেশনার পর বৃহস্পতিবার রাজধানীর সব মসজিদেই ‍মুসল্লিরা জোহরের নামাজে অংশ নিয়েছেন। মুসল্লিদের মসজিদে নামাজে অংশগ্রহণের শর্তের মধ্যে ছিল, মসজিদের গেটে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা রাখা। অনেক মসজিদেই সেই ব্যবস্থা দেখা গেছে। ওজুখানায় রাখা হয়েছে সাবান। এছাড়া, অনেক মসজিদের খাদেমকে মুসল্লিদের হাতে স্যানিটাইজার ছিটিয়ে দিতেও দেখা গেছে।

মসজিদে সব মুসল্লিদের মাস্ক পড়ার শর্ত দেওয়া হলেও অনেক মুসিল্লর মাস্ক পড়ার ক্ষেত্রে অ’নাগ্রহ দেখা গেছে। মসজিদের খাদেম বলার পর অনেকে পকেট থেকে বের করে মাস্ক মুখে দিয়েছেন।

করোনা ভাইরাসের কারণে ধর্ম মন্ত্রণালয় মসজিদে ৫ ওয়াক্ত নামাজ, জুমা এবং রমজান মাসের তারাবির নামাজ জামাতে সীমিত আকারে আদায়ের নির্দেশনা জারি করেছিল। এ সিদ্ধান্ত প্র’ত্যাহারের সময় বলা হয়েছিল, শিশু, বৃদ্ধ, যে কোনও অসুস্থ ব্যক্তি এবং অসুস্থদের সেবায় নিয়োজিত ব্যক্তি জামাতে অংশ নিতে পারবেন না। তবে প্রায় সব মসজিদেই বৃদ্ধদের জামাতে অংশ নিতে দেখা গেছে।

এছাড়া সব মসজিদ থেকে শর্ত মেনে কার্পেট সরানো হয়েছে। তবে অনেক মুসল্লি বাসায় ওজু করে সুন্নত নামাজ আদায় না করেই মসজিদে এসেছেন। রাজধানীর উত্তরা-১ নম্বর সেক্টর জামে মসজিদে অনেক মুসল্লিকে সুন্নতের নামাজ মসজিদে পড়তে দেখে ইমাম তাদের বাসায় ওযু করে ও সুন্নত নামাজ পড়ে আসার অনুরোধ করেন।

প্রসঙ্গত, দেশের আলেমরা রমজান মাসের গুরুত্ব বিবেচনা করে মসজিদে নামাজ আদায়ের শর্ত শিথিল করার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে দাবি জানিয়েছিলেন। সম্প্রতি সরকার সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে কিছু কিছু ক্ষেত্রে নিষে’ধাজ্ঞা শিথিল করেছে। এ পরিপ্রেক্ষিতে ১২টি শর্ত মেনে চলার শর্তে ৭ মে জোহরের ওয়াক্ত থেকে সুস্থ মুসল্লিরা মসজিদে নামাজ আদায় করতে পারবেন।

শর্তগুলো ছিল নিম্নরুপ:

১. মসজিদে কার্পেট বিছানো যাবে না। ৫ ওয়াক্ত নামাজের পূর্বে সম্পূর্ণ মসজিদ জীবানুনা’শক দ্বারা পরিস্কার করতে হবে, মুসল্লিরা সকলেই নিজ নিজ দায়িত্বে জায়নামাজ নিয়ে আসবেন।

২. মসজিদে প্রবেশদ্বারে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও হাত ধোয়ার ব্যবস্থাসহ সাবান পানি রাখতে হবে এবং আগত মুসল্লিকে অবশ্যই মাস্ক পরে মসজিদে আসতে হবে।

৩. প্রত্যেকে নিজ নিজ বাসা থেকে ওজু করে, সুন্নত নামাজ ঘরে আদায় করে মসজিদে আসতে হবে এবং ওজু করার সময় কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড সাবান দিয়ে হাত ধুতে হবে।

৪. কাতারে নামাজে দাঁড়ানোর ক্ষেত্রে সামাজিক দূরত্ব অর্থাৎ ৩ ফুট পর পর দাঁড়াতে হবে। এক কাতার অন্তর অন্তর কাতার করতে হবে।

৫. শিশু বয়স্ক, বয়বৃদ্ধ যে কোন অসুস্থ ব্যক্তি এবং অসুস্থদের সেবায় নিয়োজিত ব্যক্তি জামায়াতে অংশ নিতে পারবেন না। সংক্র’মণ ঠেকাতে মসজিদের ওজুখানায় সাবান ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার রাখতে হবে। মসজিদে সংরক্ষিত জায়নামাজ ও টুপি ব্যবহার করা যাবে না। সর্বসাধারণের সুরক্ষা নিশ্চিত করে, স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ, স্থানীয় প্রশাসন এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নির্দেশনা অবশ্যই অনুসরণ করতে হবে।

৬. মসজিদে ইফতার ও সেহরির আয়োজন করা যাবে না।

শেয়ার করুন !
  • 40
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!