করোনা যু’দ্ধের নেতৃত্বেও অসধারণ আমাদের মমতাময়ী প্রধানমন্ত্রী || ড. কাজী এরতেজা হাসান

0

মুক্তমঞ্চ ডেস্ক:

করোনা ভাইরাস এখন বিশ্ব মহামা’রী। ইতিমধ্যেই আক্রা’ন্ত হয়েছে প্রায় ২১২টি দেশ ও অঞ্চল। চীন থেকে ইতালি, যুক্তরাজ্য থেকে যুক্তরাষ্ট্র- কোথাও বাদ যায়নি ফ্লু জাতীয় এ ভাইরাসের ভ’য়ঙ্কর থাবা। গোটা বিশ্ব ঘুরে গত ৮ মার্চ শনাক্ত হয় বাংলাদেশে। ইতিমধ্যেই আক্রা’ন্তের সংখ্যা ১৬ হাজার ছাড়িয়েছে।

স্বীকার করতেই হবে, কঠিন এই পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রী ও বঙ্গবন্ধুকন্যা দেশরত্ন শেখ হাসিনা ও তাঁর সরকার যেভাবে ল’ড়াই করে যাচ্ছেন, তা নিঃসন্দেহে ৩য় বিশ্বের জন্য তো বটেই, উন্নত অনেক রাষ্ট্রের জন্যও অনুকরণীয় উদাহরণ। ছোট্ট একটি বিষয় টানলেই এ বক্তব্যের সার্থকতা খুঁজে পাওয়া যাবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা করোনা ভাইরাসের প্রা’দুর্ভাবের শুরুতেই দেশবাসীর উদ্দেশ্যে প্রাণঘা’তী করোনা ভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে ৩১ দফা নির্দেশনা প্রদান করেন। প্রাণঘা’তী করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে জনগণকে অবশ্য পালনীয় হিসেবে ৩১ দফা নির্দেশনা প্রদান করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রীর এ সকল নির্দেশনার মধ্যে রয়েছে- এই ভাইরাস সম্পর্কে সচেতনতা কার্যক্রম অ’ব্যাহত রাখা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা, করোনা উপসর্গ দেখা দিলে লুকিয়ে না রেখে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া, হোম কোয়ারান্টাইনে থাকা রোগীদের সঙ্গে মানবিক আচরণ, ত্রাণকার্যে স্বচ্ছতা বজায় রাখা এবং পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম জোরদার করা।

পাশাপাশি দরিদ্র জনগোষ্ঠীর তালিকা করে তাদের কাছে খাদ্য পৌঁছানো, উৎপাদন অ’ব্যাহত রাখার স্বার্থে জমি চাষ না করে ফেলে না রাখা, নববর্ষে সকল জনসমাগম বর্জন করা, বাজার মনিটরিং, গণমাধ্যম কর্মীদের যথাযথ দায়িত্ব পালন এবং গুজব ছড়ানো প্রতিরোধসহ জনগণ এবং প্রশাসনের জন্য ৩১ দফা নির্দেশনা রয়েছে।

করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৩১ দফা নির্দেশনাগুলো হচ্ছে-

১) করোনা ভাইরাস সম্পর্কে চিকিৎসা ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। এ ভাইরাস সম্পর্কিত সচেতনতা কার্যক্রম বাস্তবায়ন করতে হবে।
২) লুকোচুরির দরকার নেই, করোনা ভাইরাসের উপসর্গ দেখা দিলে ডাক্তারের শরণাপন্ন হোন।
৩) পিপিই সাধারণভাবে সবার পরার দরকার নেই। চিকিৎসা সংশ্লিষ্ট সবার জন্য পিপিই নিশ্চিত করতে হবে। এই রোগ চিকিৎসায় ব্যবহৃত পিপিই, মাস্কসহ সব চিকিৎসা সরঞ্জাম জীবাণুমুক্ত রাখা এবং ব’র্জ্য অপ’সারণের ক্ষেত্রে বিশেষ সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে।

৪) কোভিড-১৯ রোগের চিকিৎসায় নিয়োজিত সব চিকিৎসক, নার্স, ল্যাব টেকনিশিয়ান, পরিচ্ছন্নতাকর্মী, অ্যাম্বুলেন্স চালকসহ সংশ্লিষ্ট সবার স্বাস্থ্য সুরক্ষায় বিশেষ অগ্রাধিকার প্রদান করতে হবে।
৫) যারা হোম কোয়ারান্টাইন বা আইসোলেশনে আছেন, তাদের প্রতি মানবিক আচরণ করতে হবে।
৬) নিয়মিত হাত ধোয়া, মাস্ক ব্যবহার ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখাসহ এক্ষেত্রে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবেন।

৭) নদীবেষ্টিত জেলাগুলোতে নৌ-অ্যাম্বুলেন্সের ব্যবস্থা করতে হবে।
৮) অন্যান্য রোগে আক্রা’ন্তদের যথাযথ স্বাস্থ্য পরীক্ষা এবং চিকিৎসাসেবা অ’ব্যাহত রাখতে হবে।
৯) পরিচ্ছন্নতা নিশ্চত করা, সারাদেশের সব সিটি কর্পোরেশন, পৌরসভা ও উপজেলা পরিষদকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন কার্যক্রম আরও জোরদার করতে হবে।

১০) আইনশৃঙ্খলা বিষয়ে দৃষ্টি দিতে হবে। জাতীয় এ দুর্যোগে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ, প্রশাসন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, সশ’স্ত্র বাহিনী বিভাগসহ সব সরকারি কর্মকর্তা যথাযথ ও সুষ্ঠু সমন্বয়ের মাধ্যমে কাজ করে যাচ্ছেন, এ ধারা অ’ব্যাহত রাখতে হবে।
১১) ত্রাণকাজে কোনো ধরনের দুর্নীতি সহ্য করা হবে না।
১২) দিনমজুর, শ্রমিক, কৃষক যেন অ’ভুক্ত না থাকে। তাদের সাহায্য করতে হবে। খেটে খাওয়া দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য অতিরিক্ত তালিকা তৈরি করতে হবে।

১৩) সোশ্যাল সেফটি-নেট কার্যক্রম অ’ব্যাহত থাকবে।
১৪) অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড যেন স্থ’বির না হয়, সে বিষয়ে যথাযথ নজর দিতে হবে।
১৫) খাদ্য উৎপাদন ব্যবস্থা চালু রাখতে হবে, অধিক ফসল উৎপাদন করতে হবে। খাদ্য নিরাপত্তার জন্য যা যা করা দরকার করতে হবে। কোনো জমি যেন পতিত না থাকে।

১৬) সরবরাহ ব্যবস্থা বজায় রাখতে হবে, যাতে বাজার চালু থাকে।
১৭) সাধারণ কার্যক্রম অ’ব্যাহত থাকবে। দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে ।
১৮) জনস্বার্থে বাংলা নববর্ষের সব অনুষ্ঠান বন্ধ রাখতে হবে, যাতে জনসমাগম না হয়। ঘরে বসে ডিজিটাল পদ্ধতিতে নববর্ষ উদযাপন করতে হবে।

১৯) স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতা, সমাজের সব স্তরের জনগণকে একযোগে কাজ করার আহ্বান জানাচ্ছি। প্রশাসন সবাইকে নিয়ে কাজ করবে।
২০) সরকারের পাশাপাশি সমাজের বিত্তশালী ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সঙ্গে সমন্বয় করে ত্রাণ ও স্বাস্থ্যসেবা কার্যক্রম পরিচালনা করবে।
২১) জনপ্রতিনিধি ও উপজেলা প্রশাসন ওয়ার্ডভিত্তিক তালিকা প্রণয়ন করে দুঃস্থদের মধ্যে খাবার বিতরণ করবে।

২২) সমাজের সবচেয়ে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী, যেমন- কৃষি শ্রমিক, দিনমজুর, রিক্সা/ভ্যান চালক, পরিবহন শ্রমিক, ভিক্ষুক, প্রতিব’ন্ধী, পথশিশু, স্বামী পরিত্যা’ক্তা/বিধবা নারী এবং হিজড়া সম্প্রদায়ের প্রতি বিশেষ নজর রাখাসহ ত্রাণ সহায়তা প্রদান নিশ্চিত করতে হবে।
২৩) প্রবীণ নাগরিক ও শিশুদের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।
২৪) দুর্যোগ বিষয়ক স্থায়ী আদেশাবলী (এসওডি) যথাযথভাবে প্রতিপালনের জন্য সব সরকারি কর্মচারী ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।

২৫) নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের উৎপাদন, সরবরাহ ও নিয়মিত বাজারজাতকরণ প্রক্রিয়া মনিটরিংয়ের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।
২৬) আত’ঙ্কিত হয়ে অতিরিক্ত পণ্য ক্রয় করবেন না। খাদ্যশস্যসহ প্রয়োজনীয় সব পণ্যের পর্যাপ্ত মজুদ রয়েছে।
২৭) কৃষকরা নিয়মিত চাষাবাদ চালিয়ে যাবেন। এক্ষেত্রে সরকারি প্রণোদনা অ’ব্যাহত থাকবে।

২৮) সব শিল্প মালিক, ব্যবসায়ী ও ব্যক্তি পর্যায়ে নিজ নিজ শিল্প ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং বাড়িঘর পরিষ্কার রাখবেন।
২৯) শিল্প মালিকরা শ্রমিকদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে নিজেদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করে উৎপাদন অ’ব্যাহত রাখবেন।

৩০) গণমাধ্যম কর্মীরা জনসচেতনতা সৃষ্টিতে যথাযথ ভূমিকা পালন করে চলেছেন। এক্ষেত্রে বিভিন্ন ধরনের গুজব ও অ’সত্য তথ্য যাতে বিভ্রা’ন্তি ছড়াতে না পারে, সেদিকে সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে।
৩১) গুজব রটানো বন্ধ করতে হবে। ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে নানা গুজব রটানো হচ্ছে। গুজবে কান দেবেন না এবং বিচলিত হবেন না।

কোভিড-১৯-এ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ যেখানে সংক্র’মণ সংখ্যা ও তাদের অর্থনীতি নিয়ে তটস্থ হয়ে পড়েছে; প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেখানে হাজার হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা ঘোষণা করে বাংলার দুঃখী মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। যুক্তরাজ্য ও সৌদি আরবের মতো দেশ যখন বেসরকারি খাতের কর্মীদের যথাক্রমে ৮০% ও ৬০% ভাগ বেতন প্রদানের কথা জানিয়েছেন; বাংলাদেশ তখন আপৎকালীন ৫ হাজার কোটি বরাদ্দের মাধ্যমে সব গার্মেন্ট শ্রমিকের বেতন ১০০% দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে। এরপর আরও ৪টি খাতে ঘোষণা করেন ৬৭ হাজার ৭৫০ কোটি টাকার প্যাকেজ। সব মিলিয়ে ৫টি প্যাকেজে বাংলাদেশ সরকারের আর্থিক সহায়তার পরিমাণ ৯২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকা, যা মোট জিডিপির প্রায় ২.৫০ শতাংশের বেশি। এ ছাড়া এ অবস্থা থেকে উত্তরণে সহায়তার পদক্ষেপ হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর তাৎক্ষণিক স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি করণীয়সংক্রান্ত পরিকল্পনাও সর্বত্র প্রশংসা কুড়াচ্ছে।

এ তো গেল আর্থিক প্রণোদনা; আরও কী কী কারণে করোনা সং’কট মোকাবেলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভূমিকা অনন্য ও অন্যান্য রাষ্ট্রের জন্য উদাহরণ- সে ব্যাখ্যায় পরে আসব; তার আগে জানি, এই জাতীয় মহামা’রী দম’নে সরকার তথা মানুষের হাতে কতটুকু ক্ষমতা থাকে?

এছাড়া, বাংলাদেশে করোনা আসার আগেই জাতীয়, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে কমিটি হয়েছিল। এর মধ্যে উপজেলা পর্যায়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে সভাপতি এবং ওসিসহ গুরুত্বপূর্ণ অন্যান্য কর্মকর্তার সমন্বয়ে ১০ সদস্যবিশিষ্ট একটি কমিটি; জেলা পর্যায়ে জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, সিভিল সার্জনসহ ১১ সদস্যের আর একটি কমিটি এবং স্বাস্থ্যমন্ত্রী নিজে সভাপতি হয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্যসচিব, অন্যান্য মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট সিনিয়র সচিব, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বাংলাদেশ প্রতিনিধি, এডিবি, ইউনিসেফ, ইউএসএআইডি, ওয়ার্ল্ড ব্যাংক প্রতিনিধিসহ ৩১ সদস্যের একটি শক্তিশালী কমিটি গঠন করা হয়। কমিটিগুলো যখন যেখানে যে উদ্যোগ প্রয়োজন, তা দ্রুততার সঙ্গে সম্পন্ন করছে।

বৈশ্বিক এই মহামা’রী বাংলাদেশ থেকে দূর করতে বীরচিত্তে একের পর এক উদ্যোগ নিয়ে যাচ্ছেন ব্যক্তি প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা। প্রায় প্রতিনিয়ত ভিডিও কনফারেন্স করছেন মন্ত্রিপরিষদ, বিভাগ, জেলা এমনকি অনেক ক্ষেত্রে উপজেলা পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে। এ ছাড়া ৮ মার্চ দেশে প্রথম রোগী শনাক্ত হওয়ার পর থেকে নানামুখী উদ্যোগ নিয়েছেন। এ ক্ষেত্রে স্থ’গিত করেছেন বিশ্বনেতাদের নিয়ে আয়োজিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকীর অনুষ্ঠান; যা শেখ হাসিনাসহ বঙ্গবন্ধু পরিবারের আবেগের অনুষ্ঠান তো বটেই, গোটা বাঙালি জাতির কাছেও প্রাণের উৎসব ছিল। বাতিল করেছেন ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসের আয়োজন, বাঙালির পয়লা বৈশাখ। ছোটখাট আরও অনেক আনুষ্ঠানিকতা তো রয়েছেই।

২৫ মার্চ স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে প্রথমবারের মতো করোনা ইস্যুতে ভাষণ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেদিন দেশে করোনা সংক্র’মিত রোগীর সংখ্যা ছিল ৩৯। অথচ জাতির উদ্দেশে দেওয়া ওই বক্তৃতার দুই তৃতীয়াংশই ছিল কোভিড-১৯ সমস্যা ও উত্তরণের উপায় নিয়ে। সেদিনই তিনি আহ্বান জানান, করোনা ভাইরাসের কারণে অনেক মানুষ কাজ হারিয়েছেন। তাদের পাশে দাঁড়াতে হবে। ওইদিন বিনামূল্যে ভিজিডি, ভিজিএফ ও ১০ টাকা কেজি দরে চাল সরবরাহ কর্মসূচি অ’ব্যাহত রাখার ঘোষণা দেন তিনি। যা আজও চলছে। ৫০ লাখ কার্ডধারীর সংখ্যা বাড়িয়ে আরও ৫০ লাখ কার্ডধারী অর্থাৎ ১ কোটি মানুষকে এই সুবিধার আওতায় আনা হয়েছে।

রপ্তানিমুখী শিল্পপ্রতিষ্ঠানের জন্য সেদিন ৫ হাজার কোটি টাকার বিশেষ প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেন শেখ হাসিনা। যা দ্বারা কেবল শ্রমিক, কর্মচারীর বেতন ভাতা পরিশো’ধ করার কথা বলা হয়। রপ্তানি আয় আদায়ের সময়সীমা বৃদ্ধি করা হয় ২ মাস থেকে ৬ মাস। একইভাবে আমদানি ব্যয় মেটানোর সময়সীমা বাড়ানো হয় ৪ থেকে ৬ মাস। মোবাইল ব্যাংকিংয়ে আর্থিক লেনদেনের সীমা বাড়ানোর কথা বলা হয়। এর বাইরেও বিদ্যুৎ, পানি ও গ্যাস বিল পরিশো’ধের সময়সীমা সারচার্জ বা জরি’মানা ছাড়া জুন পর্যন্ত বৃদ্ধির কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এনজিওগুলোর ঋ’ণের কিস্তি পরিশো’ধ সাময়িক স্থ’গিত করার কথাও তিনি বলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দ্বিতীয়বারের মতো জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেন ১৩ এপ্রিল। এদিন করোনা আক্রা’ন্ত রোগী, চিকিৎসক, দিনমজুর, মধ্যবিত্তসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, শিল্পপ্রতিষ্ঠান ও কৃষি খাত- সব ক্ষেত্রে আলাদা আলাদা প্রণোদনা ঘোষণা করেন। চিকিৎসক, নার্সসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মী- যারা মৃ’ত্যু ঝুঁ’কি উ’পেক্ষা করে সামনে থেকে করোনা ভাইরাস আক্রা’ন্ত রোগীদের চিকিৎসাসেবা দিয়ে যাচ্ছেন, তাদের জন্য তিনি বিশেষ সম্মানীর কথা জানান। বরাদ্দ দেন ১০০ কোটি টাকা। চিকিৎসক, নার্স ছাড়াও মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তা, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য, সশ’স্ত্র বাহিনী ও বিজিবি সদস্য এবং প্রত্যক্ষভাবে নিয়োজিত প্রজাতন্ত্রের অন্যান্য কর্মচারীর জন্য বিশেষ বিমার ব্যবস্থা করা হচ্ছে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, দায়িত্ব পালনকালে যদি কেউ আক্রা’ন্ত হন, তাহলে পদমর্যাদা অনুযায়ী প্রত্যেকের জন্য ৫ থেকে ১০ লাখ টাকার স্বাস্থ্য বিমা এবং মৃ’ত্যুর ক্ষেত্রে তা ৫ গুণ বৃদ্ধি পেয়ে ৫০ লাখ করা হবে। স্বাস্থ্য বিমা ও জীবন বিমা বাবদ বরাদ্দ রাখেন ৭৫০ কোটি টাকা।

বিদ্যমান সামাজিক সুরক্ষা কার্যক্রমসমূহ অ’ব্যাহত রাখার পাশাপাশি করোনা ভাইরাসের কারণে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর সুরক্ষায় বেশ কয়েকটি কর্মসূচি গ্রহণের কথা জানান প্রধানমন্ত্রী। এর মধ্যে রয়েছে- (১) স্বল্প-আয়ের মানুষকে বিনামূল্যে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করার জন্য ৫ লাখ মেট্রিক টন চাল ও ১ লাখ মেট্রিক টন গম বরাদ্দ। যার মূল্যমান ২ হাজার ৫০৩ কোটি টাকা। (২) শহরাঞ্চলে বসবাসরত নিম্ন আয়ের জনগোষ্ঠীর জন্য ওএমএসের আওতায় ১০ টাকা কেজি দরে চাল বিক্রয় কার্যক্রম চালু। আগামী ৩ মাস ধরে চলা এ কার্যক্রমের আওতায় ৭৪ হাজার মেট্রিক টন চাল বিতরণ করা হবে। এজন্য ভর্তুকি দেওয়া হবে ২৫১ কোটি টাকা। (৩) দিনমজুর, রিকশা বা ভ্যানচালক, মোটরশ্রমিক, নির্মাণশ্রমিক, পত্রিকার হকার, হোটেল শ্রমিকসহ অন্যান্য পেশার মানুষ যারা দীর্ঘ ছুটি বা আংশিক লকডাউনের ফলে কাজ হারিয়েছেন; তাদের নামের তালিকা ব্যাংক হিসাবসহ দ্রুত তৈরির করার নির্দেশ দেওয়া হয়। এ তালিকা প্রণয়ন সম্পন্ন হলে এককালীন নগদ অর্থ সরাসরি তাদের ব্যাংক হিসাবে পাঠানো হবে। এ খাতে বরাদ্দ হয় ৭৬০ কোটি টাকা। (৪) সামাজিক সুরক্ষা কার্যক্রমের আওতায় পরিচালিত ‘বয়স্ক ভাতা’ ও ‘বিধবা ও স্বামী নি’গৃহীতা মহিলাদের জন্য ভাতা’ কর্মসূচির আওতা সর্বাধিক দারিদ্র্যপ্রবণ ১০০ উপজেলায় শতভাগে উন্নীত করার কথা বলা হয়। বাজেটে এর জন্য বরাদ্দের পরিমাণ ৮১৫ কোটি টাকা। এবং (৫) জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে গৃহীত অন্যতম কার্যক্রম গৃহহীন মানুষের জন্য গৃহনির্মাণ কর্মসূচি দ্রুত বাস্তবায়ন। এ বাবদ সর্বমোট বরাদ্দ হয় ২ হাজার ১৩০ কোটি টাকা।

শিল্প খাতে যেসব আর্থিক প্যাকেজ গ্রহণ করা হয়েছে তার মধ্যে রয়েছে- ক্ষ’তিগ্রস্ত শিল্প ও সার্ভিস সেক্টরের প্রতিষ্ঠানসমূহের ওয়ার্কিং ক্যাপিটালের জন্য ৩০ হাজার কোটি টাকা, অতি-ক্ষুদ্র, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পপ্রতিষ্ঠানসমূহের ওয়ার্কিং ক্যাপিটালের জন্য ২০ হাজার কোটি টাকা এবং রপ্তানিমুখী শিল্পপ্রতিষ্ঠানসমূহের জন্য বিশেষ তহবিল বাবদ ৫ হাজার কোটি টাকার ঋ’ণ সুবিধা। করোনা দুর্যোগকালীন অ’সহায়, দিনমজুর, নিম্নবিত্ত, মধ্যবিত্ত, উচ্চবিত্তসহ সব শ্রেণি-পেশার মানুষের জন্য এমন গোছানো চমৎকার প্রণোদনা প্যাকেজ বিশ্বের আর কয়টি দেশে ঘোষিত হয়েছে; তা নিশ্চয়ই ভাববার বিষয়।

বাস্তবিক অর্থে সংক্রা’মক রোগ কোনো যু’দ্ধক্ষেত্র নয়। যখন এটা ভ’য়াবহ আকার ধারণ করে, তখন সেটাকে মহামা’রী বলে। বাংলাদেশে তা দ্রুত বাড়ছে। তার পরও গোটা বিশ্বের সঙ্গের তুলনা করলে আমাদের মৃ’ত্যুর হার এখনো অনেক কম। লকডাউন, কোয়ারান্টাইন, আইসোলেশন, সোশ্যাল ডিসট্যান্সসহ জননেত্রী শেখ হাসিনার নানামুখী নির্দেশনায় তা এখনো স্বাভাবিক পর্যায়ে। বলতেই হয়, ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে তিনি (শেখ হাসিনা) যেভাবে প্রতিনিয়ত প্রতিটি বিভাগ ও জেলার স্বাস্থ্যব্যবস্থাকে আগলে রেখেছেন; তা সত্যিকার অর্থেই অত্যন্ত প্রশংসনীয়, অন্যদের জন্য অনুকরণীয়। পৃথিবীর আর কোনো রাষ্ট্রনেতা এভাবে নিয়মিত ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রতি মুহূর্তে দিকনির্দেশনা দিয়ে যাচ্ছেন কি না, তা আমার জানা নেই। ব্যক্তি শেখ হাসিনা নিজেই তৃণমূল পর্যন্ত সম্পৃক্ত আছেন। মুহূর্তে সমস্যা জানা ও সমাধানের এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। আপৎকালে প্রশাসন পরিচালনায় এটা একটি অভিনব দৃষ্টান্ত।

বিনামূল্যে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ; ১০ টাকা কেজি দরে চাল বিক্রয়; নির্দিষ্ট জনগোষ্ঠীর মধ্যে অর্থ বিতরণ; বয়স্ক ভাতা ও বিধবা বা স্বামী নি’গৃহীতাদের ভাতার আওতা সর্বাধিক দারিদ্র্যপ্রবণ এলাকায় শতভাগে উন্নীত করা; এবং জাতির পিতার জন্ম শতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে গৃহীত অন্যতম কার্যক্রম গৃহহীন মানুষের জন্য গৃহনির্মাণ- সামাজিক সুরক্ষা কার্যক্রমের এই কর্মসূচিগুলো করোনা পরিস্থিতিতে অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে বাস্তবায়ন করছেন বঙ্গবন্ধুকন্যা। ১০ টাকায় চাল পেতে নতুন ৫০ লাখ রেশন কার্ডসহ মোট ১ কোটি রেশন কার্ডের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এতে করে ১ কোটি পরিবারের ৫ কোটি মানুষের খাদ্যনিরাপত্তা নিশ্চিত হয়েছে। চলতি মে মাস থেকে ৫০ লাখ পরিবারকে ২০ কেজি করে চাল দেওয়ার কার্যক্রম শুরু করেছে সরকার। ২৬ মার্চ থেকে এ পর্যন্ত ৬৮ কোটি টাকার নগদ অর্থসহায়তা এবং ১ লাখ ২৪ হাজার মেট্রিক টন খাদ্যসাহায্য পৌঁছে দেওয়া হয়েছে নিম্নআয় ও কর্মহীন মানুষের মধ্যে। অন্যদিকে, শিশুখাদ্য-সহায়ক হিসেবে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে ১২ কোটি ৪৫ লাখ টাকা। দেশব্যাপী এ পর্যন্ত ৪ কোটি ৭ লাখ ৪০ হাজার মানুষকে ত্রাণ দিয়েছে সরকার।

ডায়নামিক রাজনীতিবিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্ভাব্য অর্থনৈতিক নে’তিবাচক প্রভাব মোকাবেলায় ইতিমধ্যে প্রায় ১ লাখ কোটি টাকার বিভিন্ন প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন; যা জিডিপির ৩.৫ শতাংশ। পোশাকশ্রমিকদের শতভাগ বেতন নিশ্চিত করতে তিনি ৫ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন। কৃষি ও কৃষকের জন্য ৫ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা তহবিল গঠন করেছেন তিনি। আগামী বাজেটে ৯ হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি বাবদ বরাদ্দ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। বোরো মৌসুমে রেকর্ড পরিমাণ ২১ লাখ মেট্রিক টন খাদ্যশস্য সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। তাছাড়া সহজ শর্তে, জামানত ছাড়াই নিম্নআয়ের পেশাজীবী, কৃষক ও প্রান্তিক বা ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের জন্য ৩ হাজার কোটি টাকার ঋ’ণ কর্মসূচি নিয়েছে সরকার। সারাদেশের কওমি মাদ্রাসাগুলোতে ৮ কোটি ৩১ লাখ ২৫ হাজার টাকার আর্থিক সহায়তা দেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী করোনা ভাইরাস দুর্যোগে সব ধরনের ঋ’ণের সুদ আদায় ২ মাস বন্ধ রাখবে ব্যাংকগুলো।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সম্মুখ সারির যো’দ্ধা চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রতিনিয়ত অনুপ্রেরণা জুগিয়ে চলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রত্যক্ষভাবে করোনায় আক্রা’ন্ত রোগীদের নিয়ে কাজ করা স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য বিশেষ পুরস্কার ও প্রণোদনা ঘোষণা করেছেন তিনি। এজন্য ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া, এই ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে ডাক্তার, সব ধরনের স্বাস্থ্যকর্মী, মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তা, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য, সশ’স্ত্র বাহিনী ও বিজিবির সদস্য ও প্রত্যক্ষভাবে নিয়োজিত প্রজাতন্ত্রের অন্যান্য কর্মচারীর জন্য বিশেষ বিমার ব্যবস্থা করেছেন প্রধানমন্ত্রী। দায়িত্ব পালনকালে যদি কেউ আক্রা’ন্ত হন, তাহলে পদমর্যাদা অনুযায়ী প্রত্যেকের জন্য থাকছে ৫ থেকে ১০ লাখ টাকার স্বাস্থ্যবিমা এবং মৃ’ত্যুর ক্ষেত্রে এর পরিমাণ ৫ গুণ বৃদ্ধি পাবে। স্বাস্থ্যবিমা ও জীবনবিমা বাবদ বরাদ্দ রাখা হয়েছে ৭৫০ কোটি টাকা।

এই চরম দুঃসময়েও বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া ১২ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থীর কথা ভোলেননি মাদার অব হিউম্যানিটি শেখ হাসিনা। সার্বিক পরিকল্পনায় আশ্রিত রোহিঙ্গাদেরও তিনি অন্তর্ভুক্ত করেন।

লেখক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
পরিচিতি: সম্পাদক ও প্রকাশক, দৈনিক ভোরের পাতা ও ডেইলি পিপলস টাইম। পরিচালক, এফবিসিসিআই।

শেয়ার করুন !
  • 532
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!