কার হাতে উঠছে মাশরাফির ব্রেসলেট? আগ্রহী গ্রামীণফোনসহ দু’টি ব্যাংক

0

স্পোর্টস ডেস্ক:

দুই-এক বছর নয়, দীর্ঘ ১৮ বছরের সঙ্গী। ডান হাতে সব সময়ই ব্রেসলেটটা পরে থাকেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। করোনা ভাইরাসে অ’সহায়দের সাহায্যে প্রিয় এই ব্রেসলেটটি নিলামে তুলছেন বাংলাদেশ ক্রিকেটের অন্যতম সেরা এই অধিনায়ক।

‘অকশন ফর অ্যাকশনের’ ফেসবুক পেজ থেকে নিলামটি অনুষ্ঠিত হবে। নিলাম শেষ হবে আজ রোববার রাত সাড়ে ১০টায় শুরু হওয়া লাইভে। ব্রেসলেটটির ভিত্তিমূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ৫ লাখ টাকা। নিলাম থেকে পাওয়া পুরো অর্থ করোনা ভাইরাস দু’র্গতদের সাহায্যে খরচ করা হবে।

ক্যারিয়ারের শুরুতে এই ব্রেসলেটটি ছিল না মাশরাফির। তখন বাংলাদেশ লেখা রিস্ট ব্যান্ড পরতেন তিনি। এরপর ইস্পাতের (স্টিল) তৈরি এই ব্রেসলেটটি পরা শুরু করেন জাতীয় দলের সাবেক এই অধিনায়ক। ব্রেসলেটটিতে খোদাই করে মাশরাফির নাম লেখা রয়েছে।

এ নিয়ে মাশরাফি তার অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে লিখেছেন, বিশ্বের এই সং’কটময় সময়ে বাংলাদেশের মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য নিলামে তুলতে যাচ্ছি আমার ১৮ বছরের পুরনো সাথী, আমার অতি প্রিয় ব্রেসলেট। যার অর্থ চলে যাবে নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনে গরীব দুঃস্থ মানুষের সাহায্যের জন্য।

যদিও নিলামের আগেই মাশরাফির ব্রেসলেট কেনার ব্যাপারে আগ্রহ দেখিয়েছেন গ্রামীণফোন ও দুটি বেসরকারি ব্যাংক। ‘অকশন ফর অ্যাকশনে’র কর্মকর্তা আরিফ হোসেন এ ব্যাপারে বলেছেন, আমরা মাশরাফির ব্রেসলেটের নিলাম নিয়ে খুব উৎসাহী। ব্যাপক সাড়া পেয়েছি এরই মধ্যে। নিলাম শুরুর আগেই আমরা গ্রামীণফোনের কাছ থেকে সাড়া পেয়েছি। গ্রামীণফোনের সঙ্গে দুটি বেসরকারি ব্যাংকও চাইছে মাশরাফির দীর্ঘদিনের সঙ্গী হাতের ব্রেসলেটটি নিলামে কিনে নিতে। আমার অবশ্য নিলাম প্রক্রিয়া শেষেই বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করবো।

করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় শুরু থেকেই কাজ করে আসছেন নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য মাশরাফি ও তার ‘নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশন’। সরকারি অনুদান ছাড়াও নিজ অর্থায়নে বিভিন্নভাবে সাহায্য করে আসছেন তিনি। করোনার প্রভাব বিস্তারে কয়েকদিনের মধ্যেই কর্মহীন হয়ে পড়েন নড়াইলের রিক্সা-ভ্যানচালক, রাস্তার পাশের চা বিক্রেতা, হকাররা। এমন ৩শ পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দেন মাশরাফি।

এরপর কর্মহীন মানুষদের সাহায্যে বিসিবি থেকে পাওয়া ১ মাসের বেতনের অর্ধেকটা দান করেন মাশরাফি। ক’দিন পর নিজ অর্থায়নে নড়াইলে ১ হাজার ২০০ পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দেন তিনি।

ডাক্তার ও সংবাদকর্মীদের সুরক্ষায় নিজ অর্থায়নে নড়াইলের ডাক্তার ও সংবাদকর্মীদের জন্য ৫০০ পিপিই (পার্সোনাল প্রটেকশন ইক্যুয়েপমেন্ট) দেন মাশরাফি। এ ছাড়া বাড়ি বাড়ি গিয়ে সাধারণ রোগীদের চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছে তার নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল টিম।

নড়াইল সদর হাসপাতালের গেটে জীবাণুনা’শক কক্ষ স্থাপন করেছে মাশরাফির নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশন। সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে যাওয়া রোগী, চিকিৎসক, নার্স, সাংবাদিক, অ্যাম্বুলেন্স চালকসহ অন্যান্যদের সুরক্ষা নিশ্চিতের লক্ষ্যে এটি স্থাপন করা হয়েছে।

নড়াইল ডিস্ট্রিক্ট জেলের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং কয়েদিদের পাশেও দাঁড়িয়েছেন মাশরাফি। তাদের নিরাপত্তার স্বার্থে সাবান, মাস্ক, গ্লাভস এবং স্যানিটাইজার বিতরণ করেছেন তিনি।

এরপর তামিম, মুশফিক, সাকিব, মাহমুদউল্লাহর সঙ্গে মিলে টিম বয়দের ১ লাখ টাকা করে দেন মাশরাফি। সর্বশেষ নিজের বহুদিনের সঙ্গী প্রিয় ব্রেসলেটটি মাতবতার সেবায় উৎসর্গ করলেন জাতীয় দলের অভিজ্ঞ এই ক্রিকেটার।

শেয়ার করুন !
  • 28
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!