প্রস্রাব দিয়ে বাড়ি বানানো হবে চাঁদে!

0

বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তি ডেস্ক:

চাঁদে আবাস গড়া যাবে কিনা- এ নিয়ে মানুষ বিস্তর গবেষণা করেছে। তবে এখনো সফল হয়নি। সম্প্রতি এ সংক্রান্ত এক গবেষণায় অদ্ভুত তথ্য দিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। চাঁদে কংক্রিটের কিছু তৈরি করতে গেলে তাতে প্রয়োজন হবে মানুষের প্রস্রাব। এমনটাই জানিয়েছে ইউরোপীয় স্পেস এজেন্সি।

এজেন্সিটির গবেষণা অনুসারে, প্রস্রাবের মধ্যে পাওয়া প্রধান জৈব যৌগটি চূড়ান্ত আকারে শক্ত হওয়ার আগে চাঁদের কংক্রিটের মিশ্রণটিকে পোক্ত করবে। চাঁদের কংক্রিটের একটি জিওপলিমারের মিশ্রণ, যা কংক্রিটের অনুরূপ। গবেষণায় দেখা গেছে, এ মিশ্রণে ইউরিয়াযুক্ত পানির প্রয়োজন, যা অন্যান্য উপাদানের চেয়ে ভালো কাজ করবে।

একটি থ্রি-ডি প্রিন্টার ব্যবহার করে ইউরিয়া দিয়ে একটি মডেল তৈরি করা হয়েছে, যা শক্তিশালী প্রমাণিত হয়েছে এবং উন্নত কার্যক্ষমতাও বজায় রেখেছে। ইউরোপীয় স্পেস মিশ্রণের একটি গুণ হলো সহজেই মিশে যেতে পারে, যা দিয়ে ঢালাই করা সম্ভব এবং এটি নিজের চেয়ে ১০ গুণ ওজনের ভারী কিছু বহন করতে পারবে বলে জানিয়েছেন গবেষকরা।

গবেষণার উদ্যোগী এবং সহ-লেখক মার্লিস আরনহফ জানিয়েছেন, চাঁদের বিশেষ ধরনের মাটির গুঁড়ো বা ধুলো রেগোলিথ সেখানে কংক্রিট তৈরির অন্যতম উপাদান হতে পারে। এটি চাঁদের পৃষ্ঠের সব জায়গায় পাওয়াও যায়। কাজেই পৃথিবী থেকে বিপুল পরিমাণে কংক্রিট নির্মাণের সামগ্রী পাঠানোর প্রয়োজন হবে না। অন্যদিকে ইউরিয়া সুপার প্লাস্টিকাইজার হিসেবে কাজ করার ফলে প্রয়োজনীয় পানিও কম লাগবে।

ম্যালেরিয়াকে ‘পুরোপুরি থামানোর’ কৌশল উদ্ভাবন

করোনা ভাইরাসের সফল কোনও ভ্যাক্সিন বের না হলেও ম্যালেরিয়ার চিকিৎসায় স্বস্তির কথা শোনালেন বিজ্ঞানীরা। অণুজীব দিয়ে ম্যালেরিয়ার সংক্র’মণ ‘পুরোপুরি থামানোর’ উপায় বের করার দাবি তুলেছেন কেনিয়া এবং যুক্তরাষ্ট্রের বিজ্ঞানীরা। এই পদ্ধতিতে তারা রোগটি থেকে পুরোপুরি মুক্তির ‘প্রচুর সম্ভাবনা’ দেখছেন।

বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, সংক্র’মণের হাত থেকে মশাদের রক্ষার একটি পদ্ধতি আবিষ্কার করেছেন বিজ্ঞানীরা। তারা বলছেন, মশা সংক্র’মিত না হলে তাদের কা’মড় থেকে মানুষও সংক্র’মিত হবে না। ম্যালেরিয়া ঠেকানোর এ জীবাণুর নাম ‘মাইক্রোস্পরিডিয়া এমবি’। কেনিয়ার লেক ভিক্টোরিয়া উপকূলে মশা নিয়ে গবেষণা করার সময় এটি আবিষ্কার করেন গবেষকেরা। এটি পোকামাকড়ের অন্ত্র ও জন’নকেন্দ্রে বাস করে।

গবেষকরা দেখতে পান, যে মশার দেহে মাইক্রোস্পরিডিয়া এমবি আছে, সে মশাকে ম্যালেরিয়ার জীবাণু আক্রা’ন্ত করতে পারে না। পরে ল্যাবরেটরির পরীক্ষাতেও তারা এর প্রমাণ পান বলে বিজ্ঞান সাময়িকী নেচার কমিউনিকেশনসে প্রকাশিত এক নিবন্ধে তারা উল্লেখ করেছেন।

প্রতিবছর ম্যালেরিয়ায় ৪ লাখের বেশি মানুষ মা’রা যায়। তাদের বেশির ভাগই ৫ বছরের কম বয়সী শিশু।

কেনিয়ার ইন্টারন্যাশনাল সেন্টার ফর ইনসেক্ট ফিজিওলজি অ্যান্ড ইকোলজির গবেষক ড. জেরেমি হেরেন বিবিসিকে বলেছেন, মাইক্রোস্পরিডিয়া এমবি মশাকে ম্যালেরিয়ার হাত থেকে শতভাগ সুরক্ষা দিচ্ছে বলে তারা ল্যাবরেটরি পরীক্ষায় দেখেছেন।

‘আমাদের এখন পর্যন্ত যে তথ্য রয়েছে, তা শতভাগ ম্যালেরিয়া ঠেকানোর কথা বলে। এটি ম্যালেরিয়া ঠেকানোর মোক্ষম হা’তিয়ার। এর কর্মকাণ্ড অবাক করে দেবে। আমি মনে করি, মানুষ একে একটি সত্যিকারের বড় সাফল্য বলে মনে করবে।’

শেয়ার করুন !
  • 44
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!