তামিমকে নিজের ধারাবাহিকতার কৌশল জানালেন কোহলি

0

স্পোর্টস ডেস্ক:

লকডাউন লাইভে তামিম ইকবালের লাইভে অতিথি ছিলেন বিরাট কোহলি। ভারতের অধিনায়ককে কাছে পেয়ে ব্যাটিং নিয়ে যাবতীয় খুঁটিনাটি প্রশ্ন করেন তামিম।

বাংলাদেশের নব্য ওয়ানডে অধিনায়ককে ব্যাটিংয়ের বিভিন্ন কৌশল সম্পর্কে বলেন কোহলি। সময়ের সেরা এই ব্যাটসম্যান কথা বলেছেন নিজের ধারাবাহিকতা নিয়েও।

নিজের খেলাকে অনবরত পরিবর্তন করতে থাকেন কোহলি। যার কারণে প্রতিপক্ষ তাকে ভালোমতো বুঝে উঠতে পারে না। প্রতিপক্ষের সমস্ত পরিকল্পনাকে ভে’স্তে যেতে দেন কোহলি।

তামিমকে তিনি বলেন, আমি একটা জিনিস বুঝতে পেরেছি, সবসময় একভাবে খেলা উচিৎ না। অনেক ক্রিকেটার আছে যাদের মাইন্ডসেট এমনই। যারা বলে, আমি এভাবেই খেলি। কিন্তু এভাবে চললে প্রতিপক্ষ আপনাকে অল্প সময়ের মধ্যে পড়ে ফেলবে। তাই আপনাকে খেলার আরও সামনে চিন্তা করতে হবে। এভাবেই আপনি আরও ধারাবাহিক হতে পারবেন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এখন পর্যন্ত ৭০টি সেঞ্চুরি করেছেন ৩১ বছর বয়সী কোহলি। শচিন টেন্ডুলকারের ১০০ সেঞ্চুরির রেকর্ড ভেঙে ফেলার অপেক্ষায় তিনি। নিজের ব্যাটিংয়ে উন্নতির জন্য সর্বদাই কোচের পরামর্শ নেন ভারতের এই মেগাস্টার।

তিনি আরও বলেন, আমি মনে করি খেলা পরিবর্তন করার জন্য আপনাকে প্রস্তুত থাকতে হবে। যে কোনো ব্যাটসম্যানের এই ব্যাপারে নিবেদন থাকা উচিৎ। আগে খেলাটা একটু পরিবর্তন করার পর যদি কাজ না হয়, তখন আপনি বলতে পারবেন যে আপনি আগের মতো করে খেলতে চান।

আর যদি কাজ করে তাহলে তো কথাই নেই। আপনার দলের কোচ, ম্যানেজমেন্ট সবাই যা বলবে- সেটা অবশ্যই আপনার ভালর জন্য বলবে। সাথে দলেরও ভালো হবে। তো কেউ যদি এভাবে বলে যে পরিবর্তন করতে, আমি করে ফেলি।

টাইগারদের মধ্যে যারা স্লেজিংয়ে নেতৃত্ব দেয়

বিশ্বের ক্রিকেট দলগুলোর ভেতর স্লেজিংয়ে খ্যাতি রয়েছে অস্ট্রেলিয়া এবং ভারতের। তবে এই দিক দিয়ে ভারত কিছুটা এগিয়ে। কেননা সিনিয়র-জুনিয়র সব লেভেলের ভারতীয় ক্রিকেটাররা বেশ দুর্দান্তভাবে করেন এই কাজটি। তবে এই কাজে পিছিয়ে নেই বাংলাদেশও। টাইগার ক্রিকেটাররাও বেশ স্লেজিং করে থাকেন মাঠে। এই কথা স্বীকার করেছেন জাতীয় দলের উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম।

সম্প্রতি একটি ফেসবুক লাইভে এসে তিনি এ কথা জানান। বাংলাদেশ দলে স্লেজিংয়ে দক্ষতার কথা বলতে গিয়ে মুশফিক দুটি নাম বলেছেন- এক- তামিম, দুই- নাসির। তবে এদের স্লেজিংয়ের ধরন ভিন্ন। তামিম ট্যাক্টিক্যাল লাইনে কথা বলেন। আর নাসির নানা অঙ্গভঙ্গি করে ফিল্ডিংয়ের সময় অনর্গল বাংলায় কথা বলতেই থাকেন।

মুশফিকের ব্যাখ্যা, আসলে আমাদের দলের স্লেজিং সে ভাবে হয় না। সে অর্থে কোন স্পেশালিস্টও নেই। আমাদের এরকম উ’গ্র স্লেজিং করার কেউ নেই। তামিম অনেক সময় বলে, সে মাঝে মাঝে বলে। তবে সেটাও কৌশলে। নাসিরও অনেক কথা বলতো। নাসিরা তো সমানে বাংলা বলতেই থাকতো। তার অঙ্গভঙ্গি একটু অন্যরকম থাকতো। এছাড়া আরও কয়েকজন আছে। মাঝে মধ্যে একটু বলতো। এমনিতে আমাদের দলে অস্ট্রেলিয়ানদের মত স্লেজিং স্পেশালিস্ট কেউ নেই।

শেয়ার করুন !
  • 14
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!