ভ্যাক্সিন নিয়ে সুখবর মার্কিন কোম্পানির || ওষুধ আবিষ্কার চীনের

0

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

করোনা ভাইরাসের টিকা উদ্ভাবনে বিশ্ববাসীকে বড় সুখবর দিয়েছে মার্কিন বায়োটেক কোম্পানি মর্ডানা। প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে, টিকা উদ্ভাবনে ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের (মানবদেহে পরীক্ষা) ২য় পর্যায়ে পৌঁছেছে তারা। অন্যদিকে চীনা বিজ্ঞানীরা দাবি করেছেন, তারা এমন একটি ওষুধ আবিষ্কার করেছেন যা টিকা ছাড়াই করোনা ঠেকাতে কার্যকর। এরই মধ্যে এই ওষুধ বিভিন্ন প্রাণীর ওপর সফলভাবে পরীক্ষাও চালানো হয়েছে। এখন তারা অপেক্ষা করছেন ওষুধটি অনুমোদনের।

নিউইয়র্ক টাইমস জানায়, মর্ডানা দাবি করেছে- মানুষের শরীরে প্রয়োগ করা প্রথম করোনা ভাইরাসের সম্ভাব্য টিকাটি তাদের গবেষণায় নিরাপদ ও অত্যন্ত কার্যকর বলে প্রমাণিত হয়েছে। এটি মানবশরীরে ভাইরাসের বিরু’দ্ধে রোগপ্রতিরোধ প্রতিক্রিয়াকে কার্যকরভাবে উদ্দীপিত করে। টিকাটি পরীক্ষায় কম, মাঝারি ও তীব্র ৩ মাত্রার ডোজ পরীক্ষা করা হয়। প্রাথমিক ক্ষেত্রে কম ও মাঝারি মাত্রার ক্ষেত্রে ইতিবাচক ফলাফল পাওয়া যায়।

এর আগে গত মার্চে যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম ৮ জন স্বেচ্ছাসেবীর শরীরে এ টিকা নিরাপদ কি না, তা পরীক্ষার জন্য প্রয়োগ করা হয়েছিল। তাদের শরীরে ২ ডোজ করে এ টিকা দেওয়া হয়। এর মধ্যে প্রথম ৮ জনের শরীরে টিকাটির কার্যকারিতার পর্যবেক্ষণের ভিত্তিতে ইতিবাচক ফল পাওয়া গেছে। মর্ডানা বলেছে, শিগগিরই ৬০০ জনকে নিয়ে পরীক্ষার ২য় ধাপ শুরু করতে যাচ্ছে তারা। এর পর আগামী জুলাই মাসে পরীক্ষার ৩য় ধাপ শুরু হবে।

প্রতিষ্ঠানটির প্রধান চিকিৎসা কর্মকর্তা টাল জ্যাকস বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের খাদ্য এবং ওষুধ কর্তৃপক্ষ চলতি মাসের শুরুতেই এ টিকাটি ২য় ধাপের পরীক্ষার অনুমোদন দিয়েছে। যদি পরীক্ষার ভালো ফল আসে, তবে এ বছরের শেষ নাগাদ বা আগামী বছরের শুরুতেই এটি বাজারে আসতে পারে।

টিকা উদ্ভাবনে মর্ডানা সুখবর দিলেও দুঃসংবাদ এসেছে যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। করোনা ভাইরাসের সম্ভাব্য ভ্যাক্সিনগুলোর মধ্যে প্রথম সারিতে থাকা অক্সফোর্ডেও টিকাটি প্রাণীর ওপর পরীক্ষায় ব্যর্থ হয়েছে। দ্য টেলিগ্রাফ বলছে, এরই মধ্যে রেসাস ম্যাকাক প্রজাতির বানরের ওপর এই টিকা প্রয়োগ করা হয়েছিল। কিন্তু দেখা গেছে, টিকা প্রয়োগের পরেও ওই বানরগুলো করোনায় আক্রা’ন্ত হয়েছে। এর ফলে মানবদেহে এই টিকা কতটুকু কার্যকর হবে তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

হার্ভার্ড মেডিক্যাল স্কুলের সাবেক অধ্যাপক ডা. উইলিয়াম হ্যাসেলটাইন বলেন, অক্সফোর্ডের টিকাটি যেসব বানরের ওপর প্রয়োগ করা হয়েছিল দেখা গেছে তাদের প্রত্যেকেই করোনায় আক্রা’ন্ত হয়েছে। যেসব বানরকে টিকা দেওয়া হয়নি সেগুলোর শরীর থেকে যে পরিমাণ ভাইরাল আরএনএ শনাক্ত করা হয়েছে, তাতে ভ্যাক্সিন দেওয়া বানরের সমান ছিল। যার মানে হচ্ছে, টিকা দেওয়া সব বানরই আক্রা’ন্ত হয়েছে।

এদিকে এএফপি জানায়, টিকা ছাড়াই করোনা রো’ধের ওষুধ আবিষ্কারের দাবি করেছে চীনের পিকিং বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা। এ ওষুধের মাধ্যমে কোভিড-১৯ আক্রা’ন্ত রোগীরা অল্প সময়েই সুস্থ হয়ে উঠছেন। এমনকি তাদের মধ্যে ভাইরাসটির বিরু’দ্ধে প্রতিরোধব্যবস্থাও শক্ত করছে ওষুধটি। অর্থাৎ এই ওষুধ সেবনে আবার করোনা আক্রা’ন্ত হওয়ার সম্ভাবনা কম। ওষুধটিতে ব্যবহার করা হয়েছে ভাইরাস নি’ষ্ক্রিয়করণ অ্যান্টিবডি, যা সংগ্রহ করা হয়েছে করোনায় আক্রা’ন্ত হয়ে সুস্থ হওয়া ৬০ জন রোগী থেকে। তারা যখন করোনায় আক্রা’ন্ত হন তখন তাদের দেহের কোষগুলোকে সুস্থ করার জন্য শরীরে এ অ্যান্টিবডি তৈরি হয়।

পিকিং বিশ্ববিদ্যালয়ের বেইজিং অ্যাডভান্সড সেন্টারের পরিচালক সান্নে ঝি বলেন, প্রাণীর ওপর পরীক্ষায় ওষুধটি সফলতা দেখিয়েছে। আমরা যখন একটি ইঁদুরের ওপর ভাইরাস নি’ষ্ক্রিয়করণ এই অ্যান্টিবডি প্রয়োগ করি, ৫ দিনের মাথায় এটি সুস্থ হয়ে ওঠে। আশা করা যাচ্ছে, এ বছরের শেষ নাগাদ ওষুধটি বাজারে আনার জন্য প্রস্তুত হবে। এটি নিয়ে এখনো পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলছে।

শেয়ার করুন !
  • 102
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply