মাদ্রাসার ভেতরে নিয়ে প্রথম শ্রেণির ছাত্রী ধ’র্ষণ, হাফেজসহ আটক ৩

0

নরসিংদী প্রতিনিধি:

নরসিংদীর মাধবদীতে প্রথম শ্রেণিতে পড়ুয়া এক ৬ বছর বয়সী এক ছাত্রীকে ধ’র্ষণের খবর জানা গেছে। এ ঘটনায় এক কিশোর হাফেজসহ ৩ জনকে আটক করেছে মাধবদী থানা পুলিশ।

আজ মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে মাধবদী থানার ভগীরথপুর দারুল উলুম আল হাসান ওয়াল হুসাইন ইসলামিয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানায় এ ঘটনা ঘটে।

শিশুটির বাবা বলেন, সকাল ৮টার দিকে আমার মেয়ে আমার জন্য খাবার নিয়ে আসে। আমাকে খাবার দিয়ে বাসার উদ্দেশে চলে যায়। আজ প্রায় পৌনে ১ ঘণ্টা পর আমার মেয়ে পুনরায় আমার কাছে আসে। তখন দেখি তার শরীরে রক্ত। আমি তাকে জিজ্ঞাসা করলে প্রথমে সে ভ’য়ে কিছু বলতে পারছিল না। কিছুক্ষণ পর সে জানায়, তাকে টুপিপরা এক লোক মাদ্রাসার ভেতরে নিয়ে এ অবস্থা করছে। তখন আমি চিৎকার করলে আশপাশের লোকজন এসে মাদ্রাসার মালিককে খবর পাঠায়। মালিক এসে এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচারের আশ্বাস দেন।

খবর পেয়ে মাধবদী থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে প্রাথমিকভাবে জিজ্ঞাসা’বাদের জন্য ভগীরথপুর দারুল উলুম আল হাসান ওয়াল হুসাইন ইসলামিয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানার অস্থায়ী কেয়ারটেকার ভগীরথপুর গ্রামের শাহিনের ছেলে ইয়াসিন (১৬), এমএমকে ডাইং মিলস মসজিদের ইমাম নুরুল ইসলামের ছেলে জাহাঙ্গীর (২১) এবং ভগীরথপুর দারুল উলুম আল হাসান ওয়াল হুসাইন ইসলামিয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানার ছাত্র হাফেজ ইমাম উদ্দিন (১৬)-কে আটক করে।

মাধবদী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সাফায়েত হোসেন পলাশ বলেন, রাস্তার পাশের সিসিটিভি ফুটেজ থেকে দেখা যায় ইয়াসিন শিশুটিকে মাদ্রাসার ভেতরে নিয়ে যাচ্ছে। জিজ্ঞাসা’বাদের জন্য ৩ জনকে আটক করা হয়েছে।

এ ঘটনায় শিশুটির বাবা বাদী হয়ে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। শিশুটিকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য নরসিংদী সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌ-র‌্যুটে ৯ লঞ্চকে জরি’মানা

শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌ-র‌্যুটে স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ৯টি লঞ্চকে জরি’মানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। আজ মঙ্গলবার সকাল থেকে লৌহজং থানা ও মাওয়া নৌ-পুলিশের যৌথ অভিযানে এ লঞ্চগুলো আটক করা হয়।

মাওয়া নৌ-পুলিশের পরিদর্শক সিরাজুল কবির জানান, সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত থানা ও নৌ-পুলিশ যৌথ অভিযান চালায় এ নৌ-র‌্যুটে। শিমুলিয়া ঘাট থেকে যাত্রীদের শরীরে জীবাণুনা’শক স্প্রেসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে কমসংখ্যক যাত্রী নিয়ে লঞ্চসহ নৌযানগুলো ছেড়ে যাচ্ছে। অথচ কাঁঠালবাড়ি ঘাটে এ স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না। সেখান থেকে লঞ্চে অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে শিমুলিয়া ঘাটে এসে ভিড়ছে। পুলিশের যৌথ অভিযানে এ রকম ৯টি লঞ্চকে আটক করা হয়।

পরে লৌহজং উপজেলা ভারপ্রাপ্ত ইউএনও ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মু. রাশেদুজ্জামান ভ্রাম্যমান আদলত পরিচালনা করে ৯টি লঞ্চের সারেংকে জেল-জরি’মানা করেন। এদের মধ্যে ৬ জনকে ৫ হাজার টাকা করে ৩০ হাজার ও ৩ জনকে ৬ হাজার করে ১৮ হাজারসহ সর্বমোট ৪৮ হাজার টাকা জরি’মানা করা হয়। অনাদায়ে ১৫ দিনের জেল দেওয়া হয়। তবে সকলেই জরি’মানার টাকা তাৎক্ষণিক দিয়ে দিয়েছেন।

শেয়ার করুন !
  • 1.9K
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!