এক মুহূর্তের অ’সতর্কতা ডেকে আনবে সর্বনাশ: ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ

0

সময় এখন ডেস্ক:

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত চিকিৎসক এবং আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন মেডিসিন বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ বলেছেন, করোনা মোকাবেলার ক্ষেত্রে আমাদেরকে প্রতি মুহূর্ত সতর্ক হতে হবে। যখন আমরা জীবিকার প্রয়োজনে ঘর থেকে বের হচ্ছি, কর্মস্থলে যাচ্ছি, তখন আমার সতর্কতা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এ সতর্কতা শুধুমাত্র আমার নিজের জন্য নয়, আমাদের এক মুহূর্তের অসতর্কতার জন্য ভ’য়ঙ্কর পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে।

কেবল আমি করোনায় আক্রা’ন্ত হবো না, বরং আমার পরিবার, আমার কর্মস্থলের সহকর্মীরাও আক্রা’ন্ত হতে পারে। কাজেই আমাদের প্রতি মুহূর্তে সতর্ক হতে হবে। করোনা পরিস্থিতি নিয়ে আজ তিনি এ কথা বলেন।

ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ বলেন, করোনা এক অদৃশ্য শক্তি, যা আমাদের জীবনকে বিপ’ন্ন করে ফেলছে। করোনা গরীব, ধনী, জ্ঞানী, মূর্খ, বর্ণ, জাতি, গোত্র কিছু দেখে না। এই দিক থেকে করোনা একটি সাম্যবাদী ভাইরাস বলা যায়।

তিনি বলেন, করোনা বৈ’ষম্যহীন এবং ধনী-গরীব নির্বিচারে সং’ক্রমিত করলেও, এটি অত্যন্ত নিষ্ঠুর। করোনা আমাদেরকে আলাদা করে দিচ্ছে। করোনায় আক্রা’ন্ত স্ত্রীকে দূরে সরিয়ে দিচ্ছেন স্বামী। পিতাকে দেখতে যাচ্ছেন না তার পুত্ররা। এমনকি বৃদ্ধ মাকে ঘর থেকে বের করে দেওয়া হচ্ছে। এটি একটি নি’ষ্ঠুর অ’মানবিক ভাইরাস।

করোনায় যারা মা’রা যাচ্ছেন, তাদের শেষ বিদায়টা হচ্ছে অত্যন্ত দুঃখজনক। এ সময় সন্তানরাও পর্যন্ত কাছে আসছেন না। তাই আমাদেরকে বুঝতে হবে, রোগ হলেই স’র্বনাশ। এখন বাংলাদেশে রোগীর সংখ্যা বাড়ছে, তখন হাসপাতালে জায়গা পাওয়া, চিকিৎসা পাওয়া একটা দুরূহ ব্যাপার। তাই প্রতিরোধই আমাদের সর্বোত্তম পন্থা।

ডা. আব্দুল্লাহর মতে, আমরা যদি প্রতি মুহূর্তে সতর্ক এবং সজাগ থাকি তাহলে আমরা করোনা প্রতিরোধ করতে পারবো।

তিনি বলেন, আপনি যখন ঘর থেকে বের হবেন, তখন আপনি মাস্ক ব্যবহার করেন, গণপরিবহনে উঠলে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলেন, নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখেন এবং নিজেকে পরিচ্ছন্ন রাখেন। লিফটে উঠলে বাটনে হাত দেওয়ার ক্ষেত্রে সতর্কতা অবলম্বন করুন। গণপরিবহনে হাঁচি কাশি দিলে অবশ্যই শিষ্টাচার মেনে চলুন। কর্মক্ষেত্রে প্রবেশ করেই কাজে বসার পূর্বে আগে নিজেকে পরিচ্ছন্ন করুন। কর্মক্ষেত্র থেকে ফিরে সরাসরি বাথরুমে গিয়ে পরিধেয় কাপড় পরিষ্কার করে নিজে পরিচ্ছন্ন হয়ে তারপর পরিবারের সদস্যদের সাথে দেখা করুন। এসব মেনে চললে নিজে এবং অন্যদের নিরাপদ রাখতে পারবেন।

মনে রাখবেন, করোনার সাথে বসবাস করতে গেলে সব সময় সতর্ক থাকতে হবে। মুক্তির একমাত্র উপায় এটাই। জীবন জীবিকার মধ্যে সমন্বয় দরকার। জীবন না থাকলে যেমন জীবিকা অর্থহীন, তেমনি জীবিকা না থাকলে জীবনও রাখা দায়। এই বাস্তবতায় দুটোর মধ্যে সমন্বয়ের উপায় হলো, প্রতি মুহূর্তে সতর্ক ও সচেতন থাকা এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা।

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!