জাতির জনককে নিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এ কেমন মিথ্যাচার!

0

মুক্তমঞ্চ ডেস্ক:

নিজের বিত’র্কিত কথাবার্তার কারণে বারবার সমালোচিত হয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন। কিন্তু এবার তিনি যা করলেন, তা রীতিমতো ক্ষমার অ’যোগ্য।

খোদ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে মিথ্যাচার করলেন তিনি। সেটাও আবার ভারতীয় একটি পত্রিকায় দেওয়া সাক্ষাৎকারে। গত ৩১ মে সাক্ষাৎকারটি প্রকাশিত হয়েছে ‘দ্য উইক’ পত্রিকায়। সাক্ষাৎকার গ্রহণকারীর শেষের দিকের প্রশ্ন ছিল, শেখ মুজিবুর রহমানের সাথে আপনার কাজের অভিজ্ঞতাটা কেমন ছিল? এর উত্তরে রীতিমতো মিথ্যার ফুলঝুড়ি সাজিয়ে বসেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘১৯৭০ সালে একটি গোলটেবিল সম্মেলনে অংশ নিতে তাঁর (বঙ্গবন্ধু) সাথে আমি পশ্চিম পাকিস্থানে গিয়েছিলাম। ওই সম্মেলনের পরপরই তিনি গ্রেপ্তার হন। আমি তাঁর রোজকার কাগজপত্র দেখে দিতাম। আর স্বাধীনতার পর আমি একজন সিনিয়র আমলা হিসেবে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে তাঁর সঙ্গে কাজ করেছি। তাঁকে আমি দেখেছি, তিনি সবসময়ই কাজের ব্যাপারে দৃঢ় সংকল্পবদ্ধ ছিলেন।’

আপাতদৃষ্টিতে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কথাগুলো যে কোনো মানুষের খুব ভালো লাগতে পারে। কিন্তু আমরা যদি একটু অতীতে ফিরে যাই তাহলে দেখব, পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এই উত্তরের প্রায় প্রতিটি লাইনই মিথ্যায় ভরপুর। ১৯৬০ এর দশকে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলেন। সে সময় তিনি আইয়ুব খান সমর্থিত জাতীয় ছাত্র ফেডারেশনের (এনএসএফ) এসএম হল শাখার প্রেসিডেন্ট ছিলেন। তার মতো একজন বিরো’ধীপক্ষের ছোটখাট ছাত্রনেতাকে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর পশ্চিম পাকিস্থানে গোলটেবিল সম্মেলনে যোগ দেওয়ার কোনো কারণই নেই। রাজনৈতিক সং’কট নিরসনে তৎকালীন রাষ্ট্রপতি আইয়ুব খান উচ্চ পর্যায়ের ওই সম্মেলনটি ডেকেছিলেন। দুই পক্ষের শীর্ষ রাজনৈতিক নেতারা সেখানে আমন্ত্রিত ছিলেন। সেখানে বঙ্গবন্ধু ছাত্রলীগ বা আওয়ামী লীগের কর্মীদের রেখে এনএসএফ সদস্য এ কে আব্দুল মোমেনকে ভ্রমণসঙ্গী করা বিশ্বাসযোগ্য নয়।

এ কে আব্দুল মোমেন যে মিথ্যাচার করেছেন তার আরেকটি প্রমাণ হলো, তিনি বলেছেন ১৯৭০ সালে তিনি বঙ্গবন্ধুর ভ্রমণসঙ্গী হিসেবে ওই সম্মেলনে যোগ দিতে গিয়েছিলেন। অথচ ১৯৭০ সালে আদৌ ওই সম্মেলনটি হয়নি। সম্মেলনটি হয়েছিল ১৯৬৮ সালে।

এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, ওই সম্মেলনের পরই বঙ্গবন্ধুকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। অথচ ওই সম্মেলনের পর বঙ্গবন্ধু গ্রেপ্তার হননি। বরং ওই সফরের কয়েক বছর পর বঙ্গবন্ধু তাঁর জীবনে শেষবারের মতো গ্রেপ্তার হন ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ দিবাগত রাতে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর প্রতিদিনকার পেপারওয়ার্ক তিনি দেখভাল করতেন। অথচ তখন ড. কামাল হোসেন এবং ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ বঙ্গবন্ধুর সহযোগী ছিলেন। তাদের মতো অভিজ্ঞদের বাদ দিয়ে মাস্টার্সের ছাত্র এ কে আব্দুল মোমেন বঙ্গবন্ধুর পেপারওয়ার্ক দেখভাল করবেন এটা কি বিশ্বাসযোগ্য কোনো কথা?

মন্ত্রী মহাশয় তার উত্তরের শেষে যে কথাটি বলেছেন তা হলো, ‘স্বাধীনতার পর আমি একজন সিনিয়র আমলা হিসেবে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে তাঁর (বঙ্গবন্ধু) সঙ্গে কাজ করেছি। তাঁকে আমি দেখেছি, তিনি সবসময়ই কাজের ব্যাপারে দৃঢ় সংকল্পবদ্ধ ছিলেন।’

জাতির পিতা কাজের ব্যাপারে দৃঢ় সংকল্পবদ্ধ ছিলেন, এ নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই। কিন্তু স্বাধীনতার পর এ কে আব্দুল মোমেন বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে সিনিয়র আমলা হিসেবে জাতির পিতার সঙ্গে কাজ করেছেন, এটা ভিত্তিহীন ও অ’সত্য কথা ছাড়া আর কিছুই নয়। আব্দুল মোমেন একটি মন্ত্রণালয়ে কাজ করেছেন সত্য, তবে সিনিয়র আমলা হিসেবে নয়। বরং একজন জুনিয়র কর্মী হিসেবে তিনি কর্মরত ছিলেন। ১৯৭৩ সাল থেকে ৭৫ সাল পর্যন্ত তিনি মন্ত্রী দেওয়ান ফরিদ গাজীর পার্সোনাল সেক্রেটারি ছিলেন। একটি মন্ত্রণালয়ে মন্ত্রীর সহকারী হিসেবে কাজ করাটাকে কোনোভাবেই বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে কাজ করা বলা যায় না।

একটি বিদেশী পত্রিকাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এত এত অ’সত্য ও ভিত্তিহীন কথা বলা শুধুমাত্র এ কে আব্দুল মোমেনের জন্যই নয়, বরং পুরো দেশের জন্যই লজ্জার। কারণ তিনি শুধু একজন ব্যক্তি নন, তিনি একজন মন্ত্রী। পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে তিনি বিদেশে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় প্রতিনিধিও বটে। এরকম একটি পদে থেকে এত অ’সত্য কথা বলে পুরো জাতিকে লজ্জায় ফেলার কারণ কী, সেই উত্তর মাননীয় মন্ত্রী কী দেবেন?

লেখক: অর্চি হক

শেয়ার করুন !
  • 103
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!