দলের ভেতরে-বাইরে সর্বত্রই চলমান ষড়’যন্ত্র!

0

বিশেষ প্রতিবেদন:

টানা সাড়ে ১১ বছর ক্ষমতায় রয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকার। বাংলাদেশ অনেক মাইলফলক স্পর্শ করেছে এই সময়ে। কিন্তু গত ৩ মাস যাবত সরকার এক না’জুক পরিস্থিতিতে। করোনা মোকাবেলা করতে গিয়ে নানারকম সং’কট দেখা দিচ্ছে। অর্থনৈতিক সং’কট, আর্থসামাজিক সং’কটসহ স্বাস্থ্য ব্যবস্থা সং’কট তো বটেই। আর করোনা পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে অনেকে ঘোলা পানিতে মাছ শি’কার করতে চাইছে।

করোনাকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করে ষড়’যন্ত্রের ডালপালা মেলছে এমন খবর কান পাতলেই পাওয়া যায়। করোনাকে ব্যবহার করে ষড়’যন্ত্র চলছে ঘরে-বাইরে। আর একে মোকাবেলা করেই সরকারকে টিকে থাকতে হবে এবং করোনার মোকাবেলা করতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে কেবল করোনা সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়েই ল’ড়াই করতে হচ্ছেনা কেবল, ল’ড়াই করতে হচ্ছে এসবের বিরু’দ্ধেও।

সরকারের বিরু’দ্ধে চলমান এই ষড়’যন্ত্রগুলোকে আমরা ৩ ভাগে ভাগ করা যায়।

১. সরকারের ভেতরে সক্রিয় ষড়’যন্ত্রকারীরা

গত সাড়ে ১১ বছর ধরে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আছে। আর এই কারণেই বিএনপি, জামাত-শিবির মনোভাবাপন্ন অনেক কর্মকর্তাই ভোল পাল্টেছেন এবং অনেকেই এখন আওয়ামী সৈনিক হিসেবে প্রশাসনের নানান পদে বসে আছেন। এরা এখন সুযোগ পেয়েই সরকারকে ব্যর্থ করার জন্য একের পর এক ভুল সিদ্ধান্ত নিচ্ছে বলেও জানা গেছে।

করোনা মোকাবেলার জন্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তর একাধিক প্রকল্প করেছে এবং এ সমস্ত প্রকল্পগুলোতে এমন ব্যক্তিদেরকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে যারা বিএনপির আমলের সুবিধাভোগী এবং বিএনপির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট। এখন তাদের মেধাবী এবং যোগ্য বিবেচনা করে বিভিন্ন পদে বসানো হচ্ছে। তাদের বিরু’দ্ধে দূর্নীতির বেসুমার অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। এই অভিযোগগুলোর কারণে দোষী সাব্যস্ত হচ্ছে সরকার। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে যারা সত্যিকারের মুক্তিযু’দ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী বা আওয়ামী চেতনার অধিকারী তারা কোণঠাসা হয়ে পড়েছেন। বিভিন্ন স্থানে স্বাধীনতাবিরো’ধী বিএনপি-জামায়াতের পদলেহীদের করোনা মোকাবেলার গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। শুধু স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় নয়, সরকারের অনেক মন্ত্রণালয়েই এখন বিএনপি-জামাতের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ ব্যক্তিরা বিভিন্ন দায়িত্ব পালন করছেন এবং এর ফলে সরকারের যে লক্ষ্য বা কর্মপরিকল্পনা তা বি’ঘ্নিত হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে।

২. সুশীল ষড়’যন্ত্র থেমে নেই

বাংলাদেশের এক শ্রেনীর সুশীল সমাজ সবসময় শেখ হাসিনা বিরো’ধী। যে কোনো মূল্যে শেখ হাসিনার সমালোচনা করাটাই যারা একমাত্র দায়িত্ব মনে করে। এদের সমালোচনা উ’পেক্ষা করে শেখ হাসিনা দেশকে স্বল্পোন্নত দেশের তালিকায় নিয়ে গেছেন। আর এখন যখন বিশ্বব্যাপী করোনা সং’কট, তখন সরকারকে ব্যর্থ প্রমাণে এরা ব্যস্ত। এদের অনেকেই এখন করোনা বিশেষজ্ঞ হয়ে গেছেন এবং সরকারের ছিদ্রান্বেষণে ব্যস্ত। আর এই সুশীল সমাজ সমালোচনাগুলো করে ষড়’যন্ত্রকারীদের জন্য ভূমি প্রস্তুত করছে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। এই সুশীলদের সঙ্গে ষড়’যন্ত্রকারীরা সব সময় যোগাযোগ রাখে। বাংলাদেশের বিভিন্ন রাজনৈতিক পট পরিবর্তনে সুশীল সমাজ সবসময় ষড়’যন্ত্রকারীদের পক্ষে কাজ করেছে বলে বহু প্রমাণ পাওয়া গেছে। সর্বশেষ ওয়ান ইলেভেন তৈরি করার ক্ষেত্রে সুশীল সমাজ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল যা সকলেই জানে।

৩. দেশের বাইরে চলছে অপ’প্রচার

দেশের বাইরেও চলছে অপ’প্রচার। করোনা সং’ক্রমণের পর থেকে দেশের বাইরে বাংলাদেশকে নিয়ে নানারকম অপ’প্রচার, ষড়’যন্ত্র এবং গুজব ছড়ানো হচ্ছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রতিনিয়ত নানারকম অপ’প্রচার ছড়ানো হচ্ছে এবং যে সমস্ত অপ’প্রচারের মূল লক্ষ্য সরকারকে ব্যর্থ হিসেবে প্রমাণ করা। আর এই গুজব-অপ’প্রচারগুলো রাজনৈতিক বাতাবরণে বিএনপি প্রচার করছে। এসবের মূল লক্ষ্য একটাই, ষড়’যন্ত্রের মাধ্যমে সরকারকে বেকায়দায় ফেলা। সরকারের যে জনপ্রিয়তা এবং ভালো কাজগুলো- সেগুলোকে ম্লান করে দেওয়া।

তবে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করেন, অতীতেও আওয়ামী লীগ তথা শেখ হাসিনার বিরু’দ্ধে ষড়’যন্ত্র হয়েছিল এবং ভবিষ্যতেও হবে। এই ষড়’যন্ত্র মোকাবেলা করেই আওয়ামী লীগ মুক্তিযু’দ্ধ করেছে, আওয়ামী লীগ গণতন্ত্র এনেছে এবং এই ষড়’যন্ত্র মোকাবেলা করেই শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে।

বাংলাইনসাইডার

শেয়ার করুন !
  • 569
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!