‘ডা. ফেরদৌসকে নিয়ে এত এত অভিযোগ, পেছনে রহস্য আছে’

0

মুক্তমঞ্চ ডেস্ক:

ডা. ফেরদৌস খন্দকারের বিরু’দ্ধে অভিযোগ এক জায়গায় স্থির থাকছে না, কিছুক্ষণ পরপর অভিযোগের ধরন পাল্টে যাচ্ছে!

এই ডাক্তারের বিরু’দ্ধে প্রথম অভিযোগ শুনেছি, করোনা উপলক্ষে আমেরিকায় যখন লকডাউন শুরু হয়। তখন অভিযোগ ছিল তিনি আমেরিকায় কাকে ত্রাণ দিচ্ছেন, সেখানে কি গরিব লোক আছে? ইত্যাদি।

আমেরিকায় অনেক অ’বৈধ বাংলাদেশি, নেপালি ও বিভিন্ন দেশের অ’বৈধ অভিবাসী আছেন যাদের অনেকেই মানবেতর জীবনযাপন করেন, কিন্তু আমেরিকা ছেড়ে যান না!
তাদের এবং বহু ছাত্রকে অর্থ সহায়তা এবং অনেককেই উপহারের নামে এক সাথে অন্তত ১ মাসের খাদ্য দিয়েছিলেন এই মানুষটি।

এ সময় আমিও আমেরিকায়, তবে নিউ ইয়র্কে নয়, ওয়াশিংটন ডিসিতে। বিপদে মানুষের পাশে দাঁড়ানো মানুষের প্রতি আমার সব সময় আগ্রহ ও শ্রদ্ধাবোধ কাজ করে বলে, আমি উনার সাথে ফোন করে কথা বলি।

কিছুদিন পর দেখলাম বাংলাদেশের কিছু আওয়ামী লীগ কর্মী ইনবক্সে ছড়াচ্ছে, এই লোক কোন ডাক্তার না, উনার সার্টিফিকেট ভুয়া!

পরবর্তীতে আমেরিকা আওয়ামী লীগের সিলেটিদের একাংশের প্রচারণায় দেখি, ফেরদৌস খন্দকার ডাক্তারি চাকরি পাননি, উনার কোন চেম্বার নাই!

পরবর্তীতে উনি যখন করোনাকালে সাহসিকতার সাথে বাংলাদেশি আমেরিকানদের ঘরে ঘরে গিয়ে চিকিৎসা দিয়ে ব্যাপক জনপ্রিয় হয়ে উঠেন- তখন আমি উনাকে আবারো ফোন করি এবং বলি যে আপনি কিন্তু সাবধানে থাকবেন করোনা কিন্তু ডাক্তারদেরও ধরে! জবাবে উনি বললেন, আমি গত ২ সপ্তাহ শুধু ভিডিও ছেড়েছি, বাইরে যাইনি এবং খেয়াল করলে দেখবেন ভিডিওতে আমি প্রায়ই কাশি দিচ্ছি আমি নিজেই তখন করোনা আক্রা’ন্ত ছিলাম তাই আপতত আমি আর আক্রা’ন্ত হওয়ার তেমন সম্ভাবনা নেই।

এর পর দেখলাম তিনি বাংলাদেশে সাবেক ছাত্রনেতা শাহজাদা মহিউদ্দিনের মাধ্যমে পুলিশের আইজি সাহেবের কাছে মাস্ক ইত্যাদি পাঠিয়েছেন। তখন আমি ফোন করে বললাম কুমিল্লাতেও কিছু দিতে উনি আমার কথামতো কুমিল্লা শহরে কিছু মাস্ক, কিছু খাদ্য ও অর্থ দেন যা কুমিল্লায় বিতরণ করা হয়েছে।

আমেরিকায় করোনা কমে আসছে একই সময়ে বাংলাদেশে কিছুটা বাড়ছে দেখে তিনি বাংলাদেশে ঢাকায় একটি এবং কুমিল্লায় একটি ফিল্ড হাসপাতাল করার ইচ্ছা নিয়ে বাংলাদেশে যান। তখন দেখলাম একটি অপরিচিত পত্রিকা নিউজ করেছে, ফেরদৌস খন্দকার মুস্তাকের ভাগিনা!

তারপর ডিবিসি টিভিতে বলা হলো তিনি কর্নেল রশিদের খালতো ভাই, তিনি সাবেক ছাত্রদল নেতা, তারেক রহমানের ডোনার, সজিব ওয়াজেদ জয়ের হ’ত্যা প্রচেষ্টাকারীর ঘনিষ্ঠ ইত্যাদি! এরপরে যখন দেখা গেল এসব অভিযোগ সব কয়টা মিথ্যা এবং উদ্দেশ্যপ্রণোদিত অপ’প্রচার, তখন আবার একই চক্র বলছে, নিউ ইয়র্কে এই ফেরদৌস খন্দকার বাংলাদেশি আমেরিকানদের করোনায় আক্রা’ন্ত করেছেন, তিনি নিজের করোনার কথা গোপন রেখেছিলেন!

নতুন অভিযোগ অপ’প্রচারে দেখা যাচ্ছে, ডাক্তারদের ভোটের দিনে তিনি বিএনপি- জামায়াতের সভাপতি প্রার্থীর সাথে কথা বলছেন অতএব উনার কারণেই অই লোক ভোটে পাশ করেছে!

আমি নিজে উকিল বলে জানি যে, উকিলদের ভোটের দিনে আমি নিজেও বিএনপি প্রার্থীর সাথেও কথা বলি। এদের ক্যাম্পে গিয়ে চা খাই, ওরাও আসে আমাদের তাঁবুতে। এক সাথে কাজ করার কারণে রাজনৈতিক মতপার্থক্য থাকলেও উকিল এবং ডাক্তারদের মনের দূরত্ব আসলে খুব বেশি থাকে না।

উকিলদের উকিলের প্রতি এক ধরনের টান থাকে, এ বিষয়টি ডাক্তার সাংবাদিক এবং পুলিশের মধ্যেও আছে! ভোটের দিন আমরা একে অন্যের সাথে কুশল বিনিময় করলেও ভোট সবাই জায়গামতোই দেয়! কিছু কাটা-কাটিও থাকে, তবে খুব গোপনে!

সর্বশেষ অপ’প্রচার হচ্ছে ডা. ফেরদৌস একজন যৌ’ন রোগ চিকিৎসক, তাকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছাকাছি যাওয়ার সুযোগ দিলে বিরাট বদ’নাম হয়ে যাবে! ডাক্তার ফেরদৌস খন্দকারের বিরু’দ্ধে অভিযোগ বারবার পরিবর্তন হওয়ার পেছনে আমার মনে হচ্ছে নিশ্চয় কোন রহস্য আছে। এতে এই প্রচারের পেছনের কারিগরদের আমার পছন্দ হয়, বিরাট কোন কামেল আদমি হবে!

(ফেসবুক থেকে সংগৃহীত)
লেখক: আনিসুর রহমান মিঠু
পরিচিতি: যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক, কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগ

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!