নেত্রীর বিষয়ে সব সময় আপোসহীন ছিলেন নাসিম

0

সময় এখন ডেস্ক:

মোহাম্মদ নাসিমকে ওয়ান ইলেভেনের সময় প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল, তিনি যেন সংস্কারপন্থীদের সাথে একত্রিত হন, শেখ হাসিনাকে রাজনীতি থেকে মাইনাস করার জন্য তিনি যেন বিবৃতি দেন, মাইনাস ফর্মুলা বাস্তবায়নে সহযোগিতা করেন। ওয়ান ইলেভেন শুরুর প্রাক্বালে তাকে এই প্রস্তাব দেওয়া হয়। মোহাম্মদ নাসিম তার একান্ত আলাপচারিতায় এই ঘটনাটি তুলে ধরেন।

কিন্তু মোহাম্মদ নাসিম ঘৃ’ণাভরে এই প্রসাব প্র’ত্যাখান করেছিলেন। যার ফলে তাকে চরম মূল্য দিতে হয়। তত্ত্বাবধায়ক সরকার যখন জগদ্দল পাথরের মতো ক্ষমতায় চেপে বসে, তখন প্রথম যে কজন রাজনৈতিক নেতা গ্রেপ্তার হয়েছিলেন, তাদের মধ্যে ছিলেন মোহাম্মদ নাসিমও। তাকে গ্রেপ্তার করার পরেও শেখ হাসিনার বিরু’দ্ধে সাক্ষ্য এবং শেখ হাসিনার বিরু’দ্ধে বক্তব্য দেওয়ার জন্য চাপ দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু শেখ হাসিনার প্রশ্নে মোহাম্মদ নাসিম ছিলেন আপোসহীন।

শুধু ওয়ান ইলেভেন নয়, আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে ১৯৮১ সালের পর থেকে কখনোই মোহাম্মদ নাসিম শেখ হাসিনার প্রশ্নে আপোস করেননি, শেখ হাসিনার সঙ্গে বেঈমানি করেননি বা শেখ হাসিনার রাজনীতির বিরু’দ্ধচারণ করেননি। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের পর মোহাম্মদ নাসিম জেল খেটেছেন, নির্যা’তিত হয়েছেন।

১৯৮১ সালে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা দেশে আসার পর আওয়ামী লীগের সংস্কারের সময় জাতীয় চার নেতার এই সন্তান রাজনীতির পাদপ্রদীপে আসেন। চার নেতার সন্তানদের মধ্যে রাজনীতিতে সবচেয়ে বেশি আলোচিত ও সক্রিয় ছিলেন মোহাম্মদ নাসিম। শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের পর থেকেই শুরু হয় নানারকম ষড়’যন্ত্র। সে সময় শেখ হাসিনার পাশে মুষ্টিমেয় যে কয়জন আওয়ামী লীগ নেতা ছিলেন তাদের মধ্যে মোহাম্মদ নাসিম ছিলেন অন্যতম।

স্বৈ’রাচারবিরো’ধী আন্দোলনে মোহাম্মদ নাসিম সামনে চলে আসেন। রাজপথের একজন লড়াকু যো’দ্ধা হিসেবে তিনি আলোচিত হন। স্বৈ’রাচারবিরো’ধী আন্দোলনই তাকে জাতীয় নেতায় পরিণত করে। এরশাদের পত’নের পর আওয়ামী লীগ যখন বিরো’ধী দলে যায় তখন মোহাম্মদ নাসিম চিফ হুইপ হন। এরপর মোহাম্মদ নাসিম শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার জন্য গণতন্ত্রের সংগ্রামে নতুন ধারার সূচনা করেন এবং নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে উত্তাল গণআন্দোলন তৈরির ক্ষেত্রে মোহাম্মদ নাসিমের অবদান ছিল অনস্বীকার্য।

২০০১ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ভরাডুবির পরেও মোহাম্মদ নাসিমকে রাজপথে দেখা গেছে এবং গণতন্ত্রের সংগ্রামে তিনি কাজ করেছেন। দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে মোহাম্মদ নাসিমের অনেক ভুলত্রু’টি আছে, সে সব তিনি নিজমুখে স্বীকারও করতেন। কিন্তু শেখ হাসিনার প্রশ্নে, বঙ্গবন্ধুর আদর্শের প্রশ্নে তিনি ছিলেন আপোসহীন। এক্ষেত্রে কোনো বি’চ্যুতি কখনো তাকে স্পর্শ করতে পারেনি। এখানেই তিনি ছিলেন অনন্য। এজন্য মোহাম্মদ নাসিম আদর্শের পথিকৃৎ হয়ে থাকবেন।

শেয়ার করুন !
  • 1.1K
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!