দুঃসংবাদটি শুনে কান্নায় ভেঙে পড়েন প্রধানমন্ত্রী

0

সময় এখন ডেস্ক:

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নাসিমের মৃ’ত্যুর সংবাদ শুনতে পান প্রয়াত নাসিমের ছেলে তানভীর শাকিল জয়ের মাধ্যমে। এই সংবাদ জানার পরই তিনি কান্নায় ভেঙে পড়েন। আবেগে আপ্লুত হয়ে পড়েন প্রধানমন্ত্রী। মোহাম্মদ নাসিম জাতীয় চার নেতার অন্যতম ক্যাপ্টেন মনসুর আলীর সন্তান ছিলেন।

আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন প্রতিকূল রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে ছিলেন, গণতন্ত্রের সংগ্রাম করেছিলেন, সেই সংগ্রামের অন্যতম বীর সৈনিক ছিলেন মোহাম্মদ নাসিম। আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে শুধু বিশ্বস্তই ছিলেন না তিনি, গণতন্ত্রের এক বীরযো’দ্ধাও ছিলেন- স্মরণ করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি নাসিমের আত্মার শান্তি ও মাগফেরাত কামনা করেন।

আবেগাপ্লুত হয়ে মোহাম্মদ নাসিমের বিভিন্ন স্মৃতিচারণ করেন প্রধানমন্ত্রী। বিভিন্ন সময় কীভাবে তাঁর সংগ্রামের সাথী ছিলেন সেসব স্মরণ করেন। একইসাথে স্মরণ করেন ২১ আগস্টের ভ’য়াবহ গ্রেনেড হাম’লার সময় নেত্রীর প্রাণ বাঁচাতে দেয়াল হয়ে ঘিরে থাকার কথাও।

রাষ্ট্রপতির শোক ও স্মৃতিচারণায় মোহাম্মদ নাসিম

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের মৃ’ত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ। শোক বার্তায় তিনি বলেন, তার মৃত্যুতে বাংলাদেশ একজন নিবেদিত প্রাণ রাজনীতিককে হারালো।

রাষ্ট্রপতি বলেন, আমাদের মুক্তি সংগ্রাম ও মুক্তিযু’দ্ধসহ দেশের সব গণতান্ত্রিক আন্দোলনে মোহাম্মদ নাসিম ছিলেন নির্ভীক যো’দ্ধা। তিনি জনগণের প্রিয় নেতা ছিলেন বলেই ৫ বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তার মৃ’ত্যু বাংলাদেশর জাতীয় রাজনীতিতে এক অপূরণীয় ক্ষ’তি। দেশের রাজনৈতিক ইতিহাসে তার নাম চির ভাস্বর হয়ে থাকবে।

তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধুর অন্যতম ঘনিষ্ঠ সহচর জাতীয় চার নেতার অন্যতম ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলীর ছেলে মোহাম্মদ নাসিম গণতন্ত্র, দেশ, দল, জনগণসহ মুক্তিযু’দ্ধের চেতনা বিকাশে যে অবদান রেখেছেন জাতি তা চিরদিন শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করবে।

রাষ্ট্রপতি শোকবার্তায় মোহাম্মদ নাসিমের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

মোহাম্মদ নাসিমের অ’সম্পূর্ণ উদ্যোগটি বাস্তবায়ন জরুরী

মোহাম্মদ নাসিম স্বাস্থ্যমন্ত্রী থাকা অবস্থায় স্বাস্থ্যবিমা চালু করেছিলেন। এজন্য টাঙ্গাইলে একটি পাইলট প্রজেক্টও করেছিলেন। সাম্প্রতিক সময়ে করোনায় স্বাস্থ্যবিমার গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা আরও বেশি অনুভূত হচ্ছে। অর্থাভাবে অনেকেই চিকিৎসা করাতে পারে না। বিশেষ করে জটিল রোগে আক্রা’ন্তদের জন্য চিকিৎসা ক্রমশ ব্যয়বহুল হয়ে পড়ছিল।

মোহাম্মদ নাসিমের এই স্বপ্নটা পূরণ করা এখন অত্যন্ত জরুরী। স্বাস্থ্যবিমা বাস্তবায়িত হলে গরীব মানুষ যেমন জটিল রোগের চিকিৎসা পাবে, তেমনি মোহাম্মদ নাসিমের অ’সম্পূর্ণ স্বপ্নও বাস্তবায়িত হবে।

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!