করোনায় বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাবাণিজ্য: সুস্থ মানুষ আইসিইউতে, ঘণ্টা হিসেবে বিল!

0

সময় এখন ডেস্ক:

করোনা ভাইরাস সং’ক্রমণ ছড়িয়ে পড়ায় সরকারি হাসপাতালের পাশাপাশি বেসরকারি হাসপাতালে রোগী ভর্তির অনুমোদন দিয়েছে সরকার। এই সুযোগে কিছু বেসরকারি হাসপাতালে সেবার নামে চলছে ভ’য়াবহ বাণিজ্য। এই মহামা’রীতে রোগীর কাছে থেকে ঘণ্টাপ্রতি অক্সিজেন বিল নেওয়া হচ্ছে ৩০০ টাকা। সুস্থ মানুষকে করোনার ভ’য় দেখিয়ে নেওয়া হচ্ছে আইসিউতে। সেবা নিতে গিয়ে লাখ লাখ টাকার বিল পেমেন্ট করতে গিয়ে নিঃস্ব হচ্ছে মানুষ।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপ-উপাচার্য এবং বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি ডা. রশিদ-ই মাহবুব বলেন, বেসরকারি হাসপাতালের ওপর সরকারের নিয়ন্ত্রণ না থাকায় এ পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। মহামা’রীর সময় সরকার যখন চিকিৎসা দিতে না পেরে বেসরকারি হাসপাতালকে বলে তখন এ পরিস্থিতি হওয়ারই কথা। কে কীভাবে চিকিৎসা দেবে, মূল্য নির্ধারণ কীভাবে হবে কোনো গাইডলাইন ছাড়া চিকিৎসা দেওয়ার জন্য বলা হলো। পাশের দেশ ভারতে এভাবে বেসরকারি হাসপাতালে মহামা’রীর চিকিৎসা চলছে না। উন্নত বিশ্বের পরিস্থিতি তুলনার তো প্রশ্নই আসে না। মানুষকে জমি, বাড়ি বিক্রি করে এনে বেসরকারি হাসপাতালে করোনা চিকিৎসার বিল দিতে হচ্ছে।

রাজধানীর বনশ্রীর ইয়ামাগাতা-ঢাকা ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতালে করোনা রোগীর কাছ থেকে অ’সামঞ্জস্যপূর্ণ ও বাড়তি বিল নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। করোনা সাসপেক্টেড রোগী হিসেবে গত ৫ জুন ওই হাসপাতালে ভর্তি হন সতীশ চন্দ্র দাস, রূপালি দাস ও তাদের ছেলে ডা. তন্ময় দাস। এরপর ৯ জুন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মা’রা যান সতীশ চন্দ্র দাস। ১৩ জুন তন্ময় দাসের করোনা পজেটিভ রিপোর্ট আসে, অন্যজনের নেগেটিভ। গত বুধবার তাদের রিলিজ দেওয়ার সময় তাদের হাতে ৭ লাখ টাকার বিল ধরিয়ে দেওয়া হয়।

বাড়তি ও অ’সঙ্গতিপূর্ণ বিল নেওয়ার অভিযোগ করে তন্ময় দাস বলেন, ৩ জনের প্রতি ঘণ্টায় ৩০০ টাকা করে অক্সিজেনের বিল ধরা হয়েছে ১ লাখ ৬০ হাজার ২০০ টাকা। আমাকে খুব অল্প সময় কম পরিমাণে অক্সিজেন দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু বিল করা হয়েছে ৫৮ হাজার ৮০০ টাকা। বাবার আইসিইউতে কার্ডিয়াক মনিটর ফি প্রতি ঘণ্টায় ২০০ টাকা করে ২০ হাজার টাকা এবং আমার ও মায়ের প্রতি ঘণ্টায় ১২৫ টাকা করে ২৮ হাজার টাকা ও ৩৩ হাজার ৭৫০ টাকা নেওয়া হয়েছে। আমি এবং আমার মা একই কেবিনে ভাগাভাগি করে ছিলাম। অথচ ২ বার কেবিন ভাড়া, সার্ভিস চার্জ নেওয়া হয়েছে। আমার বাবার কনসাল্টেনশন ফি ২১ হাজার ৯০০ টাকা, আমার ৩৪ হাজার ৯০০ টাকা এবং মায়ের ৪১ হাজার ৭০০ টাকা।

তিনি আরও বলেন, অতিরিক্ত বিল নেওয়ার বিষয়ে আমরা আরও বুঝতে পারি খাবারের বিল থেকে। আমাদের যে রেস্টুরেন্ট থেকে খাবার দিয়ে গেছে সেই ম্যানেজার আমাদের কাছে বিল পাঠিয়েছেন ২ হাজার ১৫০ টাকা। এটা হয়তো হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ খেয়াল করেনি। তারা আবার মোট বিলের সঙ্গে খাবারের বিল দিয়েছে ১১ হাজার টাকা। আমাদের হাতে রিলিজ দেওয়ার সময় ৭ লাখ টাকার বিল ধরিয়ে দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া প্রায় ২ লাখ ৫০ হাজার টাকার ওষুধ আমাদের আলাদা কিনতে হয়েছে। চিকিৎসার নামে রোগীদের গলাকা’টা ছাড়া এগুলো আর কিছুই নয়।

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মনিরুজ্জামান হাওলাদার গত ৩১ মে থেকে পেটের সমস্যায় ভুগছিলেন। ২ জুন কয়েকটি টেস্ট শেষে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের এক চিকিৎসক জানান তার শরীরে সোডিয়াম কমে গেছে। এরপর তার পরামর্শে ইয়ামাগাতা-ঢাকা ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতালে যান।

তিনি বলেন, ওই হাসপাতালে যাওয়ার পরে আমাকে আইসিইউতে ভর্তি করে নেওয়া হয়। এরপর ক্যানোলা লাগিয়ে শুইয়ে রাখা হয়। কিন্তু আমার কোনো ধরনের টেস্টই করা হয়নি। আইসিউতে নোং’রা পরিবেশ এবং বিছানা ছাড়া কোনো ধরনের যন্ত্রপাতিও নেই। তারা আমাকে বিছানায় শুইয়ে হাতে ক্যানোলা লাগিয়ে দেয়। আমাকে আইসিইউতে নেওয়ার কারণ জানতে চাইলে ওই বিছানার সঙ্গে হাত-পা বেঁধে ফেলা হয়। এরপর টানা ৭ দিন আমাকে শুধু ঘুমের ওষুধ আর ইনজেকশন দিয়ে রাখা হয়। আমি সারা দিন অ’চেতন অবস্থায় ঘুমাতাম।

আমার স্ত্রীকে বলা হলো আমার করোনা হয়েছে। অথচ আমার কোনো টেস্টই করা হয়নি। এক সময় আমি জানতে পারি এভাবে ২ লাখ ৯০ হাজার টাকা বিল করা হয়েছে। তখন আমি হাসপাতাল থেকে বের হয়ে আসতে চেষ্টা করি। তারা আমাকে জোর করে আটকে রাখে। বিল পেমেন্ট করলে আমাকে আসতে দেয়। আমি হেঁটে হাসপাতালে গেলাম অথচ আমাকে জোর করে আইসিইউতে ঢুকিয়ে এভাবে টাকা আদায় করা হলো। এভাবে রোগীদের ফাঁ’দে ফেলে ব্যবসা করছে হাসপাতালটি। আমি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরু’দ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেব।

এ ব্যাপারে কথা বলতে ইয়ামাগাতা-ঢাকা ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতালের হটলাইনে ফোন করে যোগাযোগ করলে হাসপাতালের মানবসম্পদ বিভাগের প্রধানকে দেওয়া হবে বলে কিছুক্ষণ লাইনে রেখে কেটে দেওয়া হয়। এরপর ফোন দিলেও আর কেউ রিসিভ করেনি।

রাজধানীর মালিবাগের প্রশান্তি হাসপাতালে করোনা আক্রা’ন্ত হয়ে ভর্তি হয়েছিলেন নোয়াখালীর সুবর্ণচরের সাগরিকা সমাজ উন্নয়ন সংস্থার মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ উন্নয়ন কর্মকর্তা মহিন উদ্দীন পারভেজ। গত বৃহস্পতিবার ভোরে তিনি মা’রা যাওয়ার পর তার লা’শ নিতে গেলে ২ লাখ ৫০ হাজার টাকার বিল ধরিয়ে দেওয়া হয় পরিবারের কাছে।

পরিবারের অভিযোগ, রোগীকে আইসিইউতেও রাখা হয়নি তাহলে এত বিল কীভাবে আসে? এই অর্থ পেমেন্ট করতে না পারায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ লা’শ বুঝিয়ে দিচ্ছে না বলে অভিযোগ করে ওই ভিক্টিম পরিবার।

প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক ও ইউজিসি অধ্যাপক ডা. এ বি এম আবদুল্লাহ বলেন, এই দুর্যোগকালীন পরিস্থিতিতে সরকারি-বেসরকারি সব হাসপাতালকেই ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে। এখন ব্যবসা নয় মানুষের জীবন বাঁচানোর ল’ড়াইয়ে আমাদের নামতে হবে। করোনা রোগীদের চিকিৎসায় মানবিক হওয়ার আহ্বান থাকবে সবার প্রতি।

প্রতিবেদক: জয়শ্রী ভাদুড়ী, বাংলাদেশপ্রতিদিন

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!