যে কারনে করোনা প্রতিরোধে অন্য বিশ্বনেতাদের চেয়ে শেখ হাসিনা এগিয়ে

0

বিশেষ প্রতিবেদন:

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা করোনা মোকাবেলায় বিশ্বে প্রশংসিত হচ্ছেন। করোনা মোকাবেলায় যেসব বিশ্বনেতা ল’ড়ছেন তাদের মধ্যে শেখ হাসিনা অন্যতম। এ ব্যাপারে তিনি আন্তর্জাতিক স্বীকৃতিও পেয়েছেন। একাধিক আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে করোনা মোকাবেলায় শেখ হাসিনার নেতৃত্বের ভূয়সী প্রশংসা করা হচ্ছে।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীই প্রথম জীবন-জীবিকা একসাথে চালানোর কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করেন এবং সেটা বাস্তবায়ন করেছেন। করোনায় স্ত’ব্ধ না হয়ে অর্থনীতিকে চালু রাখার স্বীকৃতিও বাংলাদেশ পেয়েছে। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ করোনা স’ঙ্কটে সবচেয়ে ভালো অর্থনৈতিক অবস্থা ধরে রেখেছে বলে এডিবি প্রক্ষেপণ করেছে।

এডিবির প্রক্ষেপণে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি হবে ৪.৫ শতাংশ, যদিও বাংলাদেশ সরকার বলছে এটা ৫.২ শতাংশ হবে। সেখানে ভারতের এই বছরের প্রবৃদ্ধি হচ্ছে মাইনাস ৪ শতাংশ, নেপালের প্রবৃদ্ধি ২.৩ শতাংশ, ভূটানে ২.৪ শতাংশ, শ্রীলঙ্কায় মাইনাস ৬.১ শতাংশ, মালদ্বীপে মাইনাস ১১.৩ শতাংশ, পাকিস্থানে মাইনাস ৪ শতাংশ।

আবার আগামী বছরের যে প্রক্ষেপণ করা হয়েছে, সেই প্রক্ষেপণেও বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে সবথেকে এগিয়ে। এডিবি আগামী বছরে বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি প্রক্ষেপণ করেছে ৭.৫ শতাংশ, যেখানে বাংলাদেশ সরকার প্রক্ষেপণ করেছে ৮.২ শতাংশ। আগামী বছরে ভারতের প্রবৃদ্ধি হবে ৫ শতাংশ, পাকিস্থানে ২ শতাংশ, আফগানিস্তানের ৩ শতাংশ, মালদ্বীপের ৩.৭ শতাংশ, শ্রীলঙ্কায় ৪.১ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হবে।

এই বাস্তবতায় দেশে-বিদেশে আলোচনা হচ্ছে যে, করোনা মোকাবেলাত আসলে শেখ হাসিনার কৌশল কী? কীভাবে তিনি করোনা মোকাবেলার কর্মপন্থা নির্ধারণ করছেন এবং কোন পথে এগোচ্ছেন। এটা বিশ্লেষণ করতে গিয়ে দেখা যাচ্ছে, শেখ হাসিনার ৫টি কৌশল সবচেয়ে বেশি উল্লেখযোগ্য। এগুলোর মধ্যে রয়েছে-

১. ভ্যাক্সিনকে গুরুত্ব দেওয়া

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এখন ভ্যাক্সিনের ওপর সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছেন। জাতির উদ্দেশ্যে দেওয়া ভাষণে তিনি বলেছেন, ভ্যাক্সিন না আসা পর্যন্ত আমাদের করোনার সঙ্গে ল’ড়তে হবে। ভ্যাক্সিন আসার সঙ্গে সঙ্গে যেন তা বাংলাদেশ পায় সেটা নিশ্চিত করার জন্য ব্যক্তিগতভাবে তিনি উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। সারাবিশ্বে ভ্যাক্সিন তৈরির কাজ কারা কারা করছে সে সম্পর্কে জানার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একটি সেল কাজ করছে। এই উদ্যোগের সঙ্গে বাংলাদেশ যেন যুক্ত হয় সে ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী সার্বক্ষণিক পরামর্শ দিচ্ছেন। অর্থাৎ করোনা মোকাবেলায় স্থায়ী সমাধান যে ভ্যাক্সিন এবং এই ভ্যাক্সিন যেন বিশ্বে আসার সঙ্গে সঙ্গে বাংলাদেশ পায় সেটাকে প্রথম কৌশল হিসেবে নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

২. অর্থনীতিকে সচল রাখা

প্রধানমন্ত্রী দেশের অর্থনীতিকে সচল রেখেছেন। যখন অন্যান্য দেশগুলো ভয় পাচ্ছে, জনস্বাস্থ্যের কথা চিন্তা করছে, তখন শেখ হাসিনা স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত আকারে অর্থনীতিকে চালু করে রেখেছেন। যার ফলে করোনা পরবর্তী সময়ে বিশ্ব অর্থনীতিতে বাংলাদেশ একটি বড় অর্থনৈতিক শক্তি হিসেবে আবির্ভূত হতে যাচ্ছে।

৩. স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা

করোনা স’ঙ্কটে কারফিউ বা লকডাউন নয়, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাকেই সবথেকে বেশি গুরুত্ব দিয়েছেন শেখ হাসিনা। যে কারণে এই কৌশলটি এখন বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলোও অনুসরণ করছে। সবকিছু বন্ধ করে দিয়ে নয়, বরং স্বাস্থ্যবিধি মেনে করোনার সঙ্গে ল’ড়াই করাটাই হলো শেখ হাসিনার কৌশল।

৪. প্রান্তিক পর্যায়ে স্বাস্থ্য সুবিধা নিশ্চিত করা

করোনা মোকাবেলায় শেখ হাসিনার আরেকটি কৌশল হলো প্রান্তিক পর্যায় পর্যন্ত স্বাস্থ্যসেবা ছড়িয়ে দেওয়া। ইতিমধ্যে কমিউনিটি ক্লিনিকের মাধ্যমে তিনি প্রান্তিক পর্যায়ে স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দেওয়ায় বিশ্বে রোল মডেলে পরিণত হয়েছেন। এখন তিনি একদম প্রান্তিক উপজেলা পর্যায়ে আইসিইউ সেবাসহ সকল ধরণের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার নির্দেশনা দিয়েছেন। এই নির্দেশনার বাস্তবায়ন যেন দ্রুত হয় সেটার তদারকি করছেন।

৫. চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের সংখ্যা বাড়ানো

করোনা স’ঙ্কটে একটি বিষয় স্পষ্ট হয়েছে যে, বাংলাদেশের চিকিৎসা খাতে লোকবলের অভাব রয়েছে। বিশেষ করে চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের অভাব রয়েছে। এজন্য ইতিমধ্যেই ২ হাজারের বেশি চিকিৎসক এবং প্রায় ৩ হাজার স্বাস্থ্যকর্মী এবং নার্স নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। জানা গেছে, আরো চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্যকর্মী নিয়োগের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এর ফলে বাংলাদেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার একটি বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এই ৫টি কৌশলের কারণেই বাংলাদেশ করোনা স’ঙ্কটকালেও প’র্যদুস্ত হয়নি, বরং সামনের দিনগুলোতে করোনার সঙ্গে সহাবস্থানের ল’ড়াইয়ে এগিয়ে রয়েছে।

বাংলাইনসাইডার

শেয়ার করুন !
  • 619
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!