ক’টূক্তিকারীদের মুক্তি চাইলেন মোহাম্মদ নাসিমের পুত্রবধূ

0

সময় এখন ডেস্ক:

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের মৃ’ত্যুর পর তাকে নিয়ে ক’টূক্তির অভিযোগে দেশের বিভিন্ন স্থানে অনেকের বিরু’দ্ধে ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনে মামলা হয়েছে। ‍অনেকে গ্রেপ্তারও হয়েছেন।

কিন্তু গ্রেপ্তার হওয়া ব্যক্তিদের মুক্তি দেওয়ার আহবান জানিয়েছেন মোহাম্মদ নাসিমের পুত্রবধূ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সাবরিনা সুলতানা চৌধুরী।

একইসঙ্গে তিনি ডিজিটাল আইনের বিপক্ষে তার অবস্থানের কথাও তুলে ধরেছেন। গত ২০ জুন তিনি ফেসবুকে লেখেন:

ভীষণ মনোঃক’ষ্ট নিয়ে একটা পোস্ট দিয়েছিলাম নিজের বাবার অপমানে। তাতে গণতন্ত্র ব্যা’হত হয়েছে। তারপর আমি নিজে চোখটা বন্ধ করে অনেকক্ষণ ভাবলাম যে বাবা থাকলে কী করতেন। উত্তরটা পেয়ে গেলাম। তিনি হাসতেন, বলতেন ক্ষমা করতে। গ্রেপ্তার বা শা’স্তি কিছুই চাইতেন না। এরকমই মানুষ ছিলেন তিনি। আমি নিজেও কখনো পারিবারিক কিছু কখনো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আনিনি। একটা ছবি পর্যন্ত না। নিজে ১৩ দিন আইসিইউতে ছিলাম। বাবাকে হারালাম। তারপর এসব নি’ষ্ঠুর আচরণ।

তাই উত্তে’জিত হয়ে পড়েছিলাম। কোনো শা’স্তি বা মামলা আমরা চাই না। এই আইনের বিরু’দ্ধে আমি নিজেও দাঁড়িয়েছি। আর কোনো দলকানা মানুষও আমি নই। বাবা তাঁর শেষ সময় পর্যন্ত দেশের জন্যে কাজ করেছেন। তারপরও যদি তাঁর কোনো ভুল ত্রু’টি হয়ে থাকে আপনারা তাঁকে ক্ষমা করবেন। কন্যা হিসেবে আমি দোয়া চাই ওনার জন্যে। হিং’সা বি’দ্বেষ কখনো ভালো কিছু হতে দেয় না। সকল শিক্ষক মুক্তি পান, ভালো থাকুন। গণতন্ত্রের পক্ষে ল’ড়াই করা মানুষটা যেনো জান্নাতবাসী হোন। আমাকেও ক্ষমা করবেন সাময়িক উত্তে’জনার জন্যে। আমিও যেনো আমার সীমিত সামর্থ্য মানুষের পাশে থাকতে পারি। ভালো থাকবেন আপনারা।

মোহাম্মদ নাসিমের আসন শূন্য ঘোষণা

সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও ১৪ দলের প্রয়াত মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম মৃ’ত্যুবরণ করায় তার সিরাজগঞ্জ-১ আসনটি শূন্য ঘোষণা করেছে সংসদ সচিবালয়। সংসদ সচিবালয়ের সিনিয়র সচিব ড. জাফর আহমেদ খান তার আসনটি শূন্য ঘোষণা করেন। আসন শূন্য ঘোষণা করায় গত বুধবার গেজেট প্রকাশিত হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, ‘বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ নাসিম ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭/১৩ জুন ২০২০ তারিখ পূর্বাহ্নে মৃ’ত্যুবরণ করায় একাদশ জাতীয় সংসদের ৬২ সিরাজগঞ্জ-১ আসনটি উক্ত তারিখে শূন্য হয়েছে।’

সংবিধান অনুযায়ী, জাতীয় সংসদের কোনো আসন শূন্য হলে তার পরবর্তী ৯০ দিনের মধ্যে উপ-নির্বাচনের বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

এক্ষেত্রে আগামী ১০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ভোটের আয়োজন করতে হবে নির্বাচন কমিশনকে। তবে করোনা ভাইরাসের প্র’কোপের কারণে সব ধরনের নির্বাচন স্থ’গিত রাখা হয়েছে।

এদিকে ইসি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, করোনার কারণে ১০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ভোট করা সম্ভব না হলে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) সংবিধান দৈব-দু’র্বিপাকজনিত কারণে আরও ৯০ দিন সময় দিয়েছে। এক্ষেত্রে আসন শূন্য হওয়ার ১৮০ দিন অর্থাৎ আগামী ৯ ডিসেম্বরের মধ্যে উপ-নির্বাচন সম্পন্ন করতে হবে।

শেয়ার করুন !
  • 1K
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!