ত্রাণের কথা বলে ৩০০ নারীর আঙুলের ছাপ সংগ্রহ, ৪ যুবক জেলহাজতে

0

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি:

ত্রাণের কথা বলে গ্রামের সহজ সরল নারীদের অঙুলের ছাপ নিচ্ছিলেন যুবকেরা। এভাবেই একে একে ৩০০ নারীর আঙুলের ছাপ সংগ্রহ করে ধরা খেয়েছে ৪ যুবক। এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার মুশল্লী ইউনিয়নের মোরাগালা গ্রামে।

গতকাল সোমবার রাতে তাদের ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে প্রত্যেককে ১ মাস করে বিনাশ্রম জেল দিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ভ্রাম্যমাণ আদালতে ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুর রহিম সুজন। আজ মঙ্গলবার সকালে তাদের সাজা পরোয়ানা দিয়ে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, ওই গ্রামে গত ১ সপ্তাহ ধরে ৪ ব্যক্তি করোনায় চাল, ডাল ও তেল ছাড়া প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র দেওয়া হবে বলে প্রত্যেক বাড়িতে গিয়ে নারীদের কাছ থেকে জাতীয় পরিচয় পত্র সংগ্রহ করে। পরে একটি ডিভাইসে আঙ্গুলের ছাপ নিয়ে প্রথম দফায় আধা কেজি ডাল ও ১ কেজি তেল দেওয়া হয়।

ঘটনাটি নিয়ে এলাকায় সচেতন মহলে আলোচনা সমালোচনা চললে এলাকার লোকজন ওই ৪ ব্যক্তির কাছ থেকে আঙুলের ছাপ নেওয়ার কারণ জানতে চাইলে কোনো ধরনের উত্তর দিতে না পারায় ঘটনাটি নিয়ে সন্দেহ দেখা দেয়। পরে ৪ ব্যক্তি কেটে পড়ার চেষ্টা করলে তাদের আটকে রেখে ইউএনওকে অবহিত করা হয়। পরে পুলিশসহ ইউএনও গিয়ে তাদের আটক করে সদরে এনে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে প্রত্যেককে ১ মাস করে বিনাশ্রম জেলের সাজা দেন।

সাজাপ্রাপ্তরা হচ্ছেন- সুনামগঞ্জ জেলার দিরাই এলাকার সন্তোষপুর গ্রামের আক্কাস মিয়ার ছেলে শাহিন (২১), সদর উপজেলার রাজ্জাক মিয়ার ছেলে রুহুল আমীন (২২), সোনাকান্দি গ্রামের আঙ্গুর মিয়ার ছেলে মহসিন (২৫) ও স্থানীয় মুশল্লী ইউনিয়নের আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে সোহাগ মিয়া (৩০)।

আঙ্গুলের ছাপ দেওয়া ময়না বেগম (৪০) ও আম্বিয়া বেগম (৩৫) জানান, তাদের বলা হয়েছে প্রথম দফায় ডাল তেল দেওয়া হবে। পড়ে দেওয়া হবে শাড়ি ও নগদ অর্থ। কোনো কিছু না বুঝেই তারা এ কাজটি করেছেন। এই জন্য তারা এখন চিন্তিত।

অভিযুক্ত মহসিন জানান, তাদের বেতন মাসে সাড়ে ৮ হাজার করে। এই জন্য তাদের লক্ষমাত্রা যতবেশী নারীর আঙ্গুলের ছাপ নেওয়া যায়। ছাপ সংগ্রের পর মোবাইল নাম্বারে যোগাযোগ করলে আলাদা পিন কোড দেওয়া হতো। যারা তাদেরকে নিয়োগ দিয়েছেন তারা কারা জানতে চাইলে কোনো ধরনের পরিচয় জানেন না বলে জানান।

এ ঘটনায় নান্দাইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুর রহিম সুজন জানান, এ ঘটনায় ধারাণা করা হচ্ছে একটি চক্র বড় ধরণের কোনো অপরাধ সংঘটিত করার উদ্যেশেই জাতীয় পরিচয়পত্র ও আঙুলের ছাপ সংগ্রহ করছে।

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!