চট্টগ্রামের শীর্ষ ১০ হাসপাতালে করোনারোগী মাত্র ৯১, নেপথ্যে ভিন্ন ঘটনা!

0

সময় এখন ডেস্ক:

চট্টগ্রামে গতকাল মঙ্গলবার পর্যন্ত করোনারোগীর সংখ্যা ছিল ৬ হাজার ৬৯৭ জন, তখন পর্যন্ত চট্টগ্রামের প্রধান ১০টি বেসরকারি হাসপাতালে ঠাঁই পেয়েছে মাত্র ৯১ জন করোনা রোগী। তবে এই সংখ্যাকেও ‘অতিরঞ্জিত’ বলে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন চিকিৎসাখাত সংশ্লিষ্ট অনেকেই। তারা বলছেন, বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা তদারকির জন্য সার্ভেইল্যান্স টিম ওই হাসপাতালগুলো পরিদর্শনে গেলে বাস্তবে এই সংখ্যক করোনা রোগীও সেখানে পাওয়া যাবে না।

দেখা গেছে, মঙ্গলবার (২৩ জুন) সকাল পর্যন্ত করোনা রোগী ভর্তি ছিল ইউএসটিসি হাসপাতালে সর্বাধিক ২৪ জন, আগ্রাবাদের চট্টগ্রাম মা ও শিশু জেনারেল হাসপাতালে ১৮ জন, সার্জিস্কোপ-পার্কভিউ ও সিএসসিআর হাসপাতালে ৯ জন করে ২৭ জন, মেট্রোপলিটন হাসপাতালে ৬ জন, ম্যাক্স হাসপাতাল ও মেডিকেল সেন্টারে ৫ জন করে ১০ জন, ন্যাশনাল হাসপাতালে ৪ জন এবং ডেল্টা হসপিটালে মাত্র ২ জন করোনা রোগী ভর্তি রয়েছেন।

সবমিলিয়ে চট্টগ্রামের শীর্ষস্থানীয় এই ১০টি হাসপাতালে করোনা নিয়ে ৯১ জন রোগী ভর্তি আছেন বলে হাসপাতালগুলো জানিয়েছে। অথচ এর মধ্যে ৯টি হাসপাতালেই বেড রয়েছে ৬৭৩টি। সর্বশেষ মঙ্গলবার (২৩ জুন) পর্যন্ত এর মধ্যে প্রায় দেড়শো সিট খালি রয়েছে। কিন্তু কাগজেকলমে এমন সংখ্যা লেখা হলেও বাস্তবচিত্র ভিন্ন।

চিকিৎসাখাতের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অনেকেই তাদের অভিজ্ঞতা বর্ণনা করে বলছেন, বেশিরভাগ বেসরকারি হাসপাতালেই পর্যাপ্ত পরিমাণ সিট খালি রয়েছে। আইসিইউ বেডও বেশিরভাগ ক্ষেত্রে খালিই থাকে। কিন্তু করোনা রোগী তো দূরের, সর্দি-কাশি নিয়ে গেলেও বাইরে থেকেই রোগী তাড়িয়ে দেওয়া হয়- এমন অভিযোগ মিলছে প্রতিদিনই।

করোনা রোগী নেওয়ার ভ’য়ে চিকিৎসকের অসুস্থতা ও নার্স-চিকিৎসক স্বল্পতার অজুহাতে রীতিমতো আইসিইউ ওয়ার্ডই বন্ধ রেখেছে ওআর নিজাম রোডের সিএসসিআর ও রয়েল হসপিটাল এবং কাতালগঞ্জের ডেল্টা হসপিটাল। ব্যবসা হারানোর ভ’য়েই মূলত বেসরকারি হাসপাতালগুলো করোনা রোগী ভর্তি করে না- এমন অভিযোগ রয়েছে করোনাকালের শুরু থেকেই। বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা তদারকির জন্য সার্ভেইল্যান্স টিম গঠন করা হলেও এখনও পর্যন্ত দৃশ্যমান কোনো উন্নতি দেখা যায়নি।

৮টি হাসপাতালই জোর গলায় দাবি করেছে, তাদের হাসপাতালে কোনো রোগী ফিরিয়ে দেওয়া হচ্ছে না। তবে পাঁচলাইশের পার্কভিউ হাসপাতাল মঙ্গলবার (২৪ জুন) ৪ জন রোগী ফিরিয়ে দেওয়ার কথা স্বীকার করে বলেছে, উপসর্গ থাকা রোগীদের জন্য বরাদ্দ বেড খালি না থাকায় ওই রোগীদের ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে। মেট্রোপলিটন হাসপাতালও ওই একদিনেই ৩ জন রোগী ফিরিয়ে দিয়েছে একই কারণ দেখিয়ে। তবে রোগী ফিরিয়ে দেওয়ার এটা অফিসিয়াল হিসাব, বাস্তবচিত্র নিশ্চিতভাবেই ভিন্ন।

সূত্র: চট্টগ্রাম প্রতিদিন

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!