বন্যার করোনা নিয়ে অ’শালীন উক্তি, বিচার চাইলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা বাচ্চু

0

অনলাইন ডেস্ক:

বরেণ্য রবীন্দ্র সংগীত শিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যার করোনা আক্রা’ন্ত হওয়ার পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন অনলাইন গণমাধ্যমে ক’টূক্তিমূলক মন্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়েছেন বিশিষ্ট নাট্যজন ও চলচ্চিত্র পরিচালক বীর মুক্তিযো’দ্ধা নাসিরউদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু।

বুধবার রাতে তিনি নিজের ফেসবুক প্রোফাইলে একটি পোস্ট দেন। এতে তিনি লিখেছেন:

বরেণ্য রবীন্দ্র সংগীত শিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যার করোনা রোগে আক্রা’ন্ত হওয়া নিয়ে কতিপয় অসুস্থ মানসিকতার “নামানুষ” যেভাবে অ’শালীন উক্তি করছে, তাদের বিরু’দ্ধে অ-শ্লীলতার অভিযোগ এনে কোন শিল্পী বা শিল্পী সংগঠন এখনো সাজা দাবী করেনি। অথচ ওয়েব সিরিজে অ-শ্লীলতার বিরু’দ্ধে সবাই দেশ ও সংস্কৃতি রক্ষা ও দোষী নির্মাতার সাজা দাবী করে আইনানুগ ব্যবস্থার সুপারিশ করেছেন। শুধু বন্যা নন দেশের প্রায় সকল নারী শিল্পীর বিরু’দ্ধে অপ’প্রচার ও কু’রচিপূর্ণ মন্তব্য হরহামেশা অনলাইনে দৃ্শ্যমান।

পাশাপাশি অনলাইনে ও টেলিভিশনে কতিপয় মোল্লা ওয়াজ মহফিলের নামে নারীদের নিয়ে যে কু’রুচিপূর্ণ বক্তব্য ও ফতোয়া দিচ্ছেন, তা রীতিমত অ’শ্লীল ও দেশীয় আইন ল’ঙ্ঘনের দ’ণ্ডনীয় অপরাধ। আমরা যারা ভিজ্যুয়াল কনটেন্টে অ’শ্লীলতার বিরু’দ্ধে সরব আবার তারাই ধর্মের নামে ও যৌ’ন বিকা’রগ্রস্ত কতিপয় “না-মানুষের” মন্তব্যের বিরু’দ্ধে সম্পূর্ণ নিশ্চুপ।

আমি অত্যন্ত দৃঢ়তার সাথে মানবিক সংস্কৃতি বিরো’ধী অপ’প্রচার ও কু’রুচিপূর্ণ মন্তব্যকারী এবং ধর্ম ব্যবসায়ীদের আইনের আওতায় এনে কঠিন সাজা বিধানের জন্য সরকারের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি। একই সাথে সকল শিল্পীদের এই অপ’প্রচারের বিরু’দ্ধে সর্বাত্মক প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহ্বান জানাচ্ছি।

নোবেলের চ্যানেল থেকে জেমসের গান সরালো ইউটিউব

নগর বাউল জেমসের গাওয়া শ্রোতাপ্রিয় গান ‘পাগলা হাওয়া’ কাভার করে নিজের চ্যানেলে প্রকাশ করেছিলেন বিত’র্কিত ও সমালোচিত গায়ক মাইনুল আহসান নোবেল। অনুমতি ছাড়া এই গান প্রকাশ করায় ইউটিউব চ্যানেলের কাছে অভিযোগ করেন গানটির সুর ও সংগীত পরিচালক শওকাত। তার অভিযোগের ভিত্তিতে নোবেলের ইউটিউব চ্যানেল থেকে গানটি সরিয়ে দিয়েছে ইউটিউব কর্তৃপক্ষ।

শওকাত জানান, নোবেলকে আমি চিনতাম না। সম্প্রতি বিত’র্কে জড়ায় সে। হঠাৎ তার ইউটিউব চ্যানেলে ঢুকে দেখি আমার ‘পাগলা হাওয়া’ গানটি তার চ্যানেলে। এ সময় তার বিরু’দ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার চিন্তা করি। তারপর ইউটিউব কর্তৃপক্ষ আমার ডক্যুমেন্ট ভেরিফাই করে জানিয়েছে, আমার অভিযোগ তারা গ্রহণ করেছে এবং গানটি নোবেলম্যানের ইউটিউব চ্যানেল থেকে মুছে দিয়েছে।

বাংলাদেশের যারা মূলধারার শিল্পী তারা অনেকে জানেনই না যে ইউটিউব থেকে আয় করা যায়! এটা জেমস ভাইয়ের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য। আবার নোবেলম্যান মাসে ২-৪ লাখ টাকা ইউটিউব থেকে আয় করছে। আর এটা শুধু আমাদের গান বিক্রি করে। এটা অ’নৈতিক।

শেয়ার করুন !
  • 326
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!