শিশুদের জন্য কিছু ক্ষতিকর ও উপকারী বিষয় জেনে নিন

0

লাইফ স্টাইল ডেস্ক:

কিছু বিষয় নিয়ে আমাদের মাঝে দ্বিধা দ্বন্দ্ব কাজ করে। শিশুদের ক্ষেত্রে কোন বিষয়ের প্রভাব কেমন হতে পারে, তা নিয়ে অনেকেই চিন্তিত থাকেন। বিশেষজ্ঞদের মতামতের ভিত্তিতে দেয়া তেমন কিছু তথ্য জেনে নেয়া যাক।

শিশুদের মানসিক চাপ বাড়াতে পারে বাড়ি বদল

মা-বাবার চাকরি বা অন্য কোনো কারণে যেসব শিশুর ঘন ঘন বাড়ি বদল করতে হয়, তারা মানসিক চাপে ভোগে। এই তথ্যটি এসেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জার্নাল অফ অ্যাডোলেসেন্ট হেল্থ ম্যাগাজিনে। সেনা পরিবারের মোট ৫ লক্ষ শিশুদের নিয়ে এক সমীক্ষা চালিয়েছিল তারা। দেখা গেছে, বাড়ি বা জায়গা বদলের কারণে অনেক শিশুকেই পরে মানসিক চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হয়েছে।

সূর্যের আলো দৃষ্টিশক্তি বাড়ায়

যেসব শিশু বাইরে মুক্ত হাওয়ায় খেলাধুলা করে এবং যথেষ্ট আলো পায়, তাদের চোখের দৃষ্টি ভালো থাকে। কারণ শিশু বয়সেই চোখের স্বাস্থ্য গঠনের জন্য আলো প্রয়োজন। এই তথ্যটি জানা গেছে এক আন্তর্জাতিক গবেষক দলের করা সমীক্ষার ফলাফল থেকে। চীনে গ্রীষ্মকালের চেয়ে শীতকালে শিশুদের চোখ বেশি খারাপ হয়। স্মার্টফোন এবং কম্পিউটার ব্যবহারের কারণে শিশুদের চোখের দিকে বিশেষভাবে নজর রাখার কথা বলেছেন বিশেষজ্ঞরা।

প্রতিদিন গোসলের কোনো প্রয়োজন নেই!

শিশুদের গোসল করানো সহজ কাজ নয়, যদিও অনেক মা-বাবার ধারণা প্রতিদিনই শিশুদের গোসল করা প্রয়োজন। ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিশু বিশেষজ্ঞ ড. রবার্ট সিডবুরি জানান, শিশুদের গায়ে একটু-আধটু জীবাণু থাকলে ক্ষতি নেই, বরং শরীরটা জীবাণুর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়তে শেখে এবং এর মধ্য দিয়ে ইমিউন সিস্টেমও আরো শক্তিশালী হতে পারে। তাই সপ্তাহে তিন-চারদিন গোসলই শিশুর জন্য যথেষ্ট।

শিশুদের স্বাস্থ্যে আপেলের গুরুত্ব

আপেলের উপকারের কথা অনেকের জানা থাকলেও প্রতিদিন হয়তো কোনো শিশুরই আপেল খাওয়া হয়ে ওঠে না। তবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ১৩ হাজার শিশুকে নিয়ে করা এক গবেষণা থেকে জানা গেছে, যেসব বাড়ন্ত শিশু প্রতিদিন একটি করে আপেল খায়, তাদের অতিরিক্ত ওজন বাড়া বা মোটা হওয়ার ভয় থাকে না, অর্থাৎ আপেল বেশি মোটা না হতে সহায়তা করে।

দূষিত বাতাস, পরীক্ষার ফলাফল খারাপ

বাতাসে দূষণের মাত্রা যত বেশি, স্কুলের পড়া-লেখায় শিশুদের মনোযোগ তত কম, অর্থাৎ দূষিত বাতাসে থাকলে শিশুদের শেখার ক্ষমতা কমে যায়। ৭ থেকে ১০ বছর বয়সি ৩৯টি স্কুলের ২৭০০ শিশুকে নিয়ে স্পেনের বার্সেলোনা বিশ্ববিদ্যালের করা গবেষণা থেকে এই তথ্যটি বেরিয়ে এসেছে। তাই শিশুদের শারীরিক, মানসিক বিকাশ ও পুরো মনোযোগের জন্য চাই দূষণমুক্ত বাতাস ও সুন্দর পরিবেশ।

‘অ্যান্টি-ডিপ্রেশন ওষুধ’ শিশুদের কাজে দেয় না

ডিপ্রেশনে ভোগা ৯ থেকে ১৮ বছর বয়সি মোট পাঁচ হাজার শিশুকে নিয়ে আন্তর্জাতিক এক গবেষক দলের গবেষণা থেকে বেরিয়ে আসা এ তথ্যটি ‘ল্যানসেট’-ম্যাগাজিনে প্রকশিত হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, ‘অ্যান্টি-ডিপ্রেশন ওষুধ’ শিশুদের ক্ষেত্রে তেমন কাজে দেয়না, বরং এই ওষুধ সেবনের ফলে কারো কারো আত্মহত্যা করার চিন্তা বেড়ে যায়।

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply