সব নারীর জন্য পর্দা বাধ্যতামূলক করার দাবি বাবুনগরীর

0

সময় এখন ডেস্ক:

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের ঘটনায় তীব্র নি’ন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার করে দ্রুত সময়ের মধ্যে সর্বোচ্চ সাজা নিশ্চিত করার জন্য সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছেন।

সোমবার রাজধানীর বারডেম জেনারেল হসপিটাল থেকে সংবাদমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে হেফাজত মহাসচিব বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে দেশে ধ* এর ঘটনা উদ্বেগজনক মাত্রায় বেড়েছে। সংবাদপত্রের ভাষ্য অনুযায়ী নোয়াখালীর এ ঘটনা আইয়্যামে জাহিলিয়াতকেও হার মানিয়েছে।

আল্লামা বাবুনগরী বলেন, এ ঘটনার বিবরণ শুনে আমার হৃদয়ে ভে’ঙে গেছে। মানুষ কীভাবে এতটা হিং’স্র হতে পারে! ব’র্বরোচিত কায়দায় এভাবে কোনো মা-বোন নির্যা’তিত হওয়ার পর চুপ করে ঘরে বসে থাকা যায় না।

হেফাজত মহাসচিব আরও বলেন, এ ঘটনায় ১ মাস পার হয়ে গেলেও স্থানীয় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী অপরাধীদের বিরু’দ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিতে পারেনি এটি বড়ই দুঃখজনক। অব’হেলার এ দায় স্থানীয় প্রশাসন এড়াতে পারে না।

তিনি আরও বলেন, পর্দা নারীর মৌলিক অধিকার। পর্দাতেই নারী সর্বাধিক নিরাপদ। নারীকে নিরাপদে রাখতে পারলে তখন ব্যক্তি, দেশ, জাতি ও সমাজ, সংসার সবকিছুই নিরাপদ। ধ*, নারী নির্যা’তন এসব রোধে সকল নারীর জন্য পর্দা বাধ্যতামূলক করার বিকল্প নেই।

হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী বলেন, অতি দ্রুত সময়ের মধ্যে নোয়াখালীর ঘটনায় প্রকৃত দোষীদের গ্রেপ্তার করে সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত না করলে এর প্রতিবাদে গোটা দেশ উত্তাল হয়ে উঠতে পারে।

বাবুনগরীর ৩ ভোট: আল্লামা শফীর রুহের বদদোয়া!

আল্লামা আহমদ শফীর ইন্তেকালের পর শুন্য হওয়া কওমি মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড- বেফাকের নেতৃত্ব ঠিক করতে বৈঠকে বসেছিলেন কওমি আলেমরা। আর সেখানে কওমি মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড বেফাকের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নির্বাচিত হন যাত্রাবাড়ী মাদ্রাসার মুহতামিম আল্লামা মাহমুদুল হাসান।

শনিবার যাত্রাবাড়ীর কাজলায় বেফাকের মজলিসে আমেলার বৈঠকে সদস্যদের প্রত্যক্ষ ভোটে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নির্বাচিত হন তিনি। তবে নির্বাচনের সবচেয়ে বড় চমক ছিল আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীর মাত্র ৩ ভোট পাওয়ার ঘটনা।

আর এই ঘটনাকে বলা হচ্ছে আল্লামা শাহ আহমদ শফীর বদদোয়ার কারণেই বাবুনগরী ৩ ভোট পেয়েছেন। কওমি সমর্থকগোষ্ঠী ফেসবুক পেজে শাহ শফীর অনুসারীরা বলছেন, সবই আল্লাহর পক্ষ থেকে হয়েছে। আমাদের মাথার মুকুট হযরত শফী হুজুরের শানে বেয়াদবি করছেন বাবুনগরী সাহেব। হুজুরের ইন্তেকালের পেছনে একমাত্র দায়ী তিনি। হুজুরকে হুম’কি দিয়ে পদত্যাগে বাধ্য করেছিলেন, এরপরই তিনি অসুস্থ হন। তারপর অক্সিজেন সাপ্লাই বন্ধ করে দিয়ে হুজুরকে মৃ’ত্যুর দিকে ঠেলে দেয়া হয়। এজন্যই হুজুরের রুহের বদদোয়া পড়েছে বাবুনগরী সাহেবের ওপর। এ থেকে শিক্ষা নেয়া উচিৎ জামাত শিবিরের ইন্ধনপুষ্ট বাবুনগরী গংয়ের।

শনিবার দুপুরে বেফাকের কয়েকজন আমেলার সদস্য বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন। তবে ভোটের ফলাফল ঘোষণা হলেও এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে নাম ঘোষণা করা হয়নি বলে জানিয়েছেন তারা।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, আমেলার বৈঠকে প্রায় ১২৫ জন সদস্য উপস্থিত ছিলেন। ব্যালটবাক্সের গণনা অনুযায়ী আল্লামা মাহমুদুল হাসান পেয়েছেন ৬৪ ভোট। আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী পেয়েছেন ৫০ ভোট। আর হেফাজত মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী পেয়েছেন মাত্র ৩ ভোট।

শেয়ার করুন !
  • 265
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!