এ এক অপার স্নেহময় বন্ধন আর মমতার প্রতীক

0

সময় এখন ডেস্ক:

ছোট ভাই-বোনের প্রতি বড় ভাই-বোনদের স্নেহ-মায়া, মমতা ও ভালোবাসা থাকে অপরিসীম। পৃথিবীর সর্বত্র যুগ যুগ ধরে এটি চলে আসছে। মানুষ আনন্দিত হয়ে সেই ভালোবাসা লালন করে, প্রকাশ করে। এর প্রতিফলনের কখনো কখনো ভিন্ন ধরনের হয়ে থাকে।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করা হয়। বেঁচে থাকে দুটি মেয়ে। শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা। আজ শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন। পাশে থেকে বোনকে সহযোগিতা করছেন ছোট বোন শেখ রেহানা।

প্রধানমন্ত্রী আজ ১৫ নভেম্বর রাজধানী ঢাকার বিজয় স্মরণীতে বঙ্গবন্ধু সামরিক জাদুঘরের পাশে নবনির্মিত তোষাখানা’র উদ্বোধন করেন। সেখানে পিতার প্রতিকৃতির সামনে দাঁড়িয়ে ছোট বোনের গালে এঁকে দেন চুমুর চিহ্ন। ছবিটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এসেছে।

বিজয় স্মরণীতে রাষ্ট্রীয় তোষাখানার ৫ তলার অত্যাধুনিক ভবনটির আয়তন ৫০ হাজার স্কয়ার ফুট। ৮০ কোটি টাকা ব্যয়ে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে এটি নির্মাণ করা হয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের তত্ত্বাবধানে পরিচালিত এই তোষাখানায় দেশের রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রিপরিষদের সদস্যবৃন্দ এবং কর্মকর্তাগণ যে সব রাষ্ট্রীয় উপহার পাবেন তা সংরক্ষণ করা হবে।

রাষ্ট্রীয় পদাধিকারীগণের দেশ-বিদেশ থেকে প্রাপ্ত উপহার সামগ্রী সংরক্ষণের ওপর গুরুত্বারোপ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ উপহার সামগ্রী দেশের সম্পত্তি এবং দেশের সম্মান ও মর্যাদার প্রতীক। কাজেই এসবকে সঠিকভাবে সংরক্ষণ করতে হবে।

শেখ হাসিনা বলেন, অতীতে তার নামে এবং নৌকার প্রতীক সম্বলিত অনেক উপহার, বিভিন্ন দুর্লভ আলোকচিত্র বিএনপি-জামাত সরকারের সময়ে ধ্বংস করে ফেলা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতার পরপরই দেশ পুনর্গঠনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু রাষ্ট্রীয় উপহার সামগ্রী সংরক্ষণের জন্য তোষাখানা নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করেছিলেন। জাতির পিতার নির্দেশেই ‘তোষাখানা আইন ১৯৭৪’ (রক্ষণাবেক্ষণ এবং ব্যবস্থাপনা) প্রণীত এবং বঙ্গভবনে এই তোষাখানা স্থাপন করা হয়।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পরবর্তীতে এই তোষাখানার জন্য পৃথক ভবনের প্রয়োজন অনুধাবন করায় তাঁর নির্দেশনাতেই রাষ্ট্রীয় উপহার সামগ্রী সর্বসাধারণের প্রদর্শনীর জন্য উন্মুক্ত করে বঙ্গবন্ধু সামরিক জাদুঘরের পাশে পৃথক এই নান্দনিক তোষাখানা ভবন নির্মাণ করা হয়।

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply