সর্বোচ্চ কঠোর অবস্থানে যাচ্ছে সরকার, সিদ্ধান্ত আগামীকাল

0

বিশেষ প্রতিবেদন:

দেশে পরিকল্পিতভাবে অ’রাজক পরিস্থিতি সৃষ্টির পাঁয়তারা চলছে। এ ধরনের ঘটনা সরকার কঠোর হস্তে দ’মন করবে বলেও সিদ্ধান্ত নিয়েছে। দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ ব্যাপারে কঠোর অবস্থান জানিয়েছেন। তিনি দেশের সাম্প্রতিক পরিস্থিতি নিয়ে সরকারের ঊর্ধ্বতন বিভিন্ন কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলেছেন। একাধিক মন্ত্রীর সঙ্গেও টেলিফোনে আলাপ করেছেন। এ ব্যাপারে সরকারের অবস্থান তিনি সুস্পষ্টভাবে ব্যাখ্যা করেছেন। তবে কিছু সিদ্ধান্ত আসতে পারে আগামীকাল অনুষ্ঠিতব্য ক্যাবিনেট মিটিংয়ে।

সূত্রগুলো বলছে, উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনায় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন; ধ* এর ব্যাপারে সরকার জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করেছে। যারা অপরাধী তাদেরকেই আইনের আওতায় আনা হচ্ছে। সুষ্ঠু বিচার নিশ্চিত করা হচ্ছে। সরকার ছাত্রদের দাবী মেনে নিয়ে সর্বোচ্চ সাজা মৃ’ত্যুদ’ণ্ড করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন। এর আইনি প্রক্রিয়াও চলমান। আগামীকাল ক্যাবিনেট মিটিংয়ে এ নিয়ে আলাপ এবং আগামী সপ্তাহের মধ্যেই এই আইন অধ্যাদেশ আকারে জারি হবে।

তবুও এসব ঘটনাকে পুঁজি করে যারা ফায়দা হাসিলের চেষ্টা করছে, নানা অপ’প্রচার ও গুজব ছড়াচ্ছে তাদের বিরু’দ্ধে সরকার কঠোর অবস্থান গ্রহণ করবে। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা প্রধানমন্ত্রী দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী আওয়ামী লীগকে এ ব্যাপারে সক্রিয় হওয়া এবং সরকার বিরো’ধী অপ’প্রচার, গুজবসহ নানা অপ’তৎপরতাকে রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। এর প্রেক্ষিতে আওয়ামী লীগ শীঘ্রই রাজনৈতিক কর্মসূচি নিয়ে মাঠে নামবে বলে জানা গেছে। দলের এক প্রেসিডিয়াম সদস্য বলেছেন, আওয়ামী লীগ ধ* এর প্রতিবাদে যেমন কর্মসূচি নিয়েছে, তেমনি এই ইস্যুকে পুঁজি করে যারা ঘোলা পানিতে মাছ শি’কারের চেষ্টা করছে তাদের বিরু’দ্ধেও অবস্থান গ্রহণ করবে।

সরকারের দায়িত্বশীল সংস্থার কাছে এ ধরনের তথ্য এসেছে যে, সাম্প্রতিক সময়ে একের পর এক যে ঘটনাগুলো ঘটছে এগুলো নিছক কাকতালীয় বা বিচ্ছি’ন্ন ঘটনা নয়, এগুলো পরিকল্পিত এবং একটি মহল এর পেছনে ইন্ধন যোগাচ্ছে। সরকারকে কোণঠাসা করার জন্য, বিপদে ফেলার জন্য।

সরকারের নীতি নির্ধারকদের মতে, ষড়’যন্ত্রকারীদের এই চেষ্টা সফল হতে পারে না। গোয়েন্দা সংস্থাগুলো ইতিমধ্যে অনুসন্ধানে দেখেছে, দেশের অনেক স্থানেই পরিকল্পিতভাবে এ ধরনের ঘটনা ঘটানোর জন্য চিহ্নিত লোকদের লেলিয়ে দেয়া হচ্ছে। গণমাধ্যমেও এ ধরনের ঘটনাগুলো ফলাও করে প্রকাশের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। এসবকে সরকারের বিরু’দ্ধে পরিকল্পিত ষড়’যন্ত্র মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

এছাড়াও তথ্যে আরও দাবি করা হয়েছে, এসব ষড়’যন্ত্র বাস্তবায়নের জন্য উ’স্কানিমূলক বেশ কিছু কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। যখন সরকার ধ* এর বিচার করছে, যখন আইন সংশোধন করা হচ্ছে, তখনই ছাত্র অধিকার ফোরামের ব্যানারে ধ* বিরো’ধী সমাবেশ এবং সেখান থেকে উ’স্কানিমূলক কর্মসূচি দেয়া হচ্ছে। বিএনপি নেতৃবৃন্দ যখন দেখছে, সরকার ধ* এর সর্বোচ্চ সাজা নির্ধারণে আইন সংশোধনের ব্যবস্থা নিয়েছে, তখনই আন্দোলনের ইস্যু হারানোর চিন্তায় আইনমন্ত্রীর বক্তব্যকে ‘ধাপ্পাবাজি’ দাবি করছে। একইসাথে বিএনপিপন্থী তথাকথিত বুদ্ধিজীবীরা যেমন- আসিফ নজরুল, ডা. জাফরুল্লাহসহ অন্যরা বিবৃতি দিচ্ছেন, ধ* প্রতিরোধে ফাঁ’সিকে সমর্থন করেন না বলে।

আওয়ামী লীগের নেতারা বলেছেন, আওয়ামী লীগ একটি বড় রাজনৈতিক সংগঠন, যার বিপুল জনপ্রিয়তা রয়েছে। কাজেই কোনো জনগুরুত্বপূর্ণ ইস্যুকে পুঁজি করে, সেটিকে ব্যবহার করে, ভিন্নখাতে নিয়ে আওয়ামী লীগের বিরু’দ্ধে রাজপথে আন্দোলন করে কেউ সফল হতে পারেনি। অতীতেও সফল হতে পারেনি ভবিষতেও সফল হতে পারবে না।

জানা গেছে, তবে যারা ধ* বিরো’ধী আন্দোলনকে পুঁজি করে রাজনৈতিক ফায়দা হাসিলের চেষ্টা করছে, আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে তাদেরকে সেসব কর্মসূচী প্র’ত্যাহারের অনুরোধ করা হবে। তবে এতে কাজ না হলে আওয়ামী লীগও রাজপথে অবস্থান নেবে, যেন ইস্যুকে কেন্দ্র করে কেউ পরিস্থিতি অ’শান্ত করে তুলতে না পারে।

কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ ব্যাপারে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ যে, এ ধরনের অপ’কৌশল তিনি কখনই সফল হতে দেবেন না। বাংলাইনসাইডার।

শেয়ার করুন !
  • 756
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!