হাইকোর্টে ক্ষমা চাইলেন সেই ম্যাজিস্ট্রেট

0

আইন আদালত ডেস্ক:

ধ* এর মামলায় ৪ না-বালককে যশোরের পুলেরহাট শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে পাঠানোর ঘটনায় বরিশালের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এনায়েত উল্লাহ হাইকোর্টে নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়েছেন।

রোববার (১১ অক্টোবর) বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি মহিউদ্দিন শামীমের হাইকোর্ট বেঞ্চে হাজির হয়ে লিখিতভাবে ক্ষমা প্রার্থনার আবেদন করেন তিনি।

এদিন ওই ৪ না-বালকও অভিভাবকের সঙ্গে আদালতে হাজির হন। এছাড়া, হাজির হন বরিশালের বাকেরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা।

এর আগে গত ৮ অক্টোবর রাতে যশোরের পুলেরহাট শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে থাকা ৪ না-বালকের জামিনের বিষয়টি নি’ষ্পত্তি করে রাতেই তাদের নিজ বাড়িতে পৌঁছে দিতে নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। পাশাপাশি তাদরেকে যশোরের পুলেরহাট শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে পাঠানোর ঘটনায় বরিশালের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এনায়েত উল্লাহকে তলব করেন হাইকোর্ট।

একইসঙ্গে না-বালকদের তাদের অভিভাবকসহ ও বরিশালের বাকেরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে সশরীরে হাইকোর্টে হাজির হতে বলা হয়।

এদিকে, হাইকোর্টের এই আদেশ জানার সঙ্গে সঙ্গে বরিশালের বিচারক না-বালকদের জামিন দেন।

৬ বছরের এক স্কুলছাত্রীকে ধ* এর অভিযোগে না-বালকদেরকে আসামি করে গত ৬ অক্টোবর মামলা করা হয়। এ মামলায় ওই দিনই তাদেরকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এর পরদিন ৭ অক্টোবর তাদের বরিশালের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এনায়েত উল্লাহ এক আদেশে তাদেরকে যশোর পুলেরহাট শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে পাঠানোর আদেশ দেন।

এরপর তাদের যশোর পুলেরহাট শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে পাঠানো হয়। এ নিয়ে একটি বেসরকারি টেলিভিশনে সংবাদ প্রচারিত হয়। এই সংবাদ নজরে এলে বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি মহি উদ্দিন শামীম ভার্চুয়াল ভার্চুয়াল আদালত বসান।

নিঃশর্ত ক্ষমা চাইলেন আইনজীবী ইউনুছ আলী আকন্দ

ভার্চুয়াল আদালত নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে অব’মাননাকর মন্তব্য করায় আদালতে হাজির হয়ে নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট ইউনুছ আলী আকন্দ। রোববার (১১ অক্টোবর) প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগ শুনানি শেষে রায়ের জন্য আগামী সোমবার (১২ অক্টোবর) দিন ধার্য করেন।

আদালতে শুনানি করেন আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন, এ জে মোহাম্মদ আলী, জয়নুল আবেদীন, ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, রুহুল কুদ্দুস কাজল প্রমুখ। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন।

গত ২৭ সেপ্টেম্বর বিষয়টি আদালতের নজরে আনার পর রোববার প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগ তাকে তলব করেন। পাশাপাশি তাকে ২ সপ্তাহের জন্য আইনপেশা থেকে বরখা’স্ত করা হয়েছে। এছাড়া তার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ব্লক এবং আপ’ত্তিকর স্ট্যাটাস সরাতে বিটিআরসিকে নির্দেশ দেওয়া হয়।

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!