‘কারো ব্যক্তিগত কর্মের দায় আওয়ামী লীগ নেবে না’

0

বিশেষ প্রতিবেদন:

হাজী সেলিমের ছেলে এরফান সেলিমের ঘটনায় আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষু’ব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী এই বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। দলটির একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র এই বিষয়ে নিশ্চিত করেছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, প্রধানমন্ত্রী এই ঘটনা জানার পর ক্ষু’ব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন এবং যথাযথ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন। আওয়ামী লীগের একজন শীর্ষ নেতা বলেন, আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেছেন কোন ব্যক্তিই আইনের উর্ধ্বে নয়। অপরাধ করলে যে কারও বিরু’দ্ধে যথাযথ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

দলের এক প্রেসিডিয়াম সদস্য বলেন, হাজী সেলিমের ছেলে এই ঘটনায় বাড়াবাড়ি করেছে। যদি তার অ’ন্যায় কিছু ঘটে থাকে তার জন্য দেশে আইন আছে, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী আছে, বিচার আছে। কিন্তু আইন নিজের হাতে তুলে নেওয়া এবং নৌবাহিনী কর্মকর্তার ওপর এই ধরণের ঘটনা অন’ভিপ্রেত এবং অ’কল্পনীয়।

এদিকে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার পরপরই আইন প্রয়োগকারী সংস্থা এরফানের গাড়ি চালককে আটক করেছে এবং মামলা দায়ের করেছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, দ্রুতই অন্য আসামিদের গ্রেপ্তার করা হবে।

হাজী সেলিমের ছেলের বাসায় যা যা পাওয়া গেল

এরফান সেলিমের বাসায় অভিযান চালিয়েছে র‌্যাব। সোমবার দুপুর ১২টা শুরু হওয়া অভিযানে বিকাল ৫টা পর্যন্ত চলেছে।

দুপুর ১২টার দিকে ৮তলা ভবনে অভিযান শুরু করে র‌্যাব। এ সময় এরফানের বাসা থেকে বেশ কিছু অ’বৈধ জিনিস উদ্ধার করে র‌্যাব। এর মধ্যে আছে একটি আগ্নেয়া’স্ত্র, যেটা অ’বৈধ বলে ধারণা করছে র‍্যাব। সেটির কাগজপত্র এখনও দেখাতে পারেননি তিনি। এছাড়া বিপুল সংখ্যক অ্যালকোহল সমৃদ্ধ পাণীয়ের বোতল রয়েছে বাড়িটিতে। পাওয়া গেছে বেশ কিছু বিয়ারের ক্যান। বেশ কিছু ওয়াকিটকি সদৃশ যন্ত্রপাতি জাতীয় সরঞ্জামও পাওয়া গেছে।

র‍্যাবের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, তারা ধারণা করছেন ঢাকা শহরের বিভিন্ন জায়গায় সিসিটিভি ক্যামেরা নিয়ন্ত্রণ করা এবং ঢাকা শহরে অ’বৈধভাবে কোনো সিগন্যালিংয়ের জন্য ব্যবহার করা হতো। এগুলোর ন্যায্য কাগজপত্র দেখাতে না পারলে সেগুলোও অ’বৈধ।

অন্যদিকে, ওই বাড়িতেই এরফানসহ আরও ২ জন পুলিশ হেফাজতে রয়েছেন। প্রেস ব্রিফিংয়ে বিস্তারিত জানানো হবে বলে জানিয়েছেন র‌্যাব কর্মকর্তারা।

এর আগে ২৫ অক্টোবর রাতে ঢাকা-৭ আসনের এমপি হাজী মোহাম্মদ সেলিমের ‘সংসদ সদস্য’ লেখা সরকারি গাড়ি থেকে নেমে নৌবাহিনীর কর্মকর্তা ওয়াসিফ আহমেদ খানকে মা’রধর করা হয়। রাতে এ ঘটনায় জিডি হলেও ২৬ অক্টোবর ভোরে হাজী সেলিমের ছেলেসহ ৭ জনের বিরু’দ্ধে মামলা করেন ওয়াসিফ।

শেয়ার করুন !
  • 4.3K
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply