ফরাসি পণ্য বর্জনকারী মরক্কোর বাদশাহ প্রাসাদ কিনলেন আইফেল টাওয়ারের কাছে!

0

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

ইসলামের নবী মুহাম্মদ (স.) এর কল্পিত চিত্র প্রদর্শনের কারণে ফ্রান্সের প্রতি নি’ন্দা জানিয়েছে উত্তর আফ্রিকার মুসলিম দেশ মরক্কো। কিন্তু সেই ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসের বিখ্যাত পর্যটন কেন্দ্র আইফেল টাওয়ারের কাছেই প্রাসাদোপম একটি ম্যানশন কিনলেন মরক্কোর বাদশা ষষ্ঠ মোহাম্মদ!

ফ্রান্স গত বছর ৭০০ মিলিয়ন ইউরো মূল্যের কৃষিপণ্য রপ্তানি করেছে মরক্কোতে। ফ্রান্সের কৃষিপণ্য রপ্তানির ১৭তম বৃহত্তম বাজার মরক্কো। অথচ সেই মরক্কোর বাদশার এই প্রাসাদ ক্রয়ের খবরে বিব্র’ত এখন দেশটির সাধারণ মানুষ।

জানা গেছে, প্যারিসের অভিজাত চ্যাম্প ডি-মার্সে অবস্থিত ওই প্রাসাদটিতে অন্ততটি ১০টি শোয়ার ঘর, সুইমিং পুল, স্পা, খেলার কক্ষ, ৩শ’ স্কয়ার মিটার বাগান ও অনেক গাড়ি পার্কিংয়ের সুবিধা রয়েছে। প্রাসাদোপম বাড়িটির আগের মালিক ছিল সৌদি আরবের রাজপরিবার। যার মালিকানা ছিল প্রিন্স খালিদ বিন সুলতান বিন আবদুল আজিজ আল-সৌদের হাতে। তাদের কাছ থেকে সরাসরি এটি কিনে নিয়েছেন মরক্কান বাদশাহ।

ফলে প্রকৃতপক্ষে কত টাকার বিনিময়ে কেনাবেচাটি সম্পন্ন হয় তা স্পষ্ট নয়। কিন্তু ধারণা করা হচ্ছে, এই প্রাসাদোপম বাড়ির দাম অন্তত ৮ কোটি ইউরো বা ৮শ’ কোটি টাকা হতে পারে।

প্রাইভেট এই ম্যানশনটি নির্মাণ করা হয়েছে বেলে ইপোকের তত্ত্বাবধানে প্রথম বিশ্বযু’দ্ধের আগে। এটি থেকে আইফেল টাওয়ারের দৃশ্য ভালোভাবে উপভোগ করা যায় অনায়াসে। ম্যানশনটির আয়তন ৩ হাজার স্কয়ার মিটার। ব্যবহারের জায়গা ছাড়াও খালি আছে অনেক স্থান।

এসসিআই দেস চ্যানেল কোম্পানির মাধ্যমে বাড়িটি কিনেছেন ষষ্ঠ মোহাম্মদ। তিনি ওই কোম্পানির বেশিরভাগ শেয়ারহোল্ডার। বাদশাহ মোহাম্মদ বিশ্বের সেরা ধনীদের একজন। ফলে এমন একটি বাড়ি তিনি কিনতে পারেন অনায়াসেই।

কিন্তু এমন সময় তিনি বাড়িটি কিনেছেন, যখন করোনার কারণে মরক্কোর অর্থনীতি সংকুচিত। সেই সাথে ফ্রান্সের পণ্য বর্জনের ডাক দিয়েছে তার নিজের দেশসহ অনেক মুসলমান রাষ্ট্র। স্বভাবতই এ নিয়ে অনেক সমালোচনা তৈরী হয়েছে মুসলিম বিশ্বে।

অর্থনীতির বেহাল অবস্থায় মরক্কোর প্রবৃদ্ধি কমেছে অন্তত ৬ শতাংশ। অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে বাদশাহ ৩২শ’ কোটি ডলার ছাড়ের ঘোষণা দিয়েছিলেন। দেশটিতে বেকারত্বের হার ১২ শতাংশ ছাড়িয়েছে।

ফোর্বস ম্যাগাজিনের ২০১৫ সালের এক প্রতিবেদনে বলা হয় বাদশাহ ষষ্ঠ মোহাম্মদের ব্যক্তিগত সম্পদের পরিমাণ ৬শ’ কোটি ডলার। এই প্রাসাদ ছাড়াও আরও অনেক স্থানে মরক্কোর বাদশাহর প্রাসাদ ও সম্পত্তি রয়েছে।

শেয়ার করুন !
  • 3.1K
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply